কলকাতা: আশঙ্কাই সত্যি হল। বারাসতে টার্ফের মাঠে খেলে চার্চিলকে পাঁচ গোল দিলেও মিনি হাসপাতালে পরিণত হল মোহনবাগান। চোট পেলেন কিনোয়াকি, অরিজিত, সনি, ক্রোমা, ফৈয়াজ। ফৈয়াজের তেমন কিছু না হলেও ক্রোমা এবং সনির চোট লেগেছে পুরোনো চোটের জায়গায়। তাই চিন্তায় পড়়ে গেছে টিম ন্যানেজমেন্ট। ২৪ ঘণ্টা না গেলে এদের চোটের পরিস্থিতি বোঝা যাবে না।

তবে সবচেয়ে গুরুতর চোট জাপানি কিনোয়াকির। তাঁর কলার বোনের হাড় সরে গেছে। রবিবার রাতেই অস্ত্রোপচার হবে কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে। যা অবস্থা, তাতে তার মাঠে ফিরতে এক থেকে দেড় মাস সময় লাগবে। তবে মোহনবাগান তাঁকে ছাড়ার কথা ভাবছে না। জাপানির পারফরম্যান্সে দল খুশি। চোট সারিয়ে দলে ঢুকে ডার্বিতে আমনাকে আটকে চমকে দিয়েছিলেন ইয়ুটা। হয়তো ২১ জানুয়ারি ফিরতি ডার্বিতেই ফের মাঠে দেখা যাবে তাঁকে।

তবে সব মিলিয়ে বেশ চিন্তায় কোচ সঞ্জয় সেন। বলছিলেন, সামনে পরপর কয়েকটা গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ। কিন্তু বারাসতের মাঠে না খেলে উপায়ও নেই। তাই দলের গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়দের চোটের বিষয়টা ভাবাচ্ছে তাঁকে।

মোহনবাগানের পরবর্তী ম্যাচ লাজং-এর বিরুদ্ধে ১৪ ডিসেম্বর।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here