জাদেজা জাদুতে চেন্নাইয়ের কাছে কলকাতা কাত, হর্শল-ম্যাক্সওয়েলে ভর করে মুম্বইকে সহজেই হারাল বেঙ্গালুরু

0
হ্যাটট্রিক-সহ ৪ উইকেট পেলেন বেঙ্গালুরুর হর্শল পটেল।

কলকাতা: ১৭১-৬ (রাহুল ত্রিপাঠী ৪৫, নীতীশ রানা ৩৭ নট আউট, শার্দুল ঠাকুর ২-২০), চেন্নাই: ১৭২-৮ (২০ ওভারে) (দুপ্লাসি ৪৩, গায়কোয়াড় ৪০, নারিন ৩-৪১)  

বেঙ্গালুরু: ১৬৫-৬ (ম্যাক্সওয়েল ৫৬, কোহলি ৫১, বুমরাহ ৩-৩৬), মুম্বই: ১১১ (১৮.১ ওভারে) (রোহিত ৪৩, ডি কক ২৪, হর্শল পটেল ৪-১৭)

চেন্নাই-কলকাতা ম্যাচের নিষ্পত্তি হল একেবারে শেষ বলে। কলকাতাকে মাত্র ২ উইকেটে হারিয়ে আইপিএল টেবিলে নিজেদের শীর্ষ স্থানটি আরও সুরক্ষিত করল চেন্নাই। কলকাতা থাকল চতুর্থ স্থানে।  

রবীন্দ্র জাদেজা ব্যাটে জাদু না দেখালে এই ম্যাচ কলকাতা নাইট রাইডার্সের (কেকেআর) পকেটে সহজেই চলে যেত। তাঁর ৮ বলে ২২ রানের দৌলতেই শেষ বলে জয় পেল চেন্নাই সুপার কিংস (সিএসকে)।  

Shyamsundar

ও দিকে আইপিএলের ১৪তম সংস্করণের দ্বিতীয় ভাগে শেষ পর্যন্ত জয়ে ফিরল বেঙ্গালুরু। দুবাইয়ে অনুষ্ঠিত প্রথম দু’টি ম্যাচে পরাজয়ের পর রবিবার তৃতীয় ম্যাচে বিরাটবাহিনী মুম্বইকে হারাল ৫৪ রানে।

বেঙ্গালুরুর এই জয়ের পিছনে দু’ জনের অবদান অনস্বীকার্য। এক জন হর্শল পটেল – হ্যাটট্রিক-সহ ৪ উইকেট নিলেন মাত্র ১৭ রানে। আর দ্বিতীয় জন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল – ব্যাটে করলেন ৫৬ রান, আর নিলেন রোহিত শর্মা ও ক্রুনাল পাণ্ড্যর মতো দুটো গুরুত্বপূর্ণ উইকেট।   

এ দিনের জয়ের পর আইপিএল টেবিলে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু (আরসিবি) উঠে এল তিন নম্বর স্থানে। আর পর পর তিন ম্যাচ হেরে মুম্বই ইন্ডিয়ান্স (এমআই) রইল ষষ্ঠ স্থানে।

কেকেআর-সিএসকে ম্যাচ

আবু ধাবির  শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচে টসে জিতে ব্যাটিং নেয় কেকেআর। শুরুতেই শুভমন গিল প্যাভেলিয়নে চলে গেলেও বেঙ্কটেশ আইয়ারের সঙ্গে জুটি বেঁধে রাহুল ত্রিপাঠী উইকেট পতন কিছুটা আটকান। পরবর্তী কালে নীতীশ রানা এবং কিছুটা দীনেশ কার্তিকের ব্যাটিংয়ের দৌলতে কেকেআর পৌঁছে বেশ ভদ্রস্থ স্কোরে। নির্ধারিত ২০ ওভারে তারা তোলে ৬ উইকেটে ১৭১ রান।

১৭২ রান তাড়া করে জয় পকেটে পুরতে ভালোই শুরু করে সিএসকে। ঋতুরাজ গায়কোয়াড় ও ফাফ দুপ্লাসির ওপেনিং জুটি দলকে পৌঁছে দেয় বিনা উইকেটে ৭৪ রানে। দলের ৭৪ রানে ঋতুরাজ এবং ১০২ রানে দুপ্লাসি আউট হয়ে যাওয়ার পরেই নিয়মিত ব্যবধানে সিএসকে-র উইকেট পড়তে থাকে। কিন্তু এরই মধ্যে আসল কাজটা করে যান রবীন্দ্র জাদেজা। ৮ বলে ২২ রান করে তিনি যখন আউট হন তখন সিএসকে-র রান কেকেআরের সমান। বাকি শেষ বল। দীপক চহর শেষ বলে ১ রান নিয়ে দলের জন্য জয় এনে দেন।

আরসিবি-এমআই ম্যাচ

মুম্বই টসে জিতে বেঙ্গালুরুকে ব্যাট করতে পাঠায়। শূন্য রানে ফিরে গেলেন বেঙ্গালুরুর অন্যতম ওপেনার দেবদত্ত পড়িক্কল। দলের রান তখন ৭ রান। তার পর শ্রীকর ভরতকে সঙ্গী করে অধিনায়ক বিরাট কোহলি দলকে এগিয়ে নিয়ে যেতে থাকেন। দলের ৭৫ রানে ভরত (২৪ বলে ৩২ রান) ফিরে গেলে ম্যাক্সওয়েলকে যোগ্য সঙ্গী পান কোহলি। দু’ জনে মিলে দলের ভিত শক্ত করতে থাকেন। কিন্তু দলের ১২৬ রানে ফিরে যান কোহলি (৪২ বলে ৫১ রান)। ম্যাক্সওয়েলের সঙ্গী হন এবি ডেভিলিয়ার্স। ম্যাক্সওয়েলের বিধ্বংসী ব্যাটের (৩৭ বলে ৫৬ রান) সৌজন্যে বেঙ্গালুরু পৌঁছোয় ১৬৫ রানে, হারায় ৬টি উইকেট।

জয়ের লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছোতে শুরুটা মন্দ করেনি রোহিতের দল। দুই ওপেনার রোহিত ও কুইন্টন ডি কক দলকে নিয়ে যান ৫৭ রান পর্যন্ত। তার পর ৫৭ রানে ডি কক এবং ৭৯ রানে রোহিত শর্মা বিদায় নেওয়ার পর তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে মুম্বই। এর মধ্যে হর্শল পটেল সপ্তদশ ওভারের প্রথম তিনটি বলে একে একে তুলে নেন হার্দিক পাণ্ড্য, কায়রন পোলার্ড ও রাহুল চহরকে। অ্যাডাম মিলনের শেষ উইকেটও পটেলের পকেটে যায়। মুম্বই গুঁড়িয়ে যায় ১১১ রানে।

আরও পড়তে পারেন

পঞ্জাবের কাছে ৫ রানে হেরে প্রথম ৯টা ম্যাচের মধ্যে ৮টাতেই পরাজিত হায়দরাবাদ

বেঙ্গালুরুর বিরুদ্ধে চেন্নাইকে জয় এনে দিল রায়না-ধোনি জুটি

রাহুল ত্রিপাঠী, বেঙ্কটেশ আইয়ারের বিধ্বংসী ব্যাটিং, মুম্বইকে গুঁড়িয়ে চতুর্থ স্থানে উঠে এল কেকেআর

হায়দরাবাদকে সহজে হারিয়ে লিগ টেবিলের শীর্ষ স্থানে উঠল দিল্লি

গ্যালারিতে রয়েছেন মহিলারা, তাই আফগানিস্তানে আইপিএলের সম্প্রচার বন্ধ করে দিল তালিবান

      

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন