কলকাতা: শুধু কলকাতার ফুটবলেই হয়তো এটা সম্ভব। বুধবার দলের অনুশীলন শেষে মোহনবাগান কোচ শঙ্করলাল বলেছিলেন, “রোনাল্ডোকেও মেডিকেল টেস্ট দিয়ে জুভেন্তাসে সুযোগ পেতে হয়। কিন্তু সনি নর্দে অস্ত্রোপচারের পরের মেডিকেল রিপোর্ট পাঠাতে চাইছে না”। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সনি মেডিকেল রিপোর্ট পাঠিয়েছেন কি না জানা যায়নি, তবে বাগান কর্তারা জানিয়ে দিলেন সনি নর্দে খুব শিগগিরই মোহনবাগানে খেলার জন্য কলকাতায় আসছেন। তবে তাঁর ফিটনেস পরীক্ষা ও মেডিকেল টেস্ট করা হবে।

সনি কি দলের পঞ্চম বিদেশি হবেন নাকি ষষ্ঠ বিদেশি? এই প্রশ্নের স্পষ্ট উত্তর এদিন বাগান-কর্তারা দিতে পারেননি। কারণ দুদিন আগেই তাঁরা দলের পঞ্চম বিদেশি হিসেবে মিশরের মিডফিল্ডার ওমর নবিল রাশাদের নাম ঘোষণা করে দিয়েছেন। আর ষষ্ঠ বিদেশি হিসেবে কোচ শঙ্করলাল চাইছেন একজন ডিফেন্ডার। তবে পরিস্থিতি যা, তাতে ওমরের বাদ পড়ারই কথা। কারণ দুজন একই ধরনের বিদেশি মিডফিল্ডার নিয়ে দলের ভারসাম্য নষ্ট করতে কোচ চাইবেন না।

কিন্তু সনিকে বাতিল করে দেওয়ার পরেও এই নাটকীয় পট পরিবর্তন কী করে হল?

অঞ্জন মিত্র সরে দাঁড়ানোর আগে পর্যন্ত গোটা নির্বাচনী প্রচারের পর্যায়ে সমর্থকদের সঙ্গে গলা মিলিয়ে সনি নর্দেকে আনার দাবি জানিয়ে এসেছেন সৃঞ্জয় বসুরা। যদিও তাঁরা নিজেরা সনিকে নিয়ে সমস্যা সম্পর্কে অবহিত ছিলেন। এখন অঞ্জন দৃশ্যে নেই, তাও যদি সনি না আসেন, তাহলে মোহনবাগানের ডিরেক্টর হিসেবে দায় বর্তাবে টুটু-সৃঞ্জয়-দেবাশিসদের ওপরেই। সেটাই হয় ওমরের নাম ঘোষণা করার দিন। রাতারাতি সনি ফেসবুকে জানান, মোহনবাগান কর্তারা তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ না করেই অন্য ফুটবলার নিয়ে নিয়েছেন। তাই তিনি অন্য ক্লাবে যাচ্ছেন। সনির এই চাপ সৃষ্টির খেলায় সাড়া মেলে। সমর্থকরা উত্তাল হয়ে ওঠেন। দ্রুত সনির সঙ্গে যোগাযোগ করে ফেসবুক পোস্ট মোছান বাগান-কর্তারা। তারপরই সনিকে আনার তৎপরতা শুরু হয়।

গোটা বিশ্ব জানে ফুটবল এমন একটা খেলা, যেখানে একজন সম্পূর্ণ ফিট নয় এমন প্রতিভাবান ফুটবলাররের থেকে একজন কম প্রতিভাবান ফিট ফুটবলার বেশি গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু আসন্ন ভোটকে মাথায় রেখে ফুটবলারের ফিটনেস যাচাইয়ের আন্তর্জাতিক মানের সঙ্গে বোঝাপড়া করে সনিকে নিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নিলেন বাগান কর্তারা। কিছুটা ঝুঁকি নিয়েই। কারণ, সনির মতো দামি ফুটবলার যদি আই লিগের ২০টি ম্যাচ এবং সুপার কাপে আশানুরূপ পারফর্ম করতে না পারেন, তখন তার দায়ও কিন্তু বর্তাবে কর্তাদের ওপরেই।

আর যদি সনি ১০০ শতাংশ পারফর্ম করতে পারেন, তাহলে সনি-ডিকা-হেনরির আক্রমণ আই লিগের অন্য দলগুলির ঘুম কেড়ে নিতে বাধ্য।

সবই সময় বলবে। তবে এটুকু এখনই বলা যায়, মোহনবাগান ছাড়া সনিরও গতি নেই অস্ত্রোপচারের পর। নইলে এত কাঠখড় তিনি পোড়াতেন না।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন