কলকাতা: নির্বাচনের জন্য গঠিত তিন প্রাক্তন বিচারপতির ও দুই যুযুধান গোষ্ঠীর বৈঠক হল মোহনবাগানে। সেই বৈঠকে খেলোয়াড়দের বেতন দেওয়ার বিষয়ে সবুজ সংকেত দিলেন বিচারপতিরা। বৈঠকের পর বেরিয়ে মোহনবাগান ফুটবল ক্লাব ইন্ডিয়ার বোর্ড সদস্য সৃঞ্জয় বসু জানালেন, তাঁরা চাইলে ফুটবলারদের বেতন আটকে দিতেই পারতেন, কিন্তু সেটা তাঁরা করেননি।

কেন বেতন আটকে দিতে পারতেন তাঁরা? কারণ যেটা জানা গেল, ফুটবলারদের বেতন দেওয়া হচ্ছে মোহনবাগান অ্যাথলেটিক ক্লাবের অ্যাকাউন্ট থেকে। কিন্তু খেলোয়াড়রা চুক্তিবদ্ধ মোহনাবাগানের কোম্পানির সঙ্গে। এই বিষয়টি নিয়ে সৃঞ্জয়রা আপত্তি করেননি এবারের মতো। কিন্তু কেন কোম্পানির অ্যাকাউন্টে টাকা ট্রান্সফার করে সেখান থেকে ফুটবলারদের বেতন দেওয়া যাচ্ছে না? কোনো বা কয়েকজন বোর্ড সদস্য সই করতে না চাওয়ার জন্য, নাকি অন্য কোনো কারণ? সেটা জানা যায়নি। অঞ্জন মিত্রর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে, তিনি পরিষ্কার জানালেন, এখন এ বিষয়ে তিনি কিছু বলবেন না। এই ভাবে প্রতি মাসে বেতন দেওয়া যাবে কিনা, বললেন না সে বিষয়েও।

তবে কোনো পক্ষই কিছু না বলতে চাইলেও, ক্লাবের অ্যাকাউন্ট থেকে বেতন দেওয়ায় মোহনবাগানের এএফসি লাইসেন্সিং-এর ক্ষেত্রে সমস্যা হতে পারে। অঞ্জনবাবু বলছেন, ফুটবলাররা এ নিয়ে কোনো অভিযোগ না করলে সমস্যা হবে না। এদিন ম্যাচের পরই চেক নিয়ে গিয়েছেন ফুটবলাররা।

এদিন মোহনবাগানের ভোটার তালিকা তৈরি হয়ে গেল। আগামী সাত দিন সেই তালিকা ক্লাব তাঁবুতে টাঙানো থাকবে। সদস্যরা তা দেখে সংশোধনের আবেদন করতে পারবেন। এই প্রক্রিয়া শেষ হলে ভোটের দিন ঘোষণা করা হবে। সূত্রের খবর, ২ অক্টোবর বা ১১ নভেম্বর- এই দুটি তারিখকে ভোটের দিন হিসেবে প্রাথমিক ভাবে ভেবে রেখেছেন দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা। যদিও এর মধ্যে নতুন করে মামলা হলে, ভোটের ভবিষ্যৎ অস্পষ্ট হয়ে যেতেই পারে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন