ronaldo

জুভেন্তাস – ০       রেয়াল মাদ্রিদ – ৩ ( রোনাল্ডো ২, মার্সেলো )

ওয়েবডেস্ক: চ্যাম্পিয়ন্স লিগে বড়ো জয় রেয়াল মাদ্রিদের। কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম লেগে রোনাল্ডো ঝড়ের সামনে দাঁড়াতেই পারল না জুভেন্তাস। প্রথম থেকেই আক্রমণাত্মক শুরু করে রেয়াল। ম্যাচের মাত্র তিন মিনিটে দলকে এগিয়ে দেন সেই, ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো। প্রথম খেলোয়াড় হিসাবে, চ্যাম্পিয়ন্স লিগে পর পর দশ ম্যাচে গোল করলেন তিনি। তবে পিছিয়ে পড়ে ধীরে ধীরে আক্রমণ তৈরি করতে থাকে ইতালির চ্যাম্পিয়ন ক্লাবটি। ২৩ মিনিটে হিগুয়েনের শট বাঁচিয়ে দেন রেয়াল গোলকিপার নাভাস। সমতা ফেরানোর মরিয়া চেষ্টা করতে থাকে তারা। তবে প্রতি-আক্রমণে ম্যাচে ফেরার ইঙ্গিত দেয় রেয়ালও। ৩৫ মিনিটে মাদ্রিদের টনি ক্রুসের নেওয়া প্রায় ২০ গজের শট হার মানায় জুভেন্তাসের সেরা গোলকিপার বুফোকে। তবে পোস্টে লেগে তা প্রতিহত হয়। প্রথমার্ধে এগিয়ে থেকে শেষ করে রেয়াল।

cristiano ronaldo

দ্বিতীয়ার্ধে শুরু থেকেই আক্রমণ, প্রতি-আক্রমণে শুরু হয় খেলা। রোনাল্ডোর শট একটুর জন্য বাইরে। তবে ৫৪ মিনিটে ডাইবালাকে ফাউল করার জন্য হলুদ কার্ড দেখেন রেয়ালের অধিনায়ক রামোস। যার ফলে দ্বিতীয় লেগে অনিশ্চিত তিনি। আক্রমণ বাড়াতে থাকে রেয়াল। তার ফলও পেয়ে যায় তারা কিছুক্ষণের মধ্যে। ৬৪ মিনিটে ফের গোল রোনাল্ডোর। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ইতিহাসে স্মরণীয় থাকবে এই গোলটি। ব্যাকভলিতে করেন অবিশ্বাস্য এই গোল। যা গোলে ঢুকতে দেখা ছাড়া আর কোনো উপায় ছিল না জুভেন্তাস গোলকিপারের। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে গোল সংখ্যা দাঁড়াল ১১৯। এর পর ফের পিছিয়ে পড়ে জুভেন্তাস। ম্যাচে দ্বিতীয় বারের জন্য হলুদ কার্ড দেখে, লাল কার্ড তাদের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় ডাইবালার। কারভাজালের বিরুদ্ধে বল দখলের লড়াইয়ে বিপজ্জনক ভাবে বুকে পা তুলে দেওয়ায়। ম্যাচে ক্রমাগত আধিপত্য বাড়াতে থাকে রেয়াল। ৭২ মিনিটে জুভেন্তাস কফিনে শেষ পেরেকটি পুঁতে দেন, রেয়ালের অন্যতম কার্যকর খেলোয়াড় মার্সেলো।

আরও পড়ুন: জয়ের পাশাপাশি নতুন রেকর্ডের মালিক সিআর সেভেন

ম্যাচ শেষে রেয়াল কোচ জিদান জানান, “ইতালিতে এসে এই জয় ভালো লাগছে। দ্বিতীয় লেগে অনেকটা চাপমুক্ত শুরু করব আমরা। জয়ের ধারা অব্যাহত রাখতে চাই”।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন