কেমন ছিল সেই দিনগুলো? করোনাকে হারিয়ে নিজের অভিজ্ঞতা জানালেন পাওলো দিবালা

খবর অনলাইনডেস্ক: করোনাভাইরাসের (Coronavirus) আতঙ্কে গোটা বিশ্ব যখন ত্রস্ত, তখন কিছুটা স্বস্তির খবর। করোনাভাইরাসকে হারিয়ে ক্রমে সুস্থ হয়ে উঠছেন জুভেন্তাসের পাওলো দিবালা (Paolo Dibala)। এমনকি শরীরচর্চাও শুরু করে দিয়েছেন আর্জেন্তিনার এই তারকা। সুস্থ হয়ে ওঠার পরেই করোনা-যুদ্ধ জয় করার অভিজ্ঞতা জানালেন দিবালা।

গত শনিবার কোভিড ১৯ (Covid 19)-এর কবলে পড়ার কথা জানিয়েছিলেন দিবালা। সংক্রমিত তাঁর বান্ধবী ওরিয়ানাও। মাতুইদি ও রুগানির পর তৃতীয় জুভেন্তাস (Juventus) তারকা হিসেবে করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি। শুধু তা-ই নয়, ইতালীয় ‘সিরি এ’ লিগে খেলা অন্যান্য ক্লাবের বেশ কয়েক জন ফুটবলারের শরীরে এই ভাইরাসের সন্ধান মেলে।

স্বাভাবিক ভাবেই এমন পরিস্থিতিতে জুভেন্তাসের স্টার ফুটবলার ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোকে (Christiano Ronaldo) নিয়ে চিন্তা বাড়ে অনুরাগীদের। সপরিবার একটি দ্বীপে আইসোলেশনে চলে যান পর্তুগিজ তারকা। তবে দিবালা সুস্থ হয়ে ওঠায় সকলেই স্বস্তি পাচ্ছেন। আর্জেন্তাইন এই স্ট্রাইকার জানালেন, করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর অত্যন্ত শ্বাসকষ্টে ভুগেছেন তিনি।

একটি টিভি চ্যানেলে দিবালা বলেন, “আমার শরীরে করোনার উপসর্গ বেশ প্রকট হয়ে উঠেছিল। তবে এখন অনেকটাই ভালো আছি। এখন হাঁটাচলা করতে পারছি। শরীরচর্চা করছি। দিন কয়েক আগে অবধি কোনো কাজ করতে গেলেই শ্বাসকষ্ট হচ্ছিল। সারা শরীরে ব্যথা ছিল।”

আরও পড়ুন করোনাভাইরাস ঠেকাতে ফের মানবিক মুখ সৌরভের, ধন্যবাদ দিলেন অশোক ভট্টাচার্য

তবে দিবালা যে দায়িত্বজ্ঞানের পরিচয় দিয়েছেন তা অনেকের কাছেই প্রশংসাযোগ্য। ইতালিতে করোনার প্রকোপ শুরু হওয়ার ঠিক পরেই সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে নিজেকে ঘরবন্দি করে ফেলেছিলেন তিনি। পরে উপসর্গ দেখা দেওয়ায় করোনা পরীক্ষাও করান। সেখানেই জানা যায়, ভাইরাস ঢুকেছে দিবালার শরীরে।

উল্লেখ্য, করোনা বিশ্বব্যাপী মহামারিতে পরিণত হওয়ার পরই গোটা দুনিয়ায় স্থগিত ও বাতিল হয়ে যায় সমস্ত স্পোর্টস ইভেন্ট। তালিকায় বাদ পড়েনি ‘সিরি এ’-ও। ফুটবলারদের দ্রুত ছুটি দিয়ে দেওয়া হয়। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে টুর্নামেন্ট নিয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.