'হিরো অফ দ্য ম্যাচ' ধীরজ সিং

মোহনবাগান-১(ডিকা-পেনাল্টি)        ইন্ডিয়ান অ্যারোজ-১(রাহুল)

কলকাতা: টানা তিনটি ম্যাচ ড্র করে ফেলেছে প্রিয় দল। ৬ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট। আই লিগ জয়ের স্বপ্ন ক্রমেই দূরে সরে যাচ্ছে। কিন্তু প্রকৃত ফুটবলপ্রেমী শুধু এই তথ্য দ্বারা চালিত হন না। তাঁরা ভালো ফুটবলের, প্রতিভার কদর করতে জানেন। ময়দানে প্রথম আই লিগ ম্যাচের শেষে নিজেদের ফুটবল প্রেমের নজির স্থাপন করলেন মোহনবাগান জনতা। ১০ জনে বাঘের বাচ্চার মতো খেলে ভারতীয় ফুটবলের মহাশক্তিধর ক্লাবকে রুখে দেওয়ার পুরস্কার পেল ইন্ডিয়ান অ্যারোজের বাচ্চা ছেলেগুলো। গোটা মোহনবাগান গ্যালারি উঠে দাঁড়িয়ে হাততালি দিয়ে বরণ করে নিল তাঁদের এই কৃতিত্বকে। মোহনবাগান সমর্থকরা এদিন শুধু শতাব্দীপ্রাচীন ক্লাবের সম্মানই বাড়ালেন না। সঙ্গে ঊর্ধ্বে তুলে ধরলেন বাংলার ফুটবলের ঐতিহ্যকে।

এই সব মিটে গেলে পড়ে থাকে ম্যাচের হিসেবনিকেশ। সেই হিসেবনিকেশে ডাহা ফেল বাগানের ফরওয়ার্ড লাইন। সনি ছাড়া এই দলে ছোটো ম্যাচ জেতানোরও যে লোক নেই, সেটা প্রমাণ হচ্ছে প্রতিদিন। এমনকি সে দল যদি দশ জনে খেলে তাও। শুধু ডিফেন্সিভ সংগঠন করেই বাগানকে আটকে দিলেন অ্যারোজের পর্তুগিজ কোচ। প্রথমার্ধে তাও মোহনবাগান আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলে বেশ কিছু সুযোগ তৈরি করেছিল। কিন্তু যথারীতি ডিকা সুযোগ হালায় হারালেন। ক্রোমা একটা দুরন্ত লব করেছিলেন। কিন্তু সেটা আরও চমৎকার সেভ করলেন ধীরজ সিং। ম্যাচে তাঁকে এর বেশি খুব কিছু করতে হয়নি, কিন্তু ওই একটার জন্যই ম্যান অফ দ্য ম্যাচ হওয়া যায়। হলেনও। এই দলটার উচ্চতা কম। তবু বাগানের লম্বাচওড়া খেলোয়াড়রা তার সুযোগ নিতে পারলেন না। বরং স্থানীয় ছেলে রহিম আলি স্রেফ দৌড়ে ডিফেন্ডারকে হারিয়ে নিখুঁত গড়ানে ক্রস রাখলেন, যা থেকে ৩৩ মিনিটে গোল শোধ করলেন রাহুল বালন। বস্তুত ফিটনেস আর গতিতে এদিন বাগানকে বারবার পেছনে ফেলেছে অ্যারোজের ছোটোরা।

এটা ঠিক যে, ডিকাকে প্রায়শই অন্যায় ভাবে আটকেছেন অ্যারোজ খেলোয়াড়রা। কিন্তু একবারও যদি সেটা ভেদ করতে না পারেন, তাহলে তিনি কিসের বড়ো স্ট্রাইকার। দ্বিতীয়ার্ধের মাঝামাঝি লালকার্ড দেখলেন অ্যারোজ অধিনায়ক অমরনাথ। কিন্তু ততক্ষণে মোহনবাগান ম্যাচ থেকে হারিয়ে গেছে। সনির বদলি নিখিল কদম এদিন ছাপ ফেলেছেন। কিন্তু তাঁর ক্রসগুলো কাজে লাগাতে ব্যর্থ ক্রোমা-ডিকারা। বহুদিন পর আজ কিছুটা সময় খেললেন আজহার। কিন্তু তাঁর আড় ভাঙতে সময় লাগবে। বরং বিস্মৃতির অতল থেকে ফিরে এসে আজ নজরে পড়লেন মননদীপ। খেলা দেখে বোঝা গেল আরও ম্যাচ প্র্যাকটিসের দরকার। কিন্তু সেটা পেলে তিনি দলের কাজে আসতেই পারেন। কিন্তু ততদিনে আই লিগের ভালো কিছু করার সম্ভাবনা না থাকারই কথা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here