পুনে: ‘এ ভাবেও ফিরে আসা যায়’। টুর্নামেন্টের শুরুতে একের পর এক ম্যাচ হারতে হারতে দেওয়ালে পিঠ ঠেকে গিয়েছিল যে দলের, সেই দলই কি না ড্যাংড্যাং করে আইপিএলের প্রথম কোয়ালিফায়ারে উঠে গেল। অর্থাৎ আইপিএল ফাইনালে ওঠার জন্য তার কাছে এখন দু’টো সুযোগ।

রবিবার পুনে বনাম পঞ্জাব ম্যাচটি ছিল আদতে নক-আউট। যে জিতবে সে চলে যাবে প্লে-অফে। মনে করা হচ্ছিল জমাটি ম্যাচ হবে। আদতে অত্যন্ত একপেশে একটি ম্যাচ হল, যেখানে পঞ্জাবকে কার্যত গুঁড়িয়ে দিল পুনে। টসে জিতে প্রথমে ফিল্ডিং-এর সিদ্ধান্ত নেন পুনে অধিনায়ক স্মিথ। পঞ্জাবের ইনিংসের প্রথম বল থেকেই উইকেট পতন শুরু। আউট হয়ে ফিরে যান গাপ্টিল। তৃতীয় উইকেটে একটা পার্টনারশিপ তৈরির চেষ্টা করছিলেন শন মার্শ এবং ঋদ্ধিমান সাহা। কিন্তু মাত্র ১৯ রানের মাথায়েই ফিরে যান মার্শ। পুনের আক্রমণের সামনে রীতিমতো কম্পিত পঞ্জাব। একের পর এক উইকেটের পতন মনে করিয়ে দিচ্ছিল টি-২০-তেও বোলারদের ভূমিকা কতটা গুরুত্বপূর্ণ।

৭৩ রানে গুটিয়ে যায় পঞ্জাব। সর্বোচ্চ ২২ করেন অক্ষর পটেল। অক্ষর ছাড়া দু’অঙ্কের রান করেছেন শুধুমাত্র ঋদ্ধিমান, মার্শ এবং স্বপনীল সিংহ। ৭৪ রান তাড়া করাটা পুনের কাছে ছিল দুধভাত। রান উঠেও গেল অবলীলায়। শুধুমাত্র রাহুল ত্রিপাঠীর উইকেটটি হারায় পুনে। আট ওভার বাকি থাকতেই ম্যাচ পকেটে পুরে নেয় স্মিথবাহিনী।

প্লে-অফের সূচি তৈরি, হায়দরাবাদের মুখোমুখি কলকাতা

পুনের এই জয়ের ফলে প্লে-অফের সূচি তৈরি হয়ে গেল। লিগ টেবিলে দু’নম্বরে উঠল পুনে। চার নম্বরে সন্তুষ্ট থাকতে হল কলকাতাকে। মঙ্গলবার প্রথম কোয়ালিফায়ারে মুম্বইয়ের মুখোমুখি হবে পুনে। বুধবার এলিমিনেটরের ম্যাচে কলকাতার সামনে হায়দরাবাদ। উল্লেখ্য, গত বছরেও এলিমিনেটরের ম্যাচে হায়দরাবাদেরই মুখোমুখি হয়েছিল কলকাতা। সেই ম্যাচে হেরে আইপিএলকে বিদায় জানায় নাইটবাহিনী।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here