mohun-Bagan

ওয়েবডেস্ক: আশঙ্কা ছিলই, বাস্তবে ঘটল তাই!

মঙ্গলবার ইস্টবেঙ্গল মাঠে মোহনবাগানের সঙ্গে আইলিগের অনূর্ধ্ব-১৮ ডার্বিতেও ব্যাপক মারামারির সাক্ষী থাকল কলকাতা ময়দান। এ দিন ম্যাচের ফলাফলে দেখা যায় মোহনবাগান জেতে ১ গোলে। তবে খেলার শুরু থেকেই ইস্টবেঙ্গল গ্যালারি থেকে অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ চলতে থাকে বলে অভিযোগ। এমনকী ইস্টবেঙ্গল সমর্থকদের মারে এক মোহন-সমর্থকের মাথা ফাটে এবং এক জনকে কামড়ে দেওয়ারও অভিযোগ ওঠে।

এ দিন মাঠে উপস্থিত ছিলেন ইস্টবেঙ্গলের প্রাক্তন ফুটবলার সঞ্জয় মাজি। তিনি পরিস্থিতি বেলাগাম দেখে উত্তেজিত ইস্টবেঙ্গল সমর্থকদের উদ্দেশে শান্ত হওয়ার আবেদন রাখেন। তাতেও বিন্দুমাত্র হেলদোল না দেখানোয় তিনি উত্তেজিত ইস্ট-সমর্থকদের বকাবকি করেন এবং একজনকে থাপ্পড় মারেন বলেও জানা যায়।

এর পরই আরও কয়েকগুণ ক্ষেপে যান ওই ইস্ট-সমর্থকরা। তাঁরা সঞ্জয়বাবুর পরিচয় সম্বন্ধে ওয়াকিবহাল না-হওয়ায় তাঁর উপরই চড়াও হন। সে সময় তাঁকে বাঁচাতে এগিয়ে আসেন বেশ কয়েকজন সাংবাদিক। সে সময় ওই উত্তেজিত সমর্থকরা সাংবাদিকদের হাতের নাগালে পেয়ে তাঁদের উপর আক্রমণ চালান।

এ ব্যাপারে ইস্টবেঙ্গলের অন্যতম শীর্ষকর্তা দেবব্রত সরকার জানান, এমন চুড়ান্ত বিশৃঙ্খল পরিস্থিতিকে মেনে নেওয়া হবে না। ক্লাব এ ব্যাপারে যাবতীয় বন্দোবস্ত নেবে। প্রয়োজনে আইএফএ-কে জানানো হবে। তাতে যদি ক্লাবের সদস্য সংখ্যা কমে যায়, ক্ষতি নেই। দরকার হলে শূন্য মাঠে খেলা হবে। কিন্তু এ ধরনের ঘটনাকে প্রশ্রয় দেওয়া হবে না।

আরও পড়ুন: ‘আমার ক্ষতি করতে উঠেপড়ে লেগেছে কিছু লোক,’ রমেশ পওয়ার, এদুলজির বিরুদ্ধে বোমা ফাটালেন মিতালি

উল্লেখ্য, আগের মোহনবাগান মাঠে আগের ডার্বিতেও ইস্টবেঙ্গল সমর্থকদের বিরুদ্ধে মারদাঙ্গার অভিযোগ ওঠে। যে কারণে মাঠের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে পর্যাপ্ত পুলিশি ব্যবস্থার কথা বলা হয়েছিল। কিন্তু পুলিশের তরফে সেই ধরনের কোনো বাড়তি ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলেও অভিযোগ উঠছে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here