নয়াদিল্লি: ডোপিং পরীক্ষায় ধরা পড়লেন গোলকিপার সুব্রত পাল। এর ফলে কড়া শাস্তির মুখে পড়তে পারেন তিনি। তাঁর খেলার ওপর নিষেধাজ্ঞাও আরোপ করা হতে পারে। মঙ্গলবার এমনই জানিয়েছে সর্বভারতীয় ফুটবল সংস্থা (এআইএফএফ)।

সোমবার জাতীয় ডোপিং বিরোধী সংস্থার (নাডা) রিপোর্ট এসে পৌঁছোয় এআইএফএফের কাছে। মঙ্গলবার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন এআইএফএফ সচিব কুশল দাস। তিনি বলেন, “সুব্রতর ‘এ’-নমুনায় নিষিদ্ধ বস্তুর উপস্থিতি প্রমাণ মিলেছে। সুব্রত নিজের ‘বি’-নমুনাও পরীক্ষা করাবে কি না, সেই সিদ্ধান্ত ওকেই নিতে হবে।” এর পাশাপাশি কুশলবাবু বলেন, প্রয়োজনে সব রকম ভাবে সুব্রতর পাশে দাঁড়াতে প্রস্তুত এআইএফএফ।

ডোপিং সংক্রান্ত এই খবর পেয়ে রীতিমতো স্তম্ভিত সুব্রত। নিজেকে সম্পূর্ণ নিরপরাধ দাবি করে সুব্রত জানান, “দশ বছর ধরে সততার সঙ্গে আমি খেলেছি। এই ঘটনার ফলে আমার নাম কলঙ্কিত হয়েছে। নিজেকে নিরপরাধ প্রমাণ করবই।” পাশাপাশি তিনি জানান, ডোপ টেস্টে ব্যর্থ হওয়ার খবর তিনি সংবাদমাধ্যমের থেকেই পেয়েছেন, এআইএফএফ বা নাডা থেকে কিছু জানানো হয়নি তাঁকে।

গত মাসের ১৮ তারিখ ভারতীয় দলের কাম্বোডিয়া যাত্রার আগে মুম্বইয়ে অনুশীলন শিবির চলাকালীন সুব্রতর ডোপ পরীক্ষা করে নাডা। এ কথা জানান নাডার প্রধান নবীন অগ্রওয়াল।

ফিফার নিয়ম অনুযায়ী কোনো ফুটবলার ডোপিং-এ ধরা পড়লে তাঁকে এক সপ্তাহের মধ্যে সাসপেন্ড করতে হবে সংশ্লিষ্ট ফুটবল সংস্থাকে। এই মুহূর্তে ডিএসকে শিবাজিয়ান্সের হয়ে খেলছেন সুব্রত এবং যথেষ্ট ভালো ফর্মেও রয়েছেন।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন