মেহতাব হোসেন

মোহনবাগান – ৩ (ডিকা, অভিষেক, আজহারউদ্দিন)                         রেনবো – ২(অভিজিত, সানডে)

ওয়েবডেস্ক: ইচ্ছা ছিল লালহলুদ জার্সি গায়ে অবসর নেবেন। সেটা হয়নি।  ইস্টবেঙ্গল তাঁকে প্রাপ্য মর্যাদা দেয়নি। ক্ষোভে যোগ দেন মোহনবাগানে। কোচ শঙ্করলাল জানিয়ে দিয়েছিলেন, মেহতাবের ৯০ মিনিট খেলার মতো ফিটনেস নেই, তাই তাঁকে প্রথম একাদশে রাখবেন না। রাখেনওনি। কিন্তু না৪মাতে হলই। বৃষ্টি-কাদার মাঠে ঘরের মাঠে বড়ো দল যখন ১-০ গোলে পিছিয়ে, তখন অভিজ্ঞতার ওপর ভরসা না করে উপায়ই বা কি। দ্বিতীয়ার্ধে মেহতাব নামলেন এবং রং বদলে দিলেন ম্যাচের। ছেড়ে আসা দলকে দেখানোর জন্য যে আগুন তিনি পুষে রেখেছেন, তা যদি গোটা মরশুম রাখতে পারেন, তাহলে সেটা শঙ্করলালের কাছে খুশির খবর বই-কি।

সোমবার রাতে হঠাৎ অসুস্ত হয়ে পড়ায় হেনরিকে ছাড়াই নামতে হয়েছিল মোহনবাগানকে। তবে দুরন্ত গতিতে শুরু করেছিল শঙ্করলালের ছেলেরা। ক্রমাগত চাপ বাড়ানোর ফলে লাগাতার কর্নার পায় মোহনবাগান। কিন্তু সেট পিস কাজে লাগাতে ব্যর্থ হয় তারা। গোল পেয়েই যেতেন এদিন সারা ম্যাচে নজর কাড়া পিন্টু মাহাত। কিন্তু ছাব্বিশ মিনিটে মাঝমাঠ থেকে তার গোল মুখ শট বাঁচিয়ে দেন বিপক্ষ গোলকিপার দিপেন্দু। সারা ম্যাচেই নজর কাড়লেন এই তরুণ গোলকিপার। গত বছর এই রেনবোর কাছেই আটকে যায় সবুজমেরুন। ফের তেমনই চিত্রের আভাস পাওয়া যাচ্ছিল। কেন না বিরতিতে যাওয়ার মিনিট সাতেক আগে খেলার বিপক্ষে লিড রেইনবোর। ফাঁকা জায়গা পেয়ে গিয়েছিলন রেইনবোর সুজয়। তাঁকে বাঁধা দিতে গিয়ে ফ্রি কিক দিয়ে বসেন কিংসলে। ফলে পড়ে পাওয়া চোদ্দো আনা কাজে লাগাতে ভুল করেনি নিউ ব্যারাকপুরের দলটি। চমৎকার গোল করেন অভিজিত সরকার। বলে নজর রাখার ক্ষেত্রে দুব৪লতার পরিচয় দেন শিলটন পাল।

দ্বিতীয়ার্ধে পাঁচ মিনিটের মধ্যে মেহতাবের ফ্রি কিক থেকে ডিকার গোলে সমতা ফেরায় মোহনবাগান। ৬৮ মিনিটে ফের গোল। অভিষেক আম্বেকরের ক্রস বিপক্ষ ডিফেন্ডার দানোর গায়ে লেগে গোলমুখে দিক পরিবর্তন করে। ম্যাচে লিড মোহনবাগানের। যার ফলে প্রাণ ফিরে পান উপস্থিত দর্শকেরা। এর রেশ কাটতে না কাটতে ফের গোল। ফের অ্যাসিস্ট মেহতাবের। এবার গোল আজহারউদ্দিনের। তবে সারা ম্যাচে সাধ্যমতো লড়াই করে গেল রেইনবো। যা অবশ্যই প্রশংসার যোগ্য। খেলার শেষ দিকে মোহন গোলকিপার শিলটনের ফ্লাইট মিস রেইনবোকে ব্যবধান কমাতে সাহায্য করে। রেনবোর দুটি গোলেই দায়িত্ব থেকে গেল শিলটনের।

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here