কলকাতা: ইতিমধ্যেই ফৈয়াজের সঙ্গে পাকা কথা সেরে ফেলেছে এটিকে। সঞ্জয় সেনের নেতৃত্বে আরও বেশ কয়েকজন বাগান ফুটবলারের সঙ্গে কথা চালিয়ে যাচ্ছে তারা। সবুজমেরুন দুর্গে এটিকের হানার কথা স্বীকারও করে নিয়েছিলেন পদত্যাগী বাগান কর্তা দেবাশিস দত্ত। তবে তাঁরাও যে বসে নেই, সেই ইঙ্গিতও দিয়েছিলেন মোহন কোচ শঙ্করলাল চক্রবর্তী। তারই প্রমাণ মিলল মঙ্গলবার।

ভুবনেশ্বর থেকে ফিরে আসা মোহনবাগান দলের এদিন অনুশীলন ছিল না। এই দিনটাকেই গত মরশুমের দলের খেলোয়াড়দের সঙ্গে কথাবার্তা এগোনোর জন্য বেছে নিয়েছিলেন বাগান কর্তারা। ডিকা আগেই ইঙ্গিত দিয়েছিলেন তিনি মোহনবাগানে খেলতে ইচ্ছুক। সেই মতো এদিন ক্যামেরুনের স্ট্রাইকারের সঙ্গে পাকা কথা সারা হয়ে গেল বাগানের।

দেবজিত মজুমদারের আড়ালে প্রায় হারিয়েই গিয়েছিলেন শিলটন পাল। এই মরশুমে সুযোগ পেয়ে নিজেকে নতুন করে মেলে ধরেছেন বাগানের ঘরের ছেলে। আগামী মরশুমেও তেকাঠির নীচে তাঁর ওপরই ভরসা রাখছেন ক্লাবকর্তারা। সেই মতোই তাঁর সঙ্গে কথা চূড়ান্ত করা হল এদিন।

খুব বেশি ম্যাচ খেলতে পারেননি‌ এ মরশুমে। শোনা গেছিল, খুব ভালো ফুটবলার হলেও তিনি চোটপ্রবণ। কিন্তু সেসব ছাড়িয়ে বাগান সমর্থকদের নতুন সংস্কার হল, ‘ইয়ুটা খেললে মোহনবাগান হারে না’। হ্যাঁ। সোনালি চুলের জাপানি মিডফিল্ডার ইয়ুটা কিনোয়াকির সঙ্গে কথা পাকা করে ফেলল মোহনবাগান।

দু-এক দিনের মধ্যেই এদের সঙ্গে চুক্তি সই হয়ে যাবে।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন