three golden girls
রাজ্যের মন্ত্রী শ্যামল সাঁতরার সঙ্গে সোনাজয়ী তিন কন্যা। নিজস্ব চিত্র।
ইন্দ্রাণী সেন

বাঁকুড়া: সোনাজয়ী তিন সোনার মেয়েকে বরণ করে নিল কোতুলপুর। শিবানী ক্ষেত্রপাল, নমিতা সাঁতরা, রূপসা দে-র সোনা জয়ের খবর কিছু দিন আগেই পেয়েছেন জেলাবাসী। বৃহস্পতিবার তাদের বাড়ি ফেরার অপেক্ষায় ছিল কোতুলপুরের মানুষ।

উল্লেখ্য, কেরলের তিরুঅনন্তপুরমের জিমি জর্জ ইনডোর স্টেডিয়ামে গত ১ সেপ্টেম্বর থেকে ৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত অনুষ্ঠিত এগারোতম জাতীয় অ্যাক্রোবেটিক জিমন্যাস্টিকস চ্যাম্পিয়নশিপের ট্রাইও ইভেন্টে দলগত ভাবে সোনা জেতে বাংলা থেকে চ্যাম্পিয়ন হয়ে যাওয়া কোতুলপুরের দিনমজুর বাড়ির তিন সোনার মেয়ে।

বৃহস্পতিবার নিজেদের বাড়ি কোতুলপুরে পা রাখার সঙ্গে সঙ্গেই এলাকার মানুষ উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়েন। কোতুলপুরের প্রাণকেন্দ্র নেতাজি মোড়ে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন বিবেকানন্দ ক্লাব ও স্থানীয় নেতৃত্ব। তিন সোনাজয়ীর সঙ্গে সঙ্গেই তাদের প্রশিক্ষকদের ও বরণ করে নেন সকলে। পরে কোতুলপুর থানার পক্ষ থেকে তিনজনকে সন্মাননা প্রদান করা হয়। শুক্রবার ওই তিন কন্যাকে সম্মাননা প্রদান করা হয় রাজ্যের মন্ত্রী শ্যামল সাঁতরার পক্ষ থেকে।

এরা প্রত্যেকেই কোতুলপুরের বাঁকুড়া ডিস্ট্রিক্ট জিমন্যাস্টিকস অ্যাসোসিয়েশন বিবেকানন্দ ক্লাবের শিক্ষার্থী। তাদের প্রশিক্ষক কৃষ্ণা দত্ত বলেন, অধ্যবসায়, সাহস আর পরিশ্রমের জেরেই স্বর্ণপদক লাভ করেছে তাঁর শিক্ষার্থীরা। তাদের এই সাফল্যে খুশি এলাকার মানুষ। স্থানীয় শিক্ষক গয়াসুর রায় বলেন, অত্যন্ত গর্বের বিষয়। খুব ভালো লাগছে। পরবর্তীকালে পাশে থাকার আশ্বাসও দেন তিনি। এ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন কোতুলপুরের পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি প্রবীর গড়াই প্রমুখ।

এত কিছুর পরেও তিন সোনাজয়ী মেয়ের একটা চিন্তা তাদের তাড়া করে বেড়াচ্ছে। সামনেই আরো বড় প্রতিযোগিতা। আগামী ১২ নভেম্বর আজারবাইজানে বিশ্ব মিটে যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে তাদের। আদৌ কি তারা এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে পারবে? চিন্তায় পরিবারের লোকজন।

একই সাথে বিবেকানন্দ ক্লাবের প্রশিক্ষক ড. সদানন্দ ভদ্রও ছাত্রীদের স্বপ্নপূরণের জন্য সাহায্যের আবেদন জানিয়েছেন সকলের কাছে।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন