একতার ভেল্কিতে পরাস্ত পাকিস্তান, সেমিফাইনালের পথে আরও এক ধাপ এগোল ভারত

0
347

ভারত ১৬৯-৯ (পুনম ৪৭, সুষমা ৩৩, নাশরা ৪-২৬)

পাকিস্তান ৭৪ (সানা মির ২৯ নাহিদা খান ২৩, একতা ৫-১৮)

ডার্বি (ইংল্যান্ড): ব্যাট চলেনি মানধানার, ব্যর্থ মিতালিও। স্কোরবোর্ডে বলার মতো রানও ওঠেনি। কিন্তু অবলীলায় পাকিস্তানকে হারিয়ে মহিলা বিশ্বকাপে ভারতের জয়যাত্রা বজায় থাকল।

স্কোরবোর্ডে এত অল্প রান তুলেও যে জেতা যায়, তা দেখিয়ে দিলেন ভারতের বোলাররা। বিশেষ করে বাঁ হাতি স্পিনার একতা বিস্ত। একাই তুললেন পাঁচটি উইকেট।

রবিবার টসে জিতে প্রথমে ব্যাটিং-এর সিদ্ধান্ত নেয় ভারত। কিন্তু প্রথম দু’টি ম্যাচের মতো ব্যাট চলেনি টিম ইন্ডিয়ার। মাত্র দু’রান করেই ফিরে যান মানধানা। তবে তৃতীয় উইকেটে পুনম রাউত এবং দীপ্তি শর্মার মধ্যে ভালো পার্টনারশিপ তৈরি হলেও পাকিস্তানি বোলারদের দাপটে রানের গতি বাড়াতেই পারেনি ভারত।

পুনম আউট হওয়ার পর ভারতের ব্যাটিং-এ ছোটোখাটো ধস নামে। এক দিকে পরপর উইকেট, অন্য দিকে রানের গতিও শ্লথ, সব মিলিয়ে টুর্নামেন্টে প্রথম বার মনে হচ্ছিল ম্যাচটি খোয়াচ্ছে ভারত। একটা সময় এমন হয়েছিল যখন ভারতের হাতে মাত্র আট ওভার, এবং রান রেট তিন পেরোয়নি। ঠিক তখনই ঝোড়ো একটা ইনিংস খেলেন উইকেটকিপার সুষমা বর্মা। তাঁর ওই ইনিংসের জন্যই ১৬৯ রানের ভদ্রস্থ রানে পৌঁছোয় ভারত।

দ্বিতীয় ইনিংসে একজনের নামই জ্বলজ্বল করছিল। একতা বিস্ত। ভারতের রান তাড়া করতে নেমে মাত্র সাত ওভারের মধ্যেই বিপক্ষের চারটে উইকেট চলে যায়। এর মধ্যে তিনটেই তোলেন একতা। ঝুলন নেন একটি। সেই যে পাকিস্তানের ব্যাটিং-এ ধস নামে, সেটা থেকে তারা আর বেরোতেই পারেনি। মাত্র ৭৪ রানে শেষ হয়ে যায় পাকিস্তান।

তিনটে ম্যাচের সবকটি জিতেই এখন দৌড়োচ্ছে মিতালিদের ঘোড়া। বাকি আর চারটে ম্যাচ, তাঁর মধ্যে দু’টি ম্যাচ তুলনামূলক দূর্বল দল দক্ষিণ আফ্রিকা এবং শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে। সুতরাং সেমিফাইনালের পথে মিতালিরা যে অনেকটা এগিয়ে গেলেন, সেটা এখনই বলে দেওয়া যায়।

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here