উয়েফা ইউরো ২০২০: চিমটি কাটা শুরু, বেলা গড়ালে ফণা তুলে ছোবল!

0

অরুণাভ গুপ্ত

‘উয়েফা ইউরো ২০২০’ (UEFA EURO 2020), ডিউ স্লিপে লেখা ছিল ‘হোগা-হোগা’, কথার খেলাপ করেনি ইউরোপের ফুটবল সংস্থা। বাঁশি ফুঁকে খেলা চালু করে দিয়েছে। উয়েফা ইউরোপীয় ফুটবল প্রতিযোগিতা হুবহু বিশ্বকাপের সমতুল্য। তফাত- একটায় গোটা আর অন্যটায় অংশ। তবে অংশের দেশগুলি কিন্তু বিশ্বকাপ আসরে তাদের দাপুটে ফুটবল কলাকৌশলের ছটায় মানুষের মন জয় করে নিয়েছে। উয়েফার আয়ত্তাধীন ২৪ জাতীয় দল ইউরো সেরার সম্মান দেশে নেওয়ার জন্য ঝাঁপিয়ে পড়েছে। ওরা আরও বেশি চার্জড, যেহেতু ইউরো ৬০ বছরে পা দিল। গ্রুপ পর্ব শেষ হবে ২৪ জুন, তার পর এসপার-ওসপার, ১৬-র লড়াই ২৬-৩০। যেন চোখ-মন ভরপুর করে ফুটবল ভ্যাকসিন ঠেসে নেওয়ার এই মওকা।

Loading videos...

ফ্রান্সের দামামা

[জার্মানির বিরুদ্ধে জয় পেয়েছে ফ্রান্স]

এলেম, অ-এলেম যে যার মতো চিমটি কাটা শুরু করেছে, বেলা যত গড়াবে এ দেশ-ও দেশ বেশি বেশি ফণা তুলবে, ছোবল মারবে। ফ্রেঞ্চ স্পোর্টস ডেইলি L’ Equipe বাজার গরম করা খবর দিচ্ছে, যেমন ‘ফ্রান্স বাজিয়েছে দামামা, অন্য়ান্য দেশ আমাদের যত দেখছে ঈর্ষায় জ্বলছে’। অবশ্য ওদের হিংসে করার কারণ আছে। শুরুতেই ফ্রান্স নিজের ক্লাস প্রমাণ করেছে।

রোনাল্ডোর গোছানো সংসার

[ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো]

আবার সুপার-ডুপার স্টার ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো ৩৬ বছরে পৌঁছে একই রকম ঝকঝকে ক্ষুরধার। তা ছাড়া বলা যায়, এটা ওর শেষ ইউরো অভিযান, কেন না বয়েস একটা বিশাল ফ্যাক্টর, এক দম বাগ মানে না। তবে রোনাল্ড এ বার গোছানো সংসার পেয়েছেন। মানে পাঁচ বছর আগে যে টিম ছিল, তার চেয়ে কয়েকগুণ ভালো এ বারের টিম। পাশে পাচ্ছেন ছাঁকা ফুটবলার জোয়া ফেলিক্স, ব্রুনো ফার্নান্ডেজ, বার্নাডো সিলভা ও রুবেন ডায়াসদের।

খরা কাটবে ইংল্যান্ডের?

[ইংল্যান্ড স্কোয়াড]

ইংল্যান্ডের হ্যারি কেন যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী বলেই জোর দিয়ে বলেছেন, “ইংল্যান্ড তালিকায় উল্লেখযোগ্য জায়গায় রয়েছে। এটা একান্তই ব্যক্তিগত ধারণা। খেলোয়াড়দের অভিজ্ঞতা চোখে পড়ার মতোই বেড়েছে, হবে নাই-বা কেন, নিজেদের ক্লাবের হয়ে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ খেলছে, বিশ্বকাপ খেলছে, এ সবের একটা প্লাসপয়েন্ট থাকতেই হবে। সত্যি দীর্ঘসময় দেশে হিসেবে আমাদের কপালে কোনো টুর্নামেন্ট জেতার হিম্মত হয়নি। মনে বিশ্বাস এ বার খরা কাটবে”।

স্পেনের ১৭ স্ট্যান্ডবাই

[স্পেনের মুখ]

স্পেনের ডায়লগে খানিকটা হামবড়া ভাব। করোনার জন্যে উয়েফা সব দেশকে বলেছে, মনে করলে টিমে ২৬ জন খেলোয়াড় রাখতে পারো। এতে শর্ট পড়ার ভয় থাকবে না। স্প্যানিশ প্রধান দুলকি চালে উত্তর দিয়েছেন, “আমাদের স্কোয়াডে সমান ভাবে ১৭ স্ট্যান্ডবাই রাখা হয়েছে, টান পড়লে সব ঘাটতি বুঁজে যাবে”। জাঁক দেখানোর সঙ্গে সঙ্গে দু’জন কুপোকাত, এক জন ফরোয়ার্ড, অন্যটি মিডফিল্ডার, রিপোর্ট বলছে, দু’জনেই করোনা পজিটিভ।

ইউরোপের বুকের পাটা

[আলেকজান্ডার সেফেরিন]

উয়েফা প্রেসিডেন্ট আলেকজান্ডার সেফেরিন খোসমেজাজে আছেন বলে বলতে পেরেছেন- “ইউরো একেবারে নিরাপদ। সামান্য বুদ্ধি খাঁটালে পরিস্কার উত্তর মিলবে। সারা পৃথিবী যেখানে করোনা ভয়ে থরহরি কম্প, সেখানে ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের লড়াই চলছে, ভাবা যায়‍! আমি বুক ঠুকে ঘোষণা করছি, বিশ্বে এমন উদাহরণ খুঁজেও পাবেন না”। অবশ্য মাইকের সামনে বলার সুযোগ মিললে মিস্টার-মিসেস সব হরেগড়ে এক। ওঁর অভিমত হল, এর জন্য বুকের পাটা দরকার। খাঁচায় দম না থাকলে যে কোনো সময় হার্টফেল করার সম্ভাবনা অনেক বেশি। খুল্লমখুল্লা ঢ্যাড়া পিটেছেন, গোটা বিশ্বের দরবারে প্রমাণ করার এই হল সুবর্ণ সুযোগ যে।

ইউরোপ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় ইস্পাত কঠিন, ঝড়-ঝাপটা থাকবে জেনেও কুঁকড়ে থাকার বান্দা নয়, ইউরোপ বেঁচে আছে অফুরন্ত জীবনীশক্তি নিয়ে। জীবন যত কঠিন হোক না কেন, তা উপভোগ করার ক্ষমতা ধরে ইউরোপ, পেতেছে ক্রীড়া বিনোদনের সেরা আসর, ফিরেছে স্বমহিমায়!

উয়েফা ইউরো সংক্রান্ত খবর অনলাইনের অন্যান্য প্রতিবেদন পড়তে পারেন এখানে ক্লিক করে: উয়েফা ইউরো ২০২০

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.