ইস্টবেঙ্গল-১(কাশিম)          পিয়ারলেস-২(ক্রোমা, নরহরি শ্রেষ্ঠা)

কলকাতা: আর গোল পার্থক্য নিয়ে ভাবার প্রয়োজন নেই। কলকাতা লিগের শেষ দুটো ম্যাচ জিতলেই লিগ চ্যাম্পিয়ন হয়ে যাবে সবুজমেরুন। কারণ ৯ ম্যাচ খেলে মোহনবাগানের পয়েন্ট ২৩, ইস্টবেঙ্গলের পয়েন্ট ২০। লালহলুদ শেষ দুটো ম্যাচ জিতলে তাঁদের পয়েন্ট হবে ২৬, অন্যদিকে মোহনবাগান শেষ দুটো ম্যাচ জিতলে পয়েন্ট হবে ২৯। অর্থাৎ শেষ দুটো ম্যাচের মধ্যে একটা ড্র করলেও লিগ জিতবে শঙ্করলালের ছেলেরা।

এদিন চলতি মরশুমের কলকাতা লিগে অপরাজিতর তকমা খোয়াল সুভাষ ভৌমিকের দল। বিশ্বজিত ভট্টাচার্যর পিয়ারলেস পয়ন্ট কাড়ল তিন প্রধানের থেকেই। তার মধ্যে মহামেডান ও ইস্টবেঙ্গলকে হারিয়ে দিল তাঁরা।

খেলার পাঁচ মিনিটের মাথায় বক্সের মধ্যে বাংলার গ্রামে গঞ্জে খেপ খেলে বেরানো আনসুমানা ক্রোমার হালকা আউটসাইড ডজে কেটে গেলেন ইস্টবেঙ্গলের বিশ্বকাপার স্টপার। সেই বল ঢুকে গেল গোলে। গোল শোধ করতে সুভাষ ভৌমিকের ছেলেদের চেষ্টা করতে হল আরও ৬৬ মিনিট। তাও সেই গোলটা হল পিয়ারলেসের গোলরক্ষক সন্দীপ পালের জঘন্য ভুলে। এর মধ্যে অবশ্য যথেষ্ট নড়বড়ে  দেখিয়েছে পিয়ারলেস রক্ষণ ও গোলরক্ষককে। লালহলুদ আক্রমণও করেছে কিন্তু গোলের ইতিবাচক সুযোগ তৈরি হয়নি। জেতার তীব্র ক্ষিদেটাই লালহলুদে অনুপস্থিত ছিল এদিন। অন্যদিকে ক্রোমার ম্যাচের ২০ মিনিটে চোট পেয়ে বেরিয়ে যাওয়া সত্ত্বেও সুযোগ পেলেই আক্রমণ করেছে বিশ্বজিতের ছেলেরা।

আর সেই আক্রমণের জেরেই ৭৭ মিনিটে দূরপাল্লার শেটে গোল করলেন মোহনবাগানের আরেক বাতিল ফুটবলার নরহরি শ্রেষ্ঠা। দ্বিতীয়ার্ধে ৮ মিনিট সংযোজিত সময় দিয়েছিলেন রেফারি। কিন্তু জবি জাস্টিন আর বালি গগনদীপের মতো স্ট্রাইকারের পক্ষে সেটাও হয়তো কম।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন