বায়ার্ন মিউনিখ: ১ (ভিদাল)  রেয়াল মাদ্রিদ: ২ (রোনাল্ডো)

সানি চক্রবর্তী:

কানায় কানায় ভরা অ্যালিয়াঞ্জ এরিনা মোটেই এই শেষটা প্রত্যাশা করেনি। বিশেষ করে তাদের দলের দুরন্ত শুরুর পরে। ঘরের মাঠে প্রথমার্ধে রীতিমতো দাপট দেখিয়ে শুরু করেছিল বায়ার্ন মিউনিখ। প্রথামর্ধের শেষদিকে ভিদালের পেনাল্টি থেকে গোল মিস থেকে ছন্দপতনের শুরু। দ্বিতীয়ার্ধে ০-১ ব্যবধানে পিছিয়ে থেকে নেমে আক্রমণের ঝড় থুলল গ্যালাকটিকোস ব্রিগেড। রোনাল্ডো ১-১ করার পরে আবার খাবি মার্তিনেজের লাল কার্ড। শেষদিকে দশ জনে ডিফেন্স করে আর মাত্র একটি গোল হজম করার জন্য ম্যানুয়েল ন্যুয়ারকে ধন্যবাদ জানাতেই পারেন সমর্থকরা। রোনাল্ডোর জোড়া গোলের সুবাদে রিয়াল জিতল ২-১ ব্যবধানে। যদিও এখানেই টাইয়ের সমাপ্তি নয় মোটেই, সপ্তাহখানেক সময়ের মধ্যে সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে দ্বিতীয় লেগের ম্যাচ। যে ম্যাচে বায়ার্ন আপফ্রন্টে ফিরছেন লিওয়ানডস্কি। তাই মহারণের আবহ এখনও জারি। ন্যুয়ের ছাড়াও একটি ক্ষেত্রে সহকারী রেফারিরও যার জন্য প্রশংসা প্রাপ্য। শেষলগ্নে ফের একবার হেডে গোল করে কার্যত টাই শেষ করে দিয়েছিলেন রামোস। কিন্তু তিনি অফসাইড পজিশন থেকে দৌড় শুরু করেছিলেন গোলটি করার ক্ষেত্রে, সহকারী রেফারি সঠিকভাবেই গোলটি বাতিল না করলে কার্লো আন্সেলোত্তির দলের কাছে টাই ওভার হয়ে যেত। সেটা না হলেও জোড়া গোল করে ইউরোপীয় ক্লাব ফুটবলে হাজারতম গোলটি সেরে ফেললেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো।

ভিদাল-আলন্সোদের দাপটে শুরুটা যদিও পঞ্চম গিয়ারে করেছিল ব্যাভারিয়ান জায়ান্টসরা। প্রথমার্ধের ২৫ মিনিটের মাথায় কর্ণার থেকে ভেসে আসা বলে গোলার মতো হেড করে বায়ার্নকে লিড এনে দেন ভিদাল। যদিও প্রথমার্ধের শেষে পেনাল্টি মিস করে ম্যাচের শেষে খলনায়ক বায়ার্নের এই চিলির মিডফিল্ডারই। প্রথমার্দের শেষদিকে আগুয়ান রবেনকে রুখতে গিয়ে ফাউল করে বসেন ক্রুস। পেনাল্টি থেকে ২-০ করার সুবর্ণ সুযোগ পেয়েছিলেন ভিদাল। কিন্তু তার শট ক্রসবার উঁচিয়ে চলে যায়। একঅর্থে জীবনদান পেয়ে দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকে তেড়েফুঁড়ে লাগে রিয়াল। ফের খেলা শুরুর মাত্র ২ মিনিটের মধ্যেই কার্ভাহালের ক্রস থেকে ন্যুয়েরকে টপকে গোল করে যায় রোনাল্ডো।

গোলের পরে রোনাল্ডো-বেল-বেঞ্জিমারা আক্রমণের পরে আক্রমণ আছড়ে আনে বায়ার্ন বক্সের দিকে। মাঝে রেয়ালের কাউন্টার অ্যাটাক আটকাতে গিয়ে কিছু সময়ের মধ্যে দুটি হলুদ কার্ড তথা লালা কার্ড দেখে মাঠ ছাড়তে বাধ্য হন জাভি মার্টিনেজ। দশজনের বায়ার্নের বিরুদ্ধে যদিও পরের গোলের জন্য  বেশ কিছুটা অপেক্ষা করতে হয় রিয়ালকে। খেলা শেষের ১৩ মিনিট আগে অ্যাসেনসিওর ক্রস থেকে ন্যুয়েরের পায়ের ফাঁক দিয়ে জোরালো টোকায় দলের জয় নিশ্চিত করে দেন রোনাল্ডো।

অপরদিকে, ঘরের মাঠে গ্রিজম্যানের পেনাল্টি থেকে করা একমাত্র গোলে লেস্টার সিটিকে হারিয়েছে আতলেতিকো মাদ্রিদ। আর, বিস্ফোরণের আঘাত কাটিয়ে উপভোগ্য ম্যাচ উপহার দিয়েছে বরুশিয়া ডর্টমুন্ড। মোনাকোর কাছে ৩-২ ব্যবধানে হেরে গেলেও দুরন্ত লড়াই হয়েছে সিগন্যাল ইডুনা পার্কের ম্যাচে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here