তামিলনাড়ু: ২১৭ (দীনেশ কার্তিক ১১৭, শামি ৪-২৬), বাংলা: ১৮০ (সুদীপ ৫৮, ক্রাইস্ট ২-২৩)

নয়াদিল্লি: বারবার তিন বার। বিজয় হাজারে ট্রফির ফাইনালে বাংলার গাঁট হিসেবেই থাকল তামিলনাড়ু। ২০০৯, ২০১০-এর পর এ বারও বিজয় হাজারে ট্রফির ফাইনালে তামিলনাড়ুর কাছে হেরে গেল বাংলা।

সোমবার, ফাইনালে একার হাতেই হারিয়ে দিলেন দীনেশ কার্তিক। তামিলনাড়ুর তোলা ২১৭ রানের মধ্যে ১১৭ রানই তাঁর। এ দিন শুরুতে বিপক্ষ শিবিরে ঝড় বইয়ে দেন অশোক দিন্দা। প্রথম স্পেলেই তিনটে উইকেট তুলে নেন দিন্দা। অন্য দিকে কুম্বলের নির্দেশে বাংলা দলে প্রত্যাবর্তন ঘটানো মহম্মদ শামিও তাঁর সেরা ফর্মের ঝলক দেখাচ্ছিলেন। তবে বাংলার আক্রমণকে বিশেষ তোয়াক্কা না করেই দুর্দান্ত ব্যাট করেছেন দীনেশ কার্তিক। কার্তিকের ব্যাটিং তাণ্ডবে একটা সময় আড়াইশো পেরিয়ে যাওয়ার ইঙ্গিত দিচ্ছিল তামিলনাড়ু। কিন্তু তা হতে দেননি শামি। আট ওভার দু’বল হাত ঘুরিয়ে ২৬ রান দিয়ে চার উইকেট নেন শামি।

গত দু’টো ম্যাচে যে ভাবে ব্যাট করেছে বাংলা দল তাতে ২১৮-এর টার্গেটটি খুব একটা শক্ত মনে হয়নি। দরকার ছিল ভালো একটা শুরুর। এখানেই ব্যর্থ তারা। চার রানের মাথায়ই দু’উইকেট পড়ে যায় বাংলার। দলের স্কোর যখন ৩৭, ফিরে যান শ্রীবৎসও। দলের স্কোর যখন ৬৮, চার নম্বর উইকেট খোয়ায় বাংলা। আউট হন মনোজ। এখান থেকে একটা পালটা লড়াইয়ের চেষ্টা করেছিলেন সুদীপ চট্টোপাধ্যায় এবং অনুষ্টুপ মজুমদার। দু’জনের মধ্যে ৬৫ রানের পার্টনারশিপও তৈরি হয়। কিন্তু অনুষ্টুপ ফিরে যেতেই তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে বাংলার ব্যাটিং। টেল-এন্ডারদের নিয়ে বেশিক্ষণ লড়াই চালাতে  পারেননি সুদীপও। আউট হন ৫৮ রানে। ১৮০ রানে অল আউট হয় বাংলা। ৩৭ রানে ম্যাচ জিতে যায় নারায়ণস্বামী শ্রীনিবাসনের রাজ্য দল। 

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন