চেন্নাই: এক ঘূর্ণির জন্য উধাও আর এক ঘূর্ণি। বুঝতে অসুবিধা হচ্ছে? একটু খোলসা করে বলা যাক। দিন চারেক আগেই চেন্নাইয়ের ওপর আছড়ে পড়া ঘূর্ণিঝড় বর্ধার জন্য রীতিমতো পাল্টে গেল চিপকের পিচের চরিত্র। যে পিচে রাজ করার কথা ছিল রবিচন্দ্রণ অশ্বিনের, সে পিচে সারা দিনে ২৪ ওভার হাত ঘুরিয়েও উইকেটহীন তিনি। অশ্বিনের সেই ব্যর্থতার ফলে রাজ করে গেল ইংল্যান্ড ব্যাটিং, বলা ভালো রাজ করলেন মঈন আলি।

পিচের চরিত্রে যে বদল আসতে পারে সেটা অবশ্য আন্দাজ করা গিয়েছিল। বর্ধার প্রভাবে পিচের কভার সরে না গেলেও, বৃষ্টির জল কভার দিয়ে চুইয়ে পিচের মধ্যে পড়েছিল। এর ফলে পিচ শুকনো না থাকায় স্পিনও সে ভাবে ধরেনি। তবে শুক্রবার দিনের শুরুতেই যিনি ভেল্কি দেখান তাঁর নাম ইশান্ত শর্মা। ভুবনেশ্বর কুমারের বদলে দলে প্রত্যাবর্তনে ঘটিয়ে ষষ্ঠ ওভারেই আগের ম্যাচে শতরানকারী জেনিংসকে তুলে নেন ইশান্ত। কিছুক্ষণ পর রবীন্দ্র জাদেজার বলে স্লিপে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান অধিনায়ক কুকও। তবে তাঁর আগেই টেস্টে ১১ হাজার রান পূর্ণ করে ফেলেছেন তিনি। এখান থেকে খেলার মোড় ঘুরিয়ে দেন জো রুট আর মঈন। ভারতের মাঠে যেন ব্যর্থই হন না রুট। এ দিনও অর্ধশতরান পূর্ণ করেন তিনি। ৮৮ রানে জাদেজার বলে রুট ফিরে গেলেও দাপটে খেলে যান মঈন, এ বার সঙ্গী হন বেয়ারস্টো।

দু’জনের মধ্যে ৮৬ রানের পার্টনারশিপ তৈরি হয়। মঈনের ব্যাট থেকে বেরোয় ঝকঝকে একটি শতরান। দিনের খেলা শেষ হওয়ার ঘণ্টাখানেক আগেই ফেরেন বেয়ারস্টো। ৪৯ করেন তিনি। শেষ পর্যন্ত চার উইকেটে ২৮৪ তুলেছে ইংল্যান্ড। ১২০ রানে ক্রিজে রয়েছেন মঈন। সঙ্গে রয়েছেন বেন স্টোক্স।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here