সানি চক্রবর্তী

আইএসএলে দুই প্রধানের সংযুক্তিকরণের জট এখন ঠিক কোন জায়গায় দাঁড়িয়ে? বাঙালি ফুটবলপ্রেমীদের আড্ডা-আলোচনার সবথেকে চর্চিত বিষয়টি মঙ্গলবারে ফের অদ্ভুত মোড় নিল।

আইএসএলে খেলতে চেয়ে বুধবার দরপত্র তোলার কথা জানিয়ে দিল মোহনবাগান। সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর আশ্বাসে অ্যাপিয়ারেন্স ফি জমা না দেওয়ার কথাও। ইস্টবেঙ্গলও জানাল, ‘দরপত্র তোলা মানেই আইএসএলে খেলার টাকা জমা দেওয়া নয়। কোনোভাবেই ১৫ কোটি টাকা দিয়ে নাম লেখাব না আমরা।’ দরপত্র তুলতে রাজি হওয়া ও টাকা না দেওয়ার দাবির মধ্যে সূত্রধর অবশ্যই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। মঙ্গলবার রাজ্যের ক্রীড়ামন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসের সঙ্গে আলোচনায় বসার কথা ছিল দুই প্রধানের কর্তাদের। ডাক দেওয়া হয়েছিল মহমেডান ক্লাবকেও। রাজ্য ফুটবলের তরফে আইএফএ সচিব উৎপল গঙ্গোপাধ্যায়ও উপস্থিত ছিলেন। নেতাজি ইন্ডোরে ঘণ্টাখানেকের বৈঠকের পরেই নবান্নে পাড়ি দেন সকলে। মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ক্লাবকর্তাদের কথা বলার সুযোগ করে দেন ক্রীড়ামন্ত্রী। সেখানে নিজেদের দাবিদাওয়া রাখে ক্লাবগুলো। মুখ্যমন্ত্রী সব শুনে ক্লাবগুলোর পাশে থাকার আশ্বাস দেন। ব্যক্তিগতভাবে প্রফুল্ল প্যাটেলের সঙ্গে কথা বলবেন বলেও জানিয়ে রাখেন। পাশাপাশি নিজেদের অবস্থানে অনড় থেকে লড়াই চালিয়ে যাওয়ার জন্য দুই প্রধানকে সবুজ সংকেত দেন তিনি। আর তার জেরেই নতুন করে আইএসএলের সঙ্গে লড়াইয়ের প্রস্তুতি নিতে শুরু করে দেয় মোহনবাগান-ইস্টবেঙ্গল।

বৈঠকের পরে আইএফএ সচিব উৎপল গঙ্গোপাধ্যায় বলে দেন, ‘বাংলার ক্লাবগুলো যাতে কোনোভাবে বঞ্চিত না হয়, সেই দিকটা দেখবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।’ মোহনবাগান অর্থসচিব দেবাশিস দত্ত বলেন, ‘আইএসএলে খেলতে চাই তবে কোনোভাবেই অ্যাপিয়ারেন্স ফি দিয়ে নয়। আসলে মুখ্যমন্ত্রী জানতেন না আই লিগকে দ্বিতীয় সারির লিগ করে দেওয়ার পরিকল্পনা সম্পর্কে। আজ সব শুনে পাশে থাকার বার্তা দিয়েছেন।’ ইস্টবেঙ্গল সহসচিব ডা. শান্তিরঞ্জন দাশগুপ্ত জানান, ‘মুখ্যমন্ত্রী এভাবে পাশে দাঁড়ানোয় আমরা আপ্লুত। নতুন করে লড়াইয়ের শক্তি পেলাম।’ নবান্নে বৈঠকের পরই মোহনবাগান কর্মসমিতির সভার বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয় আইএসএলের দরপত্র তোলার ব্যাপারে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here