IPL-HP-F

ওয়েবডেস্ক: এই মরশুমের আইপিএল শুরু হতে আর মাত্র দু’দিন। ইতিমধ্যেই দল গুলি নিজেদের অনুশীলন শুরু করে দিয়েছে। তবে তার মাঝেও কিছুটা সুর কেটেছে এ বারের টুর্নামেন্টে। চোটের কারণে অনেক নামী খেলোয়াড় নিজেদের নাম তুলে নিয়েছেন। তা ছাড়াও বিতর্ক জনিত কারণে বাদ পড়েছেন আরও কিছু খেলোয়াড়। প্রায় ১১২২ জন ক্রিকেটার এই বছর নাম নথিভুক্ত করেছিলেন, যার মধ্যে মাত্র ১৬৯ জন নিজেদের জায়গা করে নিতে পেরেছে।

জেনে নিন যাঁরা এ বারের লিগ থেকে ছিটকে গেলেন:

ব্যাটসম্যান:

১। মারটিন গাপ্তিল

টি২০ ক্রিকেটে সব থেকে বেশি রানের মালিক তিনি। তবে এ বারের নিলামে তাঁকে নেয়নি কোনো দলই। এর আগে মুম্বই এবং পঞ্জাব দলের হয়ে বেশ কিছু ম্যাচ খেলেছেন। তবে টি ২০ ক্রিকেটে দ্রুততম সেঞ্চুরির মালিককে কিন্তু মিস করবে, এ বারের টুর্নামেন্ট।

guptill

 

২। হাশিম আমলা

টি২০-তে  ৪,০৪৯ রান। আগের মরশুমে করেছিলেন প্রায় ৪০০-র ওপর রান। সঙ্গে দু’টি শতক এবং অর্ধশতক। তা সত্ত্বেও এ বারের দলে তাঁকে রাখেনি, কিংস ইলেভেন পঞ্জাব।

 

amla

 

৩। জো রুট

২০১৬ টি২০ বিশ্বকাপে ভারতের মাটিতে তৃতীয় সর্বোচ্চ রানাধিকারি ছিলেন। সিরিজে করেছিলেন ২৪৯ রান। সঙ্গে দলকে নিয়ে গিয়েছিলেন ফাইনালেও। সেই রুট এ বার অবশ্য নিলামে থেকে গেলেন আনসোল্ড।

 

root

 

৪। ইয়ন মরগ্যান

টি ২০ তে ৫০০০ হাজারের ওপর রান। গত মরশুমে লিগে ফর্মের ধারে কাছে ছিলেন না। ফলে সেটাই কারণ হয়ে দাঁড়াল এই মরশুমে দল না পাওয়ার ক্ষেত্রে।

morgan

 

৫। জনি বেয়ারস্টো

আইপিএল নিলাম শেষ হওয়ার পরেই, দেশের হয়ে তৃতীয় দ্রুততম একদিনের সেঞ্চুরি করেছেন তিনি। তবে আইপিএলে সেই রকম সাফল্য না থাকায়, এইবার কোনো দলে সুযোগ পাননি।

 

bairstow

 

৬। শন মার্স

৭১ আইপিএল ম্যাচে তাঁর সংগ্রহ ২৫০০-র কাছাকাছি রান। প্রথম বছরে হয়েছিলেন সর্বোচ্চ রানের মালিক। সেই থেকেই পঞ্জাব দলের নিয়মিত সদস্য ছিলেন তিনি। তবে এ বার তাঁকে দলে রাখেনি তারা। যা নিয়ে সমর্থকদের মধ্যে একটা চাপা ক্ষোভ রয়েছে।

 

marsh

 

৭। ডেভিড ওয়ার্নার

তাঁকে নিয়ে নতুন করে বলার কিছু নেই। বল বিকৃতি কাণ্ড সবারই জানা। যার জন্য এক বছর কোনো ধরনের ক্রিকেট খেলতে পারবেন না তিনি। তবে আইপিএলে ফর্মের বিচারে অন্যতম সেরা খেলোয়াড় তিনি। অধিনায়ক সহ, সানরাইজারস দলকে চ্যাম্পিয়ন করেছিলেন ২০১৬ সালে। ২০১৫ এবং ২০১৭ সালে সর্বোচ্চ রানের মালিক।

 

warner

 

৮। স্টিভ স্মিথ

বল বিকৃতি কাণ্ডে নির্বাসিত হয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক স্মিথও। শেষ মরশুমে আইপিএলে সব থেকে নজরকারা ক্রিকেট খেলেছিলেন তিনি। করেছিলেন প্রায় ৪৭২ রান। এই মরশুমে তাঁর অধিনায়কত্ব কিছুটা মিস করবে রাজস্থান রয়্যালস দল।

 

smith

 

বোলার:

১। কাগিসো রাবাডা

গত বছরের নিলামে তৃতীয় সর্বোচ্চ খেলোয়াড় ছিলেন তিনি। চলতি শেষ হওয়া দক্ষিণ আফ্রিকা এবং অস্ট্রেলিয়া মধ্যে টেস্ট সিরিজে নিয়েছেন ২৩ উইকেট। তবে শেষ টেস্ট চলাকালীন পেয়েছেন চোট। যার ফলে এবারের লিগে তাঁর অভাব বোধ করবে দিল্লি ডেয়ারডেভিলস দল।

 

rabada

২। মিচেল স্টার্ক

তাঁকে প্রায় সাড়ে ৯ কোটি টাকায় কিনেছিল কলকাতা নাইট রাইডারস। দলের বোলিংয়ে অন্যতম ভরসা ছিলেন তিনি। তবে হাড়ে ফ্রাকচারের কারণে আইপিআল থেকে নিজের নাম তুলতে বাধ্য হন, অস্ট্রেলীয় পেসার।

 

starc

৩। নাথান কুল্টারনাইল

আইপিএলে দিল্লি এবং কলকাতা দলের হয়ে খেলেছেন তিনি। তাঁর বোলিং ভরসা যোগাতো দলগুলিকে। গত বছর মাঝপথে টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে যান। এবার অবশ্য প্রথম থেকেই বাদ পড়লেন। ২ কোটি টাকায় এবার কিনেছিল রয়্যাল চ্যালেঞ্জারস বেঙ্গালুরু।

 

coulter nile

 

৪। মিচেল স্যান্টনার

৫০ লক্ষ টাকায় এবার তাঁকে দলে নিয়েছিল চেন্নাই সুপার কিংস। টি ২০ রাঙ্কিংয়ে ষষ্ঠ স্থানে রয়েছেন তিনি। তবে ঘরের মাঠে ইংল্যান্ডের সঙ্গে চলা একদিনের সিরিজে, হাঁটুতে চোট পান যার জন্য এ বারের আইপিএলে অনিশ্চিত।

 

santner

 

৫। লাসিথ মালিঙ্গা

আইপিএলের ইতিহাসে সর্বোচ্চ উইকেটের মালিক তিনি। ১১০ ম্যাচে তাঁর ঝুলিতে রয়েছে ১৫৪ উইকেট। তবে ২০১৫ সালে অস্ত্রপ্রচারের পর থেকেই নিজের ফর্ম হারাচ্ছিলেন তিনি। মুম্বাই দলের অনেকদিনের সদস্য, তবে এ বার তাঁকে দলে রাখেননি মালিক নীতা আম্বানি।

 

malinga

 

৬। মরনি মর্কেল

কেকেআর দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ২০১২ সালে দিল্লির হয়ে টুর্নামেন্টে সর্বোচ্চ উইকেটের মালিক ছিলেন। গত বছর চোটের কারণে নাম তুলে নিয়েছিলেন। যার ফলে এ বার তাঁর জন্য নিলামে দর হাঁকায়নি নাইট রাইডার্স কর্তৃপক্ষ।

 

morkel

 

৭। রাজনিশ গুরবানি

২০১৭-১৮ মরশুমে রঞ্জি ট্রফিতে ভিদর্ভের হয়ে ফাইনালে নিয়েছিলেন ১২ উইকেট। সেমিফাইনালে নিয়েছিলেন ৮ উইকেট। দ্বিতীয় বোলার হিসাবে রঞ্জি ফাইনালে নিয়েছিলেন হ্যাট্রিক। তবে এবারের আইপিএলে এই তরুণ প্রতিভাকে দেখা থেকে বঞ্ছিত হবেন ক্রিকেট প্রেমীরা।

gurbani

 

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন