Connect with us

আইপিএল

২৪৫, আইপিএলে কত নম্বরে কেকেআরের ইনিংস?

ওয়েবডেস্ক: আইপিএলে রানের ঝড় কেকেআরের। পঞ্জাবের বিরুদ্ধে ব্যাট করতে নেমে ২৪৫/৬ শেষ করে তারা। সৌজন্যে নারিনের ৭৫ রানের ঝোড়ো ইনিংস। সঙ্গে আইপিএলে অধিনায়ক দীনেশ কার্তিকের প্রথম অর্ধশতক। বাকিটা আন্দ্রে রাসেলের চওড়া ব্যাটিং। যার ফলে চলতি আইপিএল এবং লিগের ইতিহাসে সর্বোচ্চ রান কেকেআরের। আইপিএলের ইতিহাসে এটি চতুর্থ সর্বোচ্চ রান। দেখে নিন সর্বোচ্চ রানের তালিকা: ১। ২৬৩/৫ […]

Published

on

ওয়েবডেস্ক: আইপিএলে রানের ঝড় কেকেআরের। পঞ্জাবের বিরুদ্ধে ব্যাট করতে নেমে ২৪৫/৬ শেষ করে তারা। সৌজন্যে নারিনের ৭৫ রানের ঝোড়ো ইনিংস। সঙ্গে আইপিএলে অধিনায়ক দীনেশ কার্তিকের প্রথম অর্ধশতক। বাকিটা আন্দ্রে রাসেলের চওড়া ব্যাটিং। যার ফলে চলতি আইপিএল এবং লিগের ইতিহাসে সর্বোচ্চ রান কেকেআরের।

আইপিএলের ইতিহাসে এটি চতুর্থ সর্বোচ্চ রান। দেখে নিন সর্বোচ্চ রানের তালিকা:

১। ২৬৩/৫ রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু, পুনে ওয়ারিওরসের বিরুদ্ধে (২০১৩)

২। ২৪৮/৩ রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু, গুজরাত লাওন্সের বিরুদ্ধে (২০১৬)

৩। ২৪৬/৫ চেন্নাই সুপার কিংস, রাজস্থান রয়্যালসের বিরুদ্ধে (২০১০)

৪। ২৪৫/৬ কলকাতা নাইট রাইডার্স, কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের বিরুদ্ধে (২০১৮)

৫। ২৪০/৫ চেন্নাই সুপার কিংস, কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের বিরুদ্ধে (২০০৮)

৬। ২৩৫/১  রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু, মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে (২০১৫) 

 

আইপিএল

সুপার ওভারে পঞ্জাবকে হারিয়ে জয় ছিনিয়ে নিল দিল্লি

টাই ভাঙার খেলায় প্রথমে ব্যাট করে ১ ওভারে মাত্র ২ রান তোলে পঞ্জাব। দিল্লি জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় ৩ রান তুলে নেয় ৩ বলে।

Published

on

রাবাদা ও স্টয়নিস। জয়ের হাসি।

দিল্লি ক্যাপিটলস্‌: ১৫৭-৮ (মার্কাস স্টয়নিস ৫৩, শ্রেয়স আইয়ার ৩৯, শামি ৩-১৫, কটরেল ২-২৪) ও ৩ (৩ বলে)

কিংস ইলেভেন পঞ্জাব: ১৫৭-৮ (ময়াঙ্ক আগরওয়াল ৮৯, রাবাদা ২-২৮, স্টয়নিস ২-২৯) ও ২ (১ ওভারে)

খবর অনলাইন ডেস্ক: এই মরশুমের আইপিএল-এর দ্বিতীয় ম্যাচ গড়াল সুপার ওভারে। টাই ভাঙার খেলায় প্রথমে ব্যাট করে ১ ওভারে মাত্র ২ রান তোলে পঞ্জাব। দিল্লি জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় ৩ রান তুলে নেয় ৩ বলে।

দিল্লির দেওয়া টার্গেট তাড়া করতে গিয়ে গোড়াপত্তনটা খারাপ করেনি পঞ্জাব। চার ওভারে তাদের রান ওঠে বিনা উইকেটে ২৮। দলের ৩০ রানের মাথায় অধিনায়ক কে এল রাহুল বিদায় নিতেই বিপর্যয়ের সূত্রপাত। রাহুল মোহিত শর্মার বলে বোল্ড হন। তাঁর সংগ্রহ ১৯ বলে ২১ রান।

একের পর এক উইকেট পড়তে থাকে। ৫৫ রানের মধ্যে চলে যায় ৫ উইকেট। কিন্তু এক দিকে অবিচল থাকেন ময়াঙ্ক আগরওয়াল। তবে ৫ উইকেট চলে যাওয়ার পর ময়াঙ্কের সঙ্গে ম্যাচের রাশ কিছুটা ধরেন কৃষ্ণাপ্পা গৌতম। ২০ রান করে কৃষ্ণাপ্পা যখন আউট হন তখন দলের স্কোর ৬ উইকেটে ১০১ রান। দলের হাতে তখন ২৭ বল।

ময়াঙ্কের সঙ্গী হন জর্ডন। কিন্তু বিধ্বংসী মেজাজে ব্যাট করে দলকে ক্রমশ জয়ের দোরগোড়ায় নিয়ে যেতে থাকেন ময়াঙ্ক। শেষ পর্যন্ত নিজস্ব ৮৯ রানে ময়াঙ্ক যখন স্টয়নিসের বলে হেটমেয়ারকে ক্যাচ দেন তখন দিল্লির স্কোরের সমান পঞ্জাব।

কিন্তু একটি বল তখনও বাকি ছিল। সেটি কাজে লাগাতে ব্যর্থ হল পঞ্জাব। স্টয়নিস তাঁর শেষ ওভারের শেষ বলে জর্ডনকে তুলে নিয়ে দিল্লির জন্য আশা জিইয়ে রাখলেন।

এর আগে কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের অধিনায়ক কে এল রাহুল টসে জিতে দিল্লি ক্যাপিটলস্‌-কে ব্যাট করতে পাঠান। এবং রাহুলের চাল কাজে দেয় বলাই বাহুল্য। দিল্লির ইনিংসের শুরুতেই ঝটকা।

দিল্লির হয়ে ওপেন করতে নামেব পৃথ্বী শ এবং শিখর ধাওয়ান। মোটামুটি ধীরেসুস্থে শুরু করেন পৃথ্বী। শেলডন কটরেলকে চতুর্থ বলে সীমানার বাইরে পাঠিয়ে এবং পরের বলে ১ রান করে প্রথম ওভারে ৫ রান সংগ্রহ করেন পৃথ্বী। পরের ওভার করতে আসেন বাংলার মহম্মদ শামি। সেই ওভারের চতুর্থ বলেই আঘাত। রান আউট হয়ে যান শিখর। ব্যাট করতে নামেন সিমরন হেটমেয়ার।

দিল্লির প্রথম উইকেট পতনের ক্ষেত্রে শামির পরোক্ষ কৃতিত্ব থাকলেও, দলের চতুর্থ ওভারে এবং নিজের দ্বিতীয় ওভারে বড়ো রকমের আঘাত হানেন মহম্মদ শামি। চতুর্থ ওভারের তৃতীয় বলে আউট হন পৃথ্বী। তাঁর মিস টাইম শট সরাসরি চলে যায় মিড উইকেটে জর্ডনের হাতে। ওই ওভারের শেষ বলে আবার আঘাত। এ বার হেটমেয়ার শর্ট এক্সট্রা কভারে ময়াঙ্ক আগরওয়ালের হাতে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন।

প্রাথমিক ঝটকা কাটিয়ে কিছুটা থিতু হয় দিল্লির ব্যাটিং শ্রেয়স আইয়ার ও ঋষভ পন্থের হাত ধরে। দলকে তাঁরা টেনে নিয়ে যান চতুর্দশ ওভারের শেষ পর্যন্ত। কিন্তু ওই ওভারেরই শেষ বলে ঋষভ পন্থকে তুলে নেন রবি বিশ্নই। আর পরের ওভারেই আবার আঘাত। এবং আঘাত এল সেই শামির হাত ধরে। আউট হলেন শ্রেয়স আইয়ার। ১৫ ওভারের শেষে দিল্লির রান ৫ উইকেটে ৯৩। বেশ গাড্ডায় পড়ে যায় দিল্লি।

খবরঅনলাইনে আরও পড়তে পারেন

বদলে যাওয়া আইপিএলের শুরুতেই ‘বদলা’, জয়যাত্রা শুরু ধোনিবাহিনীর

Continue Reading

আইপিএল

পঞ্জাবকে ১৫৮ রানের টার্গেট দিল দিল্লি

পঞ্জাবের অধিনায়ক কে এল রাহুল টসে জিতে দিল্লি ক্যাপিটলস্‌-কে ব্যাট করতে পাঠান।

Published

on

Md. Shami
নতুন বলে সাফল্য পেলেন মহম্মদ শামি। ছবি সৌজন্যে ইএসপিএনক্রিকইনফো।

দিল্লি ক্যাপিটলস্‌: ১৫৭-৮ (মার্কাস স্টয়নিস ৫৩, শ্রেয়স আইয়ার ৩৯, শামি ৩-১৫, কটরেল ২-২৪)

খবর অনলাইন ডেস্ক: আইপিএল-এর দ্বিতীয় ম্যাচে কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের অধিনায়ক কে এল রাহুল টসে জিতে দিল্লি ক্যাপিটলস্‌-কে ব্যাট করতে পাঠালেন। এবং রাহুলের চাল কাজে দেয় বলাই বাহুল্য। দিল্লির ইনিংসের শুরুতেই ঝটকা।

দিল্লির হয়ে ওপেন করতে নামেব পৃথ্বী শ এবং শিখর ধাওয়ান। মোটামুটি ধীরেসুস্থে শুরু করেন পৃথ্বী। শেলডন কটরেলকে চতুর্থ বলে সীমানার বাইরে পাঠিয়ে এবং পরের বলে ১ রান করে প্রথম ওভারে ৫ রান সংগ্রহ করেন পৃথ্বী। পরের ওভার করতে আসেন বাংলার মহম্মদ শামি। সেই ওভারের চতুর্থ বলেই আঘাত। রান আউট হয়ে যান শিখর। ব্যাট করতে নামেন সিমরন হেটমেয়ার।

দিল্লির প্রথম উইকেট পতনের ক্ষেত্রে শামির পরোক্ষ কৃতিত্ব থাকলেও, দলের চতুর্থ ওভারে এবং নিজের দ্বিতীয় ওভারে বড়ো রকমের আঘাত হানেন মহম্মদ শামি। চতুর্থ ওভারের তৃতীয় বলে আউট হন পৃথ্বী। তাঁর মিস টাইম শট সরাসরি চলে যায় মিড উইকেটে জর্ডনের হাতে। ওই ওভারের শেষ বলে আবার আঘাত। এ বার হেটমেয়ার শর্ট এক্সট্রা কভারে ময়াঙ্ক আগরওয়ালের হাতে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন।

প্রাথমিক ঝটকা কাটিয়ে কিছুটা থিতু হয় দিল্লির ব্যাটিং শ্রেয়স আইয়ার ও ঋষভ পন্থের হাত ধরে। দলকে তাঁরা টেনে নিয়ে যান চতুর্দশ ওভারের শেষ পর্যন্ত। কিন্তু ওই ওভারেরই শেষ বলে ঋষভ পন্থকে তুলে নেন রবি বিশ্নই। আর পরের ওভারেই আবার আঘাত। এবং আঘাত এল সেই শামির হাত ধরে। আউট হলেন শ্রেয়স আইয়ার। ১৫ ওভারের শেষে দিল্লির রান ৫ উইকেটে ৯৩। বেশ গাড্ডায় পড়ে যায় দিল্লি।

কিন্তু শেষ পর্যন্ত যে এমন কাণ্ড ঘটবে তা স্বপ্নেও ভাবেননি দিল্লির সমর্থকরা। ব্যাট হাতে পঞ্জাবের বোলারদের সংহার করতে নামলেন মার্কাস স্টয়নিস। তাঁর বিধ্বংসী ২১ বলে ৫৩ রানের সুবাদে দিল্লি ২০ ওভারে পৌঁছে গেল ১৫৭-য়। মাত্র ১৫ রানে ৩ উইকেট তুলে নিয়ে নিজের ক্ষমতার আরও এক বার প্রমাণ রাখলেন মহম্মদ শামি।

Continue Reading

আইপিএল

ফিরে দেখা আইপিএল: অল্পের জন্য শতরান হাতছাড়া করলেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়

ম্যাচে দুটি উইকেট এবং দুটি ক্যাচও নেন সৌরভ।

Published

on

sourav ganguly
৫৭ বলে ৯১ রান করে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়।

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সময় ছিল ওঢেল, গুনে গুণে বারোটা বল, আর দরকার ছিল মাত্র ৯ রান। তা হলেই টি২০ কেরিয়ারে শতরানটা করে ফেলতে পারতেন তিনি। কিন্তু তখন ব্যক্তিগত স্বার্থ না দেখে দলের স্বার্থ দেখতে গিয়ে বাউন্ডারি লাইনে ধরা পড়লেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। ৯১ রানে শেষ হল তাঁর অনবদ্য একটা ইনিংস।

প্রথম আইপিএলের কথা। বর্তমান বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ তখন কলকাতা নাইটরাইডার্সের অধিনায়ক। ম্যাচটি ছিল হায়দরাবাদে, ডেকান চার্জার্সের বিরুদ্ধে। টুর্নামেন্টে তখনও পর্যন্ত সাতটা ম্যাচ খেলে কেকেআর চারটে হেরেছে আর তিনটে জিতেছে। অর্থাৎ গ্রুপ টেবিলে বেশ চাপেই রয়েছে তারা। বিশেষ রান নেই সৌরভের ব্যাটেও।

তবে এই ম্যাচের ঠিক আগের ম্যাচেই বোলিংয়ের কারণে ম্যান অব দ্য ম্যাচ হয়ে গিয়েছিলেন সৌরভ। আর সেটাই সম্ভবত এই ম্যাচে তাঁকে বাড়তি কনফিডেন্স দেয়।

তিন নম্বর ব্যাট করতে নেমেছিলেন সৌরভ। টুর্নামেন্টে তখনও পর্যন্ত ফর্মে না থাকা অধিনায়ক ওই ম্যাচের প্রথম থেকেই ফর্মে ফেরার ইঙ্গিত দিচ্ছিলেন। হ্যান্ড-আই কোঅর্ডিনেশন বেশ ভালো হচ্ছিল। জায়গা খুঁজে পেতে মাঝেমধ্যেই চালাচ্ছিলেন বাউন্ডারির বাইরে।

১৩ ওভার পর্যন্ত কেকেআরের ইনিংসেr এক রকম হাল ছিল। পরের সাত ওভারে হল তাণ্ডব। আর সেই তাণ্ডবের শুরুটা সৌরভই করেছিলেন। বাঁ হাতি স্পিনারের কাছে যম সৌরভ টার্গেট করেছিলেন প্রজ্ঞান ওঝাকে। ততক্ষণ অর্ধশতরান পেরিয়ে গিয়েছেন সৌরভ।

১৪তম ওভারে ওঝার বলে পর পর দু’বার ‘বাপি বাড়ি যা’ করেন সৌরভ। ওভারের শেষ বলে মারেন আরও একটি চার। সেখান থেকে সেই যে কেকেআরের প্লেন উড়ল, ল্যান্ড করল এক্কেবারে দুশো পার করে।

সৌরভকে যোগ্য সংগত দেন ডেভিড হাসি। আট ওভারে দু’ জনের মধ্যে ১০২ রানের জুটি তৈরি হয়। কিন্তু তাল কেটে যায় ১৯তম ওভারের প্রথম বলে। পি বিজয়কুমারের বলে পুল শটে ছয় মারতে গিয়ে বাউন্ডারি লাইনের ধারেই ধরা পড়ে যান সৌরভ। ৯১-এ শেষ হয় তাঁর ইনিংস।

সৌরভের ৫৭ বলের এই ইনিংস সাজানো ছিল ১১টি আর ৫টি ছয়ে। তিনি আউট হলেও দাপটে ছিলেন হাসি। ২৯ বলে ৫৭ রানে অপরাজিত থেকে যান তিনি। এই দু’জনের দৌলতে কেকেআর নির্ধারিত কুড়ি ওভারে তোলে ২০৪ রান।

টুর্নামেন্টে একদমই ফর্মে ছিল না ডেকান চার্জার্স। এর আগে আটটি ম্যাচ খেলে ছ’টিতেই হেরেছিল অ্যাডাম গিলক্রিস্টের দল। সেই তালিকায় আরও একটি ম্যাচ যোগ হল। ২৩ রানে ম্যাচটি জিতে নেয় কেকেআর। ব্যাটিংয়ের পর হাত ঘুরিয়েও দু’টি উইকেট তোলেন সৌরভ। এ ছাড়া, গিলক্রিস্ট আর রোহিত শর্মার ক্যাচও নেন তিনি।

খবরঅনলাইনে আরও পড়তে পারেন

বুড়ো বয়সে ভেলকি! জন্টি রোডসের এই ক্যাচটা দেখলে সোনালি দিনগুলোর কথা মনে পড়বেই

Continue Reading
Advertisement

কেনাকাটা

কেনাকাটা2 days ago

নতুন কালেকশনের ১০টি জুতো, ১৯৯ টাকা থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক : পুজো এসে গিয়েছে। কেনাকাটি করে ফেলার এটিই সঠিক সময়। সে জামা হোক বা জুতো। তাই দেরি...

কেনাকাটা3 days ago

পুজো কালেকশনে ৬০০ থেকে ১০০০ টাকার মধ্যে চোখ ধাঁধানো ১০টি শাড়ি

খবর অনলাইন ডেস্ক: পুজোর কালেকশনের নতুন ধরনের কিছু শাড়ি যদি নাগালের মধ্যে পাওয়া যায় তা হলে মন্দ হয় না। তাও...

কেনাকাটা5 days ago

মহিলাদের পোশাকের পুজোর ১০টি কালেকশন, দাম ৮০০ টাকার মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : পুজো তো এসে গেল। অন্যান্য বছরের মতো না হলেও পুজো তো পুজোই। তাই কিছু হলেও তো নতুন...

কেনাকাটা1 week ago

সংসারের খুঁটিনাটি সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে এই জিনিসগুলির তুলনা নেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিজের ও ঘরের প্রয়োজনে এমন অনেক কিছুই থাকে যেগুলি না থাকলে প্রতি দিনের জীবনে বেশ কিছু সমস্যার...

কেনাকাটা2 weeks ago

ঘরের জায়গা বাঁচাতে চান? এই জিনিসগুলি খুবই কাজে লাগবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : ঘরের মধ্যে অল্প জায়গায় সব জিনিস অগোছালো হয়ে থাকে। এই নিয়ে বারে বারেই নিজেদের মধ্যে ঝগড়া লেগে...

কেনাকাটা2 weeks ago

রান্নাঘরের জনপ্রিয় কয়েকটি জরুরি সামগ্রী, আপনার কাছেও আছে তো?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরের এমন কিছু সামগ্রী আছে যেগুলি থাকলে কাজ করাও যেমন সহজ হয়ে যায়, তেমন সময়ও অনেক কম খরচ...

কেনাকাটা3 weeks ago

ওজন কমাতে ও রোগ প্রতিরোধশক্তি বাড়াতে গ্রিন টি

খবরঅনলাইন ডেস্ক : ওজন কমাতে, ত্বকের জেল্লা বাড়াতে ও করোনা আবহে যেটি সব থেকে বেশি দরকার সেই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা...

কেনাকাটা3 weeks ago

ইউটিউব চ্যানেল করবেন? এই ৮টি সামগ্রী খুবই কাজের

বহু মানুষকে স্বাবলম্বী করতে ইউটিউব খুব বড়ো একটি প্ল্যাটফর্ম।

কেনাকাটা4 weeks ago

ঘর সাজানোর ও ব্যবহারের জন্য সেরামিকের ১৯টি দারুণ আইটেম, দাম সাধ্যের মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঘর সাজাতে কার না ভালো লাগে। কিন্তু তার জন্য বাড়ির বাইরে বেরিয়ে এ দোকান সে দোকান ঘুরে উপযুক্ত...

কেনাকাটা1 month ago

শোওয়ার ঘরকে আরও আরামদায়ক করবে এই ৮টি সামগ্রী

খবর অনলাইন ডেস্ক : সারা দিনের কাজের পরে ঘুমের জায়গাটা পরিপাটি হলে সকল ক্লান্তি দূর হয়ে যায়। সুন্দর মনোরম পরিবেশে...

নজরে