চেন্নাই: এই মুহূর্তে কেএল রাহুলের মনের অবস্থা কী রকম? গোটা ম্যাচে শুধু একটি ভুল আর সেই ভুলের খেসারত কি না দ্বিশতরান থেকে মাত্র এক রান আগে আউট। কাকে দোষ দেবেন তিনি? টেকনিকের গলদ নাকি ভাগ্যকে। তবে যাই হোক দু’শো ফস্কালেও দিনের নায়ক সেই রাহুলই।

প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ডের রানের পাহাড়ে সিরিজে প্রথম বার কিছুটা চাপে পড়েছিল ভারত। কিন্তু প্রথম উইকেটে রাহুলের সঙ্গে পার্থিব পটেলের দুরন্ত জুটি সেই চাপকে অনেকটাই কমিয়ে দেয়। ফের একটি অর্ধশতরান করেন পার্থিব। প্রত্যাবর্তনের পর চারটি ইনিংসে এটি তাঁর দ্বিতীয় পঞ্চাশ। ৭১ রান করে ফিরে যান পার্থিব। এ দিন অবশ্য ব্যর্থ হয়েছেন পূজারা আর অধিনায়ক কোহলি। ভারতের স্কোরবোর্ডে তাঁদের অবদান যথাক্রমে ১৬ আর ১৫।

২১১-এর মধ্যে তিনটে উইকেট হারিয়ে ভারত যখন কিছুটা চাপে তখন রাহুলের সঙ্গে খেলা ধরেন করুণ নায়ার। আরও আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠেন রাহুল। খুব দ্রুত দ্বিশতরানের দিকে এগিয়ে যাচ্ছিলেন শেষে। এই মারমুখী মেজাজই তাঁর ইনিংসের ইতি ঘটিয়ে দিল। রশিদের বলে বাটলারের হাতে ক্যাচ দিয়ে কিছুক্ষণ ক্রিজে বসে থাকলেন তিনি। ড্রেসিংরুম তখন কিংকর্তব্যবিমূঢ়।

তবে দিনের শেষে বেশ সুবিধাজনক জায়গায় ভারত। চার উইকেট হারিয়ে ৩৯১। ৭১-এ ব্যাট করা করুণের সঙ্গে রয়েছে কাঁধের চোটে আক্রান্ত মুরলী বিজয়।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here