jalpaiguri club
জলপাইগুড়ি ক্লাব। নিজস্ব চিত্র

নিজস্ব সংবাদদাতা, জলপাইগুড়ি: জলপাইগুড়িতে এক সময় লন টেনিস খেলা হত। এখন অবশ্য খেলা হয় না। আগে তিনটি জায়গায় লন টেনিস খেলা হলেও বর্তমানে দু’টি জায়গায় টেনিস কোর্টের কোনো অস্তিত্ব নেই। অন্য একটি জায়গায় দু’টি খুঁটি জানান দিচ্ছে যে এক সময় এখানে টেনিসকোর্ট ছিল। যদিও একটি ক্লাবের কর্তারা টেনিস চালু করার চেষ্টা করছেন। কিন্তু ক্লাবের কিছু বিধিনিষেধের জন্য টেনিসের প্রতি আগ্রহী ব্যক্তিরা এগিয়ে আসতে পারছেন না। জেলা ক্রীড়া সংস্থার কর্তারা জানিয়েছেন টেনিস চালু করার বিষয় প্রস্তাব এলে তাঁরা আলচনা করে দেখতে পারেন।

জলপাইগুড়ি শহরের প্রাচীন বাসিন্দাদের কথায়, যে তিনটে জায়গায় টেনিস খেলা হত সেগুলি হল জলপাইগুড়ি ক্লাব, জলপাইগুড়ি জেলাপরিষদ প্রাঙ্গণ এবং আর্য নাট্যসমাজ সংলগ্ন প্রাঙ্গণ। ইংরেজ আমলে জলপাইগুড়ি ক্লাবের রমরমার সময়ে ক্লাবচত্বরে পাঁচটি টেনিসকোর্ট ছিল। পাঁচটি কোর্টেই খেলা হত। সেখানে ইংরেজ ছাড়া কারও প্রবেশাধিকার ছিল না বলে জেলাপরিষদ সংলগ্ন প্রাঙ্গণ এবং আর্য নাট্যসমাজ সংলগ্ন এলাকায় দেশীয় ব্যাক্তিরা টেনিস খেলা চালু করেন। উদ্যোক্তাদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন অক্ষয় বন্দ্যোপাধ্যায়। অক্ষয়বাবু এখন প্রয়াত। ইংরেজরা চলে যাওয়ার পর তিনটি জায়গাতেই দেশীয় ব্যাক্তিরা খেলতেন।

tennis court, jalpaiguri
এই সেই টেনিস কোর্ট। নিজস্ব চিত্র।

কিন্তু কালক্রমে প্রথমে আর্য নাট্যসমাজ সংলগ্ন প্রাঙ্গণে টেনিস খেলা বন্ধ হয়ে যায়। তার পর জেলা পরিষদ প্রাঙ্গণেও বন্ধ হয়।জলপাইগুড়ি ক্লাবে বন্ধ হয়ে গেলেও আশির দশকে কয়েক জন তরুণ টেনিস খেলা চালু করেন। পরবর্তী কালে সেটাও বন্ধ হয়ে যায়। এখন জেলাপরিষদ প্রাঙ্গণে বড়ো অফিস তৈরি হয়ে গেছে। আর্য নাট্যসমাজ সংলগ্ন প্রাঙ্গণে রবীন্দ্রভবন দেখে এখন আর বোঝার উপায় নেই যে এখানে কোনো কালে টেনিস খেলা হত।

আরও পড়ুন স্বপ্নার স্বপ্নপূরণের দৃশ্য দেখে কান্নায় ভেঙে পড়লেন মা

দু’বছর আগে জলপাইগুড়ি ক্লাবের পরিচালকমণ্ডলী একটি টেনিসকোর্ট তৈরি করেন। কিন্তু জলপাইগুড়ি ক্লাবের বর্তমান সদস্যরা কেউই টেনিস খেলতে এগিয়ে আসেননি। এখন সেই কোর্টটির চারপাশ জঙ্গলে ঢেকে গিয়েছে। কোর্টের মাটি অসমান। নেট টাঙানোর জন্য মরচে ধরা দু’টি খুঁটি জানান দিচ্ছে যে এখানে টেনিস কোর্ট ছিল।

জলপাইগুড়ির প্রাক্তন খেলোয়াড় সন্টু চট্টোপাধ্যায় বলেন, “আমি সত্তরের দশকে জলপাইগুড়ি ক্লাবে লন টেনিস খেলেছি। আমরা চাই আবার এই ক্লাবে লন টেনিস চালু করা হোক।” জলপাইগুড়ি ক্লাবের পরিচালকমণ্ডলীর সদস্য সুব্রত সেনগুপ্ত বলেন, “এখন নতুন করে একটি টেনিসকোর্ট তৈরি করা খরচসাপেক্ষ ব্যাপার। সরকার এবং কোনো সংস্থা আর্থিক সাহায্য নিয়ে এগিয়ে এলে টেনিসকোর্টটি আবার তৈরি করে যেতে পারে। সে ক্ষেত্রে যারা টেনিস খেলতে ইচ্ছুক তাদের জন্য ক্লাবের নিয়মাবলি শিথিল করা যেতে পারে।”

জলপাইগুড়ি শহরের একটা পুরোনো টেনিসকোর্ট এ ভাবে নষ্ট হয়ে যাবে এটা মেনে নিতে পারছেন না জলপাইগুড়ি জেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্যরা। জলপাইগুড়ি জেলা ক্রীড়া সংস্থার যুগ্ম সম্পাদক সুভাষ সরকার বলেন, “জলপাইগুড়ি ক্লাব কর্তৃপক্ষ টেনিস খেলা চালু করার প্রস্তাব আমাদের দিলে আমরা বিষয়টি আলোচনা করে দেখতে পারি।”

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন