অলিম্পিকে ব্রোঞ্জজয়ী পিভি সিন্ধু, রুপোজয়ী সাক্ষী মালিক, অল্পের জন্য ব্রোঞ্জ হাতছাড়া হওয়া দীপা কর্মকার আর সিন্ধুর কোচ তথা ভারতের প্রাক্তন ব্যাডমিন্টন তারকা পুল্লেলা গোপীচাঁদের হাতে বিএমডব্লুর চাবি তুলে দিয়ে তাঁদের সম্মান জানালেন ভারতের কিংবদন্তি প্রাক্তন ক্রিকেটার তথা রিও অলিম্পিকে ভারতের অ্যাম্বাসাডর সচিন তেন্ডুলকর।

রবিবার হায়দরাবাদ জেলা ব্যাডমিন্টন সংস্থার পক্ষ থেকে অলিম্পিকের কৃতী তিন কন্যা ও গোপীচাঁদকে এই গাড়ি উপহার দেন সংস্থার সভাপতি ভি  চামুণ্ডেশ্বরনাথ। পুল্লেলা গোপীচাঁদের নিজস্ব ব্যাডমিন্টন অ্যাকাডেমিতে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। গাড়ির চাবি তুলে দেওয়ার জন্য আহবান জানান হয় সচিনকে।

গাড়ির চাবি তুলে দিয়ে দৃশ্যত খুশি সচিন, সবার সাথে সেলফি তুলতেও ভোলেননি। এর পর তিন কন্যার উদ্দেশে সচিন বলেন, “অলিম্পিকে তোমাদের খেলা আমি উৎসাহ নিয়ে দেখেছি। তোমরা দেশকে গর্বিত করেছ, আমার আশা তোমরা সামনের অলিম্পিকে সোনা আনবে”। দীপার উদ্দেশে আলাদা ভাবে সচিনের মন্তব্য, “পদক না জিতলেও তুমি দেশবাসীর মন জয় করেছ”।

কিংবদন্তী ক্রিকেটারের হাত থেকে গাড়ির চাবি পাওয়ার পর স্বভাবতই আনন্দিত সাক্ষী, সিন্ধু, দীপা। সামনের অলিম্পিকে আরও ভালো করার প্রতিজ্ঞাও করলেন তাঁরা। সিন্ধু বলেন, “আগের বার সচিন স্যারের থেকে গাড়ি উপহার পাওয়ার পর তিনি বলেছিলেন অলিম্পিক থেকে পদক আনতে পারলে আরেকটা গাড়ি পাব। সেই স্বপ্ন আমার সত্যি হল। সামনের সব টুর্নামেন্ট থেকে সোনা আনার আপ্রাণ চেষ্টা করব আমি”। পাশাপাশি তাঁকে এতদুর নিয়ে আসার জন্য কোচ গোপীচাঁদকেও অসংখ্য ধন্যবাদ জানান সিন্ধু।

সচিনকে ধন্যবাদ জানিয়ে সাক্ষী বলেন, “কয়েক দিন আগে পর্যন্ত আমাকে কেউ চিনত না। কিন্তু আজ সারা দেশ আমার পাশে রয়েছে। দেশবাসীর এই শুভেচ্ছা আমাকে টোকিও অলিম্পিকে আরও ভালো কিছু করার জন্য উৎসাহিত করবে”।

দীপা বলেন, কোনও পদক না জেতা সত্ত্বেও এত সম্মান পেয়ে তিনি গর্বিত। গোপীচাঁদের কথায়, “রিও অলিম্পিকে এই তিন কন্যাই দেশের সম্মান রক্ষা করেছে। এদের জন্য আজ সারা দেশ গর্বিত”।    

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here