কেরলকে ২-০ গোলে হারিয়ে শীর্ষস্থান আরও পাকাপোক্ত করল মুম্বই

0

মুম্বই সিটি এফসি ২ (ফন্ড্রে, বউমাস) কেরল ব্লাস্টার্স ০

খবরঅনলাইন ডেস্ক: খেলা শুরু হওয়ার ১১ মিনিটের মধ্যেই দু’ দু’টো গোল, একটা পেনাল্টি দুর্দান্ত ভাবে বাঁচানো, একটা গোল অফসাইডের জন্য বাতিল হয়ে যাওয়া – সব মিলিয়ে শনিবার আইএসএল-এর আসর ছিল জমজমাট। শেষ পর্যন্ত কেরল ব্লাস্টার্সকে (Kerala Blasters) ২-০ গোলে লিগ টেবিলে শীর্ষস্থানটি আরও পাকাপোক্ত করল মুম্বই সিটি এফসি (Mumbai City FC)।

মুম্বইয়ের দুর্ভাগ্য। তারা আরও বেশি গোলে জিততে পারত। দুর্ভাগ্য কেরলেরও। গোলের পথে বাধা হয়েছে পোস্ট, বাধা হয়েছে অফসাইডের ডাক। এ সব না হলে তারাো হয়তো ম্যাচে সমতা ফেরাতে পারত।

১১ মিনিটের মধ্যেই দু’ গোল

খেলা মিনিট তিনেকও গড়ায়নি, গোল পেয়ে গেল মুম্বই। তাদের মিডফিল্ডার হুগো বউমাসকে বক্সে ট্যাকল করতে গিয়ে ফাউল করে ফেললেন কেরলের সেন্টার ব্যাক কোস্টা হ্যাময়নেসু। ইংল্যান্ডের স্ট্রাইকার লে ফন্ড্রের শটটি পায়ের তোলা দিয়ে গলিয়ে ফেললেন কেরলের গোলকিপার অ্যালবিনো গোম্‌স। এই নিয়ে ফন্ড্রের ছ’টা গোল হল।

তখন কেরল গুছিয়ে উঠতে পারেনি, আক্রমণে যাওয়া তো দূরের কথা। আবার গোল করে ফেলল মুম্বই। ১১ মিনিটে নিজেদের হাফ থেকে বউমাসকে লক্ষ্য করে লম্বা বল বাড়ালেন আহমেদ জাহাউ। বল ধরতে কোনো ভুলচুক করেননি বউমাস। তার পর কেরলের রক্ষণকে হতচকিত করে গোল লক্ষ্য করে যে শটটি নিলেন, তা গোম্‌সকে পরাস্ত করে জালে জড়িয়ে গেল।

দু’ পক্ষের সুযোগ

১৭ মিনিটে ফের সুযোগ পেয়েছিল মুম্বই। বাঁ দিক থেকে সুন্দর একটি পাস পেলেন মন্দার রাও দেসাই। প্রথমে মনে হয়েছিল কেরলের বক্সে তিনি একটি ক্রস পাঠাবেন। কিন্তু শেষ মুহূর্তে পরিকল্পনা বদল করে গোল লক্ষ্য করে নিজে যে শট নিলেন তা অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হল।

২০ মিনিটের মাথায় মনে হল কেরলের আক্রমণভাগ তৎপর হয়েছে। প্রথম কর্নার পেল তারা। খলরিং-এর কর্নার কিক থেকে মুম্বইয়ের বক্সের ঠিক বাইরে বল পেয়ে গেলেন সহল আবদুল সামাদ। তাঁকে ফাউল করে বসলেন বউমাস। কিন্তু ফ্রি কিক কাজে লাগাতে পারল না কেরল।

এর পর আক্রমণ, প্রতি-আক্রমণের খেলা চলতে চলতে আবার ২৯ মিনিটে কেরলের সামনে সুযোগ চলে এল। মুর্তাদা ফল ভালো করে বল ক্লিয়ার না পারায় তা চলে আসে ভিসেন্ট গোমেজের কাছে। ঠিক বক্সের বাইরে থেকে গোমেজ যে শট নেন তা দাইভ দিয়ে দুর্দান্ত ভাবে বাঁচিয়ে দেন অমরিন্দর সিং।

৪১ মিনিটে ফের সুযোগ আসে কেরলের সামনে। বাঁ দিক থেকে কেরলের অধিনায়ক জেসেল কারনেইরোর লম্বা থ্রো মুম্বইয়ের বক্সে পড়ার মুহূর্তে হেড দিয়ে বাঁচানোর চেষ্টা করেন মুর্তাদা ফল। কিন্তু বল চলে আসে লালথাঙ্গা খলরিং-এর কাছে। খলরিং ডাইভ দেওয়ার চেষ্টা করেও বলে পা লাগাতে পারেননি। পা লাগাতে পারলে অমরিন্দর সিংকে হয়তো বিপাকে পড়তে হত।

অফসাইডে গোল বাতিল, পেনাল্টি নষ্ট

৫২ মিনিটে গোল করার সুবর্ণ সুযোগ পায় কেরল। ভিসেন্ট গোমেজ ডান দিকে পেয়ে যান লালথাঙ্গা খলরিং-কে। খলরিং বল নিয়ে মুম্বইয়ের বক্সে ঢুকে পড়ে গোল লক্ষ্য করে শট নেন। ঠিক সময়ে দলকে বিপদ থেকে বাঁচান মুর্তাদা ফল।

তিন মিনিট পরেই গোল করে কেরল, কিন্তু তা অফসাইডের দরুন বাতিল হয়ে যায়। কর্নার থেকে মুম্বইয়ের বক্সে ক্রস পাঠান ফাকুন্ডো পেরেরা। সেই বল হেড করে জর্ডন মুরের কাছে পাঠান কোস্টা হ্যাময়নেসু। মুরে বল জড়িয়ে দেন মুম্বইয়ের জালে, কিন্তু সহকারী রেফারি ফ্ল্যাগ তুলে অফসাইড ডাকেন।

ইতিমধ্যে কেরল আরও সুযোগ নষ্ট করে। কিন্তু ৭১ মিনিটে তৃতীয় গোলের সুযোগ হারায় মুম্বই। হুগো বউমাসকে বক্সের মধ্যে স্লাইড করে ট্যাকল করেন সন্দীপ সিং। রেফারি পেনাল্টি দেন। বউমাসের পেনাল্টি কিক ডান দিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে অবিশ্বাস্য ভাবে বাঁচিয়ে দেন গোম্‌স। এই নিয়ে এই টুর্নামেন্টে তিনটি পেনাল্টি বাঁচালেন গোম্‌স।

৮টা ম্যাচ থেকে ১৯ পয়েন্ট সংগ্রহ করে এ বারের আইএসএল-এ (ISL 2020-21) লিগ টেবিলের শীর্ষেই থাকল মুম্বই। সমসংখ্যক খেলায় ৬ পয়েন্ট সংগ্রহ করে কেরল থাকল নবম স্থানে।

আরও পড়ুন: ১৯ ফেব্রুয়ারি আইএসএলের ফিরতি ডার্বি   

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন