খবর অনলাইন: নয়াদিল্লিতে আইএসএল-আই লিগ নিয়ে ফেডারেশনের ত্রিপাক্ষিক বৈঠকে মিলল না সমাধানসূত্র। তবে ঘটনাপ্রবাহ যা, তাতে সম্ভবত আইএসএল খেলার দিকেই হাঁটতে চলেছে কলকাতার দুই প্রধান।

আরও পড়ুন: পালটে গেল পরিস্থিতি, ঘুর পথে আইএসএল-কে স্বীকৃতি, লিগ জট কাটাতে ফর্মুলা তৈরি ফেডারেশনের

এদিনের বৈঠকে ফেডারেশনের তরফ থেকে বলা হয়, এ বছর আই লিগ ও আইএসএল একসঙ্গে হবে। সেক্ষেত্রে খেলোয়াড় না পাওয়ার সমস্যা বলে প্রস্তাবে আপত্তি জানায় কলকাতার দুই প্রধান। কিন্তু ফেডারেশনের পক্ষ থেকে বলা হয়, যেহেতু এই মরশুমে ভারতীয় দলের বেশ কিছু খেলা আছে তাই দুটি লিগ আলাদা সময়ে করা সম্ভব না। তখন দুই প্রধানই বলে, তাঁদের আইএসএল খেলার সুযোগ দেওয়া হোক। তখন ফেডারেশনের পক্ষ থেকে বলা হয়, আইএসএল তো এএফসি স্বীকৃত নয়, তাহলে কেন তাঁরা ওই লিগে খেলতে চাইছেন। এই নিয়ে নানা কথার পর এআইএফএফ সভাপতি প্রফুল প্যাটেল বলেন, তাঁরা একটি মাঝামাঝি পথ বের করার চেষ্টা করছেন।  বক্তব্য পেশ করেন আইএমজিআর-এর প্রতিনিধিরাও। সেই মাঝামাঝি পথের প্রস্তাব দিয়ে ফেডারেশনের পক্ষ থেকে দুই প্রধানকেই চিঠি পাঠানো হবে রবিবার।

দুই প্রধানের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, সেই চিঠি নিয়ে তাঁদের এক্সিকিউটিভ কমিটি সোমবার বৈঠক করে সিদ্ধান্ত নেবে। তাঁদের সিদ্ধান্ত তাঁরা ফেডারেশনকে জানাবে। তারপর সব পক্ষকে নিয়ে আগামী সপ্তাহের মাঝামাঝি ফের বৈঠক করবেন প্রফুল প্যাটেল। সেদিনই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হওয়ার সম্ভাবনা।

কী থাকবে ফেডারেশনের মাঝামাঝি পথ সংক্রান্ত প্রস্তাবে?   

এ বিষয়ে স্পষ্ট করে কিছু না জানা গেলেও সূত্রের খবর ফ্র্যাঞ্চাইসি ফি ১৫ কোটি টাকা থেকে বেশ খানিকটা কমানোর প্রস্তাব থাকবে ফেডারেশনের চিঠিতে। এর আগে মোহন-ইস্ট কর্তারা গোঁ ধরেছিলেন, তাঁরা ফ্র্যাঞ্চাইসি ফি দেবেন না। নতুন প্রস্তাবে তাঁরা সাড়া দেবেন কি না, তা সোমবারের আগে জানা যাবে না। এদিনের বৈঠকে মাঠ নিয়ে কোনো আলোচনা হয়নি। তবে, মোহনবাগান, ইস্টবেঙ্গল ও অ্যাটলেটিকো-তিনটি দল খেললে মাঠ নিয়ে যাতে সমস্যা না হয়, সে ব্যাপারেও ফেডারেশন ভাবছে বলে সূত্রের খবর।

তবে মোহন-ইস্ট-আইএমজিআর-ফেডারেশন বোঝাপড়া হয়ে গেলেই যে সমস্যা মিটে যাচ্ছে তা নয়। এমনটা হলে আইজল, লাজং-এর মতো আই লিগের অন্য দলগুলিও আইএসএল-এ খেলার দাবি জানাতে পারে। অন্যদিকে এতদিন এই দলগুলিকে নিয়ে জোট তৈরি করার পর নিজেদের মতো করে আইএসএল-এ চলে গেলে, ভারতীয় ফটবলে একঘরে হয়ে যাবে মোহন-ইস্ট।  ফলে প্রফুল্ল প্যাটেলের প্রস্তাবের দিকেই এখন নজর সব পক্ষের।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন