কলকাতা: চোট সারিয়ে আবার কি মোহনবাগানে ফিরবেন তিনি?  সেই প্রতিশ্রুতি থাকল তাঁর প্রেস বিবৃতিতে। বাগান সমর্থকদের আন্তরিক চাহিদাও সেরকমই। তবু সে সব পরের কথা। আপাতত সনি পর্বের শেষ হল গঙ্গাপারের ক্লাবে। এবং সেই শেষটা হল চোখের জলে।

এদিন বিকেলে ক্লাবতাঁবুতে তাঁর শেষ সাংবাদিক বৈঠকে সনি বললেন, তিনি হারতে ভালোবাসেন না। সবে উড়তে শুরু করা মোহনবাগানের সদ্য প্রাক্তন সতীর্থদের কাছ থেকেও সেই লড়াইটাই চাইছেন তিনি। সাংবাদিক সম্মেলনে বারবার চোখে জল বাজিগরের। তিনি মোহনবাগানকে আই লিগ দিয়েছেন, ফেডারেশন কাপ দিয়েছেন। কিন্তু বাগান জনতা তাঁকে দিয়েছে এক আকাশ ভালোবাসা। শেষ দিনেও সনির মুখোশ পরে ক্লাব তাঁবুতে হাজির অসংখ্য সমর্থক। রয়েছেন বয়ফ্রেন্ডের সঙ্গে আসা অষ্টাদশী থেকে আশি বছরের বৃদ্ধ। ক্লাবের শীর্ষকর্তারা তো ছিলেনই।

গোল করে বাজপাখির মতো সেই দৌড় আর দেখা যাবে না। মরশুমের মাঝপথে ফিরতে চাননি। কিন্তু পেশাদারিত্বের আগে তো কিছু নয়। তাই হাঁটুর অস্ত্রোপচার করতে ফিরতেই হল। কথা বলতে বলতে যতই গলা বুজে আসুক হাইতিয়ান তারকার। ফুটবল তো এরকমই। জীবনও।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here