ওয়েবডেস্ক: অষ্টমীর দিন বাঙালিরা যখন অঞ্জলিতে মেতে উঠবে, ঠিক তখনই বিপ্লব ঘটে যাবে ক্রিকেটে। আইসিসির নিয়মে একাধিক বদল আনা হয়েছে, যা কাল বৃহস্পতিবার থেকেই কার্যকর করা হবে। একবার দেখে নিন কী কী নিয়ম বদল করা হচ্ছে ক্রিকেটে।

১) টেস্ট ক্রিকেটে একটি দল সর্বোচ্চ ছ’জন পরিবর্তিত ক্রিকেটারের নাম ঘোষণা করতে পারে। আগে একটি দল সর্বোচ্চ চার জনের নাম বলতে পারত।

২) ব্যাটের চওড়া এবং লম্বার মাপে কোনো পরিবর্তন না আনা হলেও ব্যাটের ধারটা কোনো ভাবেই চল্লিশ মিলিমিটারের বেশি পুরু হবে না। ব্যাটের মাঝখানটি সর্বোচ্চ ৬৭ মিমি পুরু হতে পারে। ব্যাটসম্যানের ব্যাটটা নতুন নিয়ম পালন করছে কি না, সেটা মাপার জন্য আম্পায়ারদের কাছে একটি গজফিতে দেওয়া হবে।

৩) উইকেটের বেল উড়ে গিয়ে উইকেটকিপার বা ফিল্ডারদের চোটগ্রস্ত হওয়ার ঘটনা আকছার ঘটছে ক্রিকেটে। সেই ঘটনা কমানোর জন্য উইকেটের সঙ্গে দড়ি দিয়ে বেলকে আটকে রাখার ব্যাপারেও সম্মতি জানিয়েছে আইসিসি। তবে এ ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে কোনো টুর্নামেন্টের আয়োজক দেশ। তবে দড়ি দিয়ে আটকে রাখা হলেও, বোল্ড আউটের ক্ষেত্রে বেলকে নড়ে উঠতেই হবে।

৪) আগের নিয়মে কোনো টেস্ট ক্রিকেটের ক্ষেত্রে বিরতি হওয়ার দু’মিনিটি আগে উইকেট পড়লে, তৎক্ষণাৎ বিরতি ডেকে দিতেন আম্পায়ার। সেই সময়সীমা আরও এক মিনিট বাড়িয়ে মোট তিন মিনিট করা হয়েছে।

৫) টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের ক্ষেত্রে যদি কোনো ইনিংসে নির্ধারিত ওভার সংখ্যা দশ বা তারও কম ওভারে নেমে আসে, তা হলে একজন বোলারকে কম করে ২ ওভার বল করতেই হবে। ধরা যাক কোনো ইনিংস কমে পাঁচ ওভারের হয়েছে, তা হলে দু’জন বোলারকে দু’টি ওভার বল করতেই হবে। পাঁচ জন বোলারকে একটা ওভার বল করালে চলবে না।

৬) বাউন্ডারি লাইনের ধারে দাঁড়িয়ে থাকা ফিল্ডারের হাওয়ায় উড়ে গিয়ে বাউন্ডারি আটকানোর ঘটনা হামেশাই ঘটছে ক্রিকেটে। তবে এ বার থেকে এই নিয়মে অল্প একটু বদল আনা হয়েছে। যদি কোনো ফিল্ডার হাওয়ায় উড়ে বল আটকানোর চেষ্টা করেন, এবং বল ধরে বাউন্ডারি লাইনের বাইরে থাকা কোনো বস্তু বা কোনো মানুষের সঙ্গে ধাক্কা খান, তা হলেও বাউন্ডারি ঘোষণা করবেন আম্পায়ার।

৭) নতুন নিয়ম অনুযায়ী বোলারের হাত থেকে ছাড়া পাওয়ার পর ব্যাটসম্যানের কাছে পৌঁছোনো পর্যন্ত একটি বল যদি দু’বার বাউন্স করে, তা হলে সেটি নো-বলের আখ্যা পাবে। আগের নিয়মে দু’বার বাউন্স করলেও, তাকে বৈধ বলের আখ্যা দেওয়া হতো।

৮) আগের নিয়মে নো বলে বাই বা লেগ-বাইতে কোনো রান হলে, সেই রানটাও নো বলেই যোগ হত। কিন্তু এ বার থেকে নো-বলেরটা নো-বলে এবং বাই, লেগ-বাইইয়েরটা সেখানেই যাবে।

৯) এখনও পর্যন্ত যদি কোনো ব্যাটসম্যান ক্রিজের মধ্যে ঢোকার পরে নিজের ব্যাট অথবা দু’টি পা হাওয়ায় থাকে, তা হলে তাঁকে রান আউট ঘোষণা করা হয়। কিন্তু নতুন নিয়মে এক বার ব্যাটসম্যান ক্রিজের মধ্যে ঢুকে গেলেই হবে, ব্যাট বা পা হাওয়ায় উঠে থাকলেও, তাঁকে রান আউট ঘোষণা করা হবে না।

১০) কোনো ব্যাটসম্যানকে যদি আউট ঘোষণা করার পর ফিল্ডিং টিম বা আম্পায়াররা যদি তাঁকে ফিরিয়ে আনতে চান তা হলে পরবর্তী বল হওয়ার আগে পর্যন্ত সময় পাওয়া যাবে। আগের নিয়মে ব্যাটসম্যান যদি মাঠের বাউন্ডারি লাইন পেরিয়ে যেতেন, তা হলে তাঁকে আর ফিরিয়ে আনা যেত না।

১১) বাউন্ডারি লাইনে ক্যাচ ধরার নিয়মে ছোট্টো একটা বদল আনা হয়েছে। অনেক ক্ষেত্রেই দেখা গিয়েছে, বাউন্ডারি লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা ফিল্ডার হাওয়ায় উড়ে গিয়ে, একটা বল আটকালেন, কিন্তু শরীরের সামঞ্জস্য ধরে রাখতে না পেরে বলটাকে ছেড়ে দিয়ে নিজে এলেন বাউন্ডারি লাইনের বাইরে। পরক্ষণেই বাউন্ডারি লাইনের ভেতরে ঢুকে গিয়ে হাওয়ায় থাকা বলটাকে ক্যাচ করে নিতেন। কিন্তু সে রকম করলে এখন থেকে সেটি আর বৈধ ক্যাচ নয়। ফিল্ডার যদি বাউন্ডারি লাইনের বাইরে মাটি ছুঁয়ে ফেলেন তা হলে সেই ক্যাচ বৈধ হবে না।

১২) ব্যাটসম্যানের দেওয়া ক্যাচ যদি ফিল্ডার বা উইকেটকিপারের হেলমেটে লেগেও হাতে পৌঁছোয়, তা হলে ব্যাটসম্যানকে আউট ঘোষণা করা হবে।

১৩) হ্যান্ডলিং-দ্য-বল নামের আর কোনো আউট থাকছে না। হ্যান্ডলিং-দ্য-বলে কেউ আউট হলেও, তাঁকে অবস্ট্রাক্টিং-দ্য-ফিল্ডে-এ আউটটি দেওয়া হবে।

১৪) ক্রিকেটের নীতি মানা এখন বাধ্যতামূলক। ‘আনফেয়ার প্লে’-এর নিয়ম আরও বেশি কড়াকড়ি আনা হয়েছে।

১৫) ফুটবলের মতোই এ বার ক্রিকেটেও লাল কার্ড চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে আইসিসি। মাঠে অভব্য আচরণ করলে শাস্তি হিসেবে তাঁকে মাঠের বাইরে পাঠানোর ক্ষমতা পাবেন আম্পায়ররা।

১৬) ‘আম্পায়ার্স কল’-এ ভুক্তভোগী কোনো দল নিজের রিভিউটি খোয়াবে না। বর্তমানে আম্পায়ারের কোনো এলবিডব্লিউর সিদ্ধান্ত রিভিউ নেওয়া হলে, যদি রিপ্লেতে ‘আম্পায়ার্স কল’ দেখা যায় তা হলে ‘অনফিল্ড আম্পায়ারের’ সিদ্ধান্তের কোনো পরিবর্তন হয় না এবং আবেদন করা দলটির একটি রিভিউ নষ্ট হয়ে যায়। যে হেতু ‘আম্পায়ার্স কল’-এর ক্ষেত্রে মাঠের সিদ্ধান্ত উলটো হলেই রিভিউ সঠিক হয়ে যেত, সে ক্ষেত্রে এ ভাবে রিভিউ বাতিল হওয়াটা দুর্ভাগ্যজনক।

১৭) এতদিন পর্যন্ত নিয়ম ছিল টেস্টে ৮০ ওভারের পর ডিআরএসের সংখ্যা বেড়ে যেত দলগুলির। অর্থাৎ প্রথম থেকে ৮০ ওভার পর্যন্ত দু’টি রিভিউ পেত দলগুলি। ৮০ ওভারের মধ্যে দু’টি রিভিউ খোয়ালেও ফের নতুন দু’টি রিভিউ পেত দলগুলি। কিন্তু এখন থেকে সেই নিয়ম আর থাকছে না। গোটা ইনিংসের জন্য দু’টি রিভিউই পাবে দলগুলি।

চলতি ভারত-অস্ট্রেলিয়া সিরিজ বা ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজে এই নতুন নিয়ম কার্যকর করা হবে না। বৃহস্পতিবার শুরু হতে চলা দক্ষিণ আফ্রিকা-বাংলাদেশ এবং পাকিস্তান-শ্রীলঙ্কা সিরিজ থেকেই এই নিয়ম কার্যকর হবে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here