কলকাতা: আগের ম্যাচে দল জিতেছে। কিন্তু সেটা ইনজুরি টাইমের গোলে। ক্লাবের খেলা নিয়ে বিক্ষোভ বাড়ছে সমর্থকদের মধ্যে। কিন্তু খালিদকে দায়িত্ব থেকে সরাতে চাইছেন না ইস্টবেঙ্গল কর্তারা। কারণ তাঁরা জানেন, যতদিন খালিদ আছেন, ততদিন খালিদকে দেখিয়ে নিজেদের পিঠ বাঁচাতে পারবেন।

এই অবস্থায় মঙ্গলবার দলের পারফরম্যান্স নিয়ে ক্লাব তাঁবুতে খালিদকে নিয়ে বৈঠকে বসেছিলেন লালহলুদ কর্তারা। ছিলেন নিতু সরকার, রজত গুহ, মনোরঞ্জন ভট্টাচার্যরা। সেই বৈঠকে একের পর এক প্রশ্নে জেরবার হয়ে যান খালিদ। কেন লোবোকে পুরো ম্যাচ খেলানো হচ্ছে না, গুরবিন্দর কেন দলে নেই-এমন সব প্রশ্নের জালে বিদ্ধ হয়ে খালিদ বলেন তাঁকে ছেড়ে দিতে। কিন্তু তাঁকে ছাড়লে লালহলুদ কর্তাদের চলবে না। এমন পরিস্থিতিতে রাত সাড়ে দশটা নাগান কাঁদতে কাঁদতে বৈঠক ছেড়ে বেরিয়ে যান মুম্বইকর কোচ। তারপর বুধবার সারাদিন অনুশীলনে আসেননি। তাঁর সঙ্গে যোগায়োগও করতে পারেননি ক্লাবকর্তারা। ফলে অনুশীলন হয়নি এদিনও। বৃহস্পতিবার বিকেলে অনুশীলন রাখা হয়েছে।

যদিও খালিদ যেমন নিজের পয়সায় সহকারী কোচ সিদ্দিকিকে অন্যান্য দলের খেলা দেখতে পাঠান, সেমনই চণ্ডীগরে গিয়ে মিনের্ভার ম্যাচ দেখেছেন সিদ্দিকি। যদিও তিনি চলে গেছিলেন মঙ্গলবারই।

ইস্টবেঙ্গল সূত্রের খবর, খালিদ দায়িত্ব ছেড়ে চলে যেতেই চান। কিন্তু ছেলেমেয়েদের কলকাতার স্কুলে ভর্তি করে দেওয়ায় মরশুম শেষ না করে যেতে পারছেন না। কিন্তু মঙ্গলবারের বৈঠকের পর পরিস্থিতি কোন দিকে যাবে, সেটা বলা মুশকিল।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন