suarez

বার্সেলোনা – ৫ (সুয়ারেজ হ্যাটট্রিক, কুতিনহো, ভিদাল)                    রেয়াল মাদ্রিদ – ১ (মার্সেলো)

ওয়েবডেস্ক: এগার বছর পর এল ক্যাসিকোয় থাকলেন না মেসি-রোনাল্ডো। তা নিয়ে কম কথা হয়নি। তবে মাঠে দেখা গেল ধাক্কাটা বার্সেলোনার থেকে অনেক বেশি লেগেছে রেয়ালের। হয়তো ম্যাচের আগে কোনো অন্ধ বার্সা সমর্থকও ভাবতে পারেনি এমনটা হতে চলেছে। ঘরের মাঠে রেয়ালকে পাঁচ গোল দিল কাতালান জায়েন্টরা। হ্যাটট্রিক করে মেসির অনুপস্থিতি বুঝতেই দিলেন না বার্সার ওপর তারকা সুয়ারেজ।

ম্যাচ পরিসংখ্যান নিয়ে কথা বলতে গেলে ঘরের মাঠে পজেশনাল ফুটবলে চাপ বাড়াতে থাকে বার্সেলোনা। প্রতি আক্রমণে বেঞ্জেমা, বেলকে আপফ্রন্টে রেখে আক্রমণে আসার চেষ্টা চালায় রেয়ালও। হাফ চান্স সুযোগ পেয়েছিলেন বেঞ্জেমা কিন্তু তাঁর শট বাইরে যায়। তবে বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি হোম টিমকে। ১১ মিনিটের মধ্যে ব্রাজিলিয়ান কুতিনহোর গোলে ম্যাচে লিড। সুযোগ পেয়েছিলেন আর্থারও, তবে তাঁর শট বাঁচান রেয়াল কিপার কুরতুইস। তবে ৩০ মিনিটের মাথায় সুয়ারেজকে ফাউল করায় পেনাল্টি পায় বার্সা। ভিএআরের সাহায্যে পেনাল্টির নির্দেশ দেন রেফারি। পেনাল্টি থেকে গোল করতে ভুল করেননি সুয়ারেজ। ফলে বিরতিতে দু’গোলের ব্যবধানে ড্রেসিংরুমে যায় বার্সা।

দ্বিতীয়ার্ধে অবশ্য শুরুটা দেখে মনে হয়নি ম্যাচ শেষের চিত্রটা এমন আকার নিতে চলেছে। কারণ প্রথম থেকেই আক্রমণে চাপ বাড়ায় ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নরা। পাঁচ মিনিটের মাথায় ব্যবধান কমান মার্সেলো। সুযোগ পেয়েছিলন র‍্যামোস। তবে তাঁর হেডার বাইরে যায়। প্রতি আক্রমণে ব্যবধান বাড়ানোর লক্ষে এগিয়ে আসার চেষ্টা চালায় বার্সেলোনা। যার ফল একটা স্পেলে বিপক্ষে পুরো উড়িয়ে দিল তারা। বারো মিনিটের মধ্যে তিন গোল। প্রথম দুটি গোল করে হ্যাটট্রিক সম্পূর্ণ করেন সুয়ারেজ। পঞ্চম তথা শেষ গোলটি করে রেয়ালের কফিনে শেষ পেরেকটি পোঁতেন পরিবর্ত ভিদাল।

ম্যাচ জিতে লিগ তালিকায় শীর্ষেই রইল বার্সেলোনা।

এদিন ইস্টবেঙ্গল মাঠে বসে জায়ান্ট স্ক্রিনে এল ক্ল্যাসিকো দেখলেন কলকাতার ফুটবলপ্রেমীরা। এই প্রথম।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here