হায়দরাবাদ ১২৮-৭ [ওয়ার্নার ৩৭, উইলিয়ামসন ২৪, কুল্টার নাইল ৩-২০]

কলকাতা ৪৮-৩ [গম্ভীর ৩২ অপরাজিত, জাগ্‌গি ৪ অপরাজিত জোর্ডান ১-৯]

বেঙ্গালুরু: ফাইনাল থেকে আর মাত্র এক ম্যাচ দূরে কলকাতা। বুধবার এলিমিনেটরের ম্যাচে হায়দরাবাদকে হারিয়ে দিল তারা।

বলা যেতে পারে কলকাতাকে পরবর্তী কোয়ালিফারে তুলে দিল দুটি ‘ব’। বোলিং এবং বৃষ্টি। প্রথম ইনিংসে কেকেআরের মাপা বোলিং-এর সামনে হাত খুলতে পারেনি হায়দরাবাদ। তার পর বৃষ্টির জন্য কলকাতার জয়ের টার্গেট অনেক কমে যায়।

চিন্নাস্বামী স্টেডিয়ামের পিচ এ বার মন্থর। সে ভাবে রানও উঠছে না। কিন্তু তার পরেও হায়দরাবাদ যে ব্যাটিং প্রদর্শন করল তা যথেষ্ট দৃষ্টিকটু। টসে জিতে ফিল্ডিং নেওয়ার পরে তাই হায়দরাবাদকে আটকাতে বেশি বেগ পেতে হয়নি নাইটবাহিনীকে।

শুরুতেই ধাওয়ানকে হারালেও প্রায় তেরো ওভার পর্যন্ত ক্রিজে ছিলেন ডেভিড ওয়ার্নার। কিন্তু রানের গতিকে কখনওই বাড়াতে পারেননি তিনি। ৩৫টা বল খেলে মাত্র ৩৭ করেন তিনি। নাইটদের বোলিং-এর সামনে হাত খুলতে পারেননি উইলিয়ামসন বা যুবিও। শেষ দিকে নমন ওঝা আর বিজয় শংকর একটু চালিয়ে খেলার ফলে ১৩০-এর কাছাকাছি পৌঁছোয় হায়দরাবাদ।

প্রথম ইনিংসে তুখোড় বোলিং-এর পর এমনিতেও ম্যাচটি অনেকটাই নিজেদের কবজায় নিয়ে এসেছিল কেকেআর। তাদের সুবিধা আরও বেড়ে যায় বৃষ্টির জন্য ঘণ্টা তিনেক ম্যাচ বন্ধ থাকায়। বৃষ্টির পর ম্যাচ যখন শুরু হয়, কলকাতাকে জেতার জন্য তখন ছয় ওভারে করতে হত মাত্র ৪৮।

কিন্তু সেই রান তুলতেও বেগ পেতে হয় কলকাতাকে। প্রথম ওভারেই ফিরে যান লিন এবং ইউসুফ। দ্বিতীয় ওভারে ফেরেন উথাপ্পা। কলকাতা তখন মাত্র বারো রানে তিন উইকেট হারিয়ে কিছুটা চাপে। সেই চাপ অবশ্য দ্রুত মুক্ত করে দেন অধিনায়ক গম্ভীর। ইশাঙ্ক জাগ্‌গিকে সঙ্গে নিয়ে শেষ ওভারে কেকেআরকে জয়ে পৌঁছে দেন তিনি।

কেকেআরের সামনে এখন তাদের সব থেকে অপচ্ছন্দের প্রতিপক্ষ মুম্বই। কিন্তু সামনে স্বপ্ন মুম্বইকে হারালেই ফাইনাল। সেই  স্বপ্নেই এখন বিভোর হবে টিম গম্ভীর।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here