ভারত ১৫৪-৮ (হরমনপ্রীত ৫২, শেফালি ৪৮, জেস ৪-২২)

অস্ট্রেলিয়া ১৫৭-৭ (গার্ডনার ৫২ অপরাজিত, হ্যারিস ৩৭, রেণুকা ৪-১৮)

বার্মিংহ্যাম: পারল না ভারত। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে দুরন্ত লড়াই শেষমেশ পরাজিত হলেন হরমনপ্রীতরা। কমনওয়েলথ গেমসের প্রথম ম্যাচেই পরাজয় দিয়ে শুরু করল ভারত।

কমনওয়েলথ গেমসে এই প্রথম বার স্থান পেয়েছে মহিলাদের ক্রিকেট। প্রথম ম্যাচেই টি-২০ বিশ্বচ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হল ভারত। টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন অধিনায়ক হরমনপ্রীত কৌর। শুরুটা ভালোই করেছিলেন স্মৃতি মন্ধনা। একের পর এক বাউন্ডারি মেরে অজিদের ওপরে চাপ তৈরির চেষ্টা করে যাচ্ছিলেন। অন্যদিকে ধীরগতিতে খেলছিলেন শেফালি বর্মা।

তবে চতুর্থ ওভারে চাপে পড়ে ভারত। ১৭ বলে ২৪ রান করে আউট মন্ধানা। ভারত তখন ১ উইকেটে ২৫। এর পর যষ্ঠিকা ভাটিয়াকে সঙ্গে নিয়ে জুটি তৈরির চেষ্টা করেন শেফালি। রানের গতি বাড়াতে শুরু করেন কুড়িতে পা দেওয়ার আগেই প্রচুর অভিজ্ঞতা অর্জন করে নেওয়া শেফালি।

তবে ভাটিয়া বেশি কিছু করতে পারেননি। ৬৮ রানের মাথায় দ্বিতীয় উইকেট হারায় ভারত। ৮ রান করে রান আউট যষ্ঠিকা। একাদশ ওভারের শেষে শেফালির স্কোর পৌঁছে গিয়েছিল ৪৮ রানে। মনে করা হচ্ছিল একটা অর্ধশতরান করে ফেলবেন তিনি। কিন্তু হল না। পঞ্চাশ থেকে ২ রান দূরেই থেমে যায় তাঁর ইনিংস।

হরমনপ্রীত অবশ্য রানের গতি বাড়াতে থাকেন। উলটো দিক থেকে জেমিমা রদরিগেজ এবং দীপ্তি শর্মা তাঁকে কিছুটা সংগত করেন। ইনিংসের একদম শেষ ওভারে পৌঁছে অর্ধশতরান করেন অধিনায়ক হরমন। মাত্র ৩১টা বলে পঞ্চাশ পূর্ণ করেন তিনি। ভারতের স্কোরও দেড়শো পেরিয়ে যায়। তবে এর পরেই অধিনায়ক আউট হয়ে যাওয়ায় ১৬০-এর গণ্ডি পেরোতে পারেনি ভারত।

১৫৫ রানের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে ব্যাট করতে নেমে প্রথম থেকেই চাপে পড়ে যায় অস্ট্রেলিয়া। বল হাতে আগুন ঝরাতে শুরু করেন রেণুকা ঠাকুর। প্রথমেই শূন্য করে আউট হয়ে যান এলিজা হিলি। এর পর ৮ রান করে মেগ ল্যানিং যখন আউট হন, ততক্ষণে অজিদের স্কোর দুই উইকেটে ২০ হয়ে গিয়েছে।

কিছুক্ষণের মধ্যে ফিরে যান বেথ মুনি। পরক্ষনেই আউট হন ম্যাকগ্রা। চারটে উইকেটই নেন রেণুকা। এর পর দীপ্তি যখন র‍্যাচেলকে ফিরিয়ে দেন, তখন অস্ট্রেলিয়ার স্কোর পঞ্চাশও পেরোয়নি।

ভারত তখন উৎফুল্ল। অস্ট্রেলিয়া কার্যত বাগে এসে গিয়েছে। আন্দাজও করতে পারেনি যে হ্যারিস বলে একজন অপেক্ষা করতে ভারতীয় আক্রমণের সামনে। হ্যারিস প্রথম থেকেই চূড়ান্ত আগ্রাসী ঢঙে ব্যাট করতে শুরু করেন। তাঁর একের পর এক চার ছয়ের জেরে দিশেহারা হয়ে যায় ভারত।

তবে হ্যারিসের তাণ্ডব বেশিক্ষণ চলেনি। দলের স্কোর একশো পেরোতেই ফের ধাক্কায় খায় অস্ট্রেলিয়া। এ বার ৩৭ রান করে হ্যারিস আউট হয়ে যান মেঘনার বলে। কিছুক্ষণের মধ্যে সপ্তম উইকেটও হারায় তারা। যদিও হ্যারিসের ধাক্কা আর কাটিয়ে উঠতে পারেনি ভারত। অ্যাসলে গার্ডনার অর্ধশতরান করে অস্ট্রেলিয়ার জয়ের বৈতরণী পার করিয়ে দেন।

হকিতে ঘানাকে ওড়াল ভারত

ক্রিকেটে যখন হতাশা, তখন হকিতে প্রথম ম্যাচে দুরন্ত জয় পেল ভারতের মেয়েরা। এ দিন, ঘানার বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচে ৫ গোলে পেলেন গত বছরের অলিম্পিকে দুর্দান্ত পারফর্ম করা ভারতের মেয়েরা।

এ দিন খেলার ফল ভারতের পক্ষে ৫-০। ম্যাচের শুরুতেই গোল করে ভারতকে এগিয়ে দেন গুরজিত কৌর। এর পর অনেকক্ষণ কোনো গোল না হলেও হাফটাইমের ঠিক আগেই পেনাল্টি কর্নার থেকে গোল করে ভারতকে এগিয়ে দেন নেহা। এর পরে ছিল গোলের বন্যা।

এর পর সঙ্গিতা, গুরজিত এবং সালিমা তেতের গোলে ৫ গোল করে দেয় ভারত।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন