কলকাতা: সেই ১৯৯০ সাল। কলম্বিয়া বনাম পশ্চিম জার্মানি ম্যাচ। হেরে গেলে গ্রুপ লিগ থেকে বিদায়। ৮৮ মিনিটে গোল করে এগিয়ে গেল জার্মানরা। বিদায় যখন নিশ্চিত, ঠিক তখনই, ম্যাচের শেষ মুহূর্তে মাঝমাঠ থেকে রিঙ্কনকে ঠিকানা লেখা পাস দিয়েছিলেন তিনি। যা থেকে গোল হয়েছিল, টিকে গেছিল কলম্বিয়া। সেই তখন থেকেই তো তিনি বাঙালির মনের মণিকোঠায়। চুল?  সে তো অনেকেরই নানারকম থাকে, কিন্তু ওই পাস ক’জন পারে দিতে!

সেই ভালদেরামা শুক্রবার দিনটা সস্ত্রীক কলকাতায় কাটালেন। অনূর্ধ্ব ১৭ বিশ্বকাপ ফুটবলের প্রচারে ভারতে এসেছেন এই ফিফা কিংবদন্তি। কলকাতায় না আসলে চলে!‍

ইকো স্পেসে স্পোর্টস মিউজিয়াম দেখছেন ভালদেরামা।  ছবি: রাজীব বসু

প্রথমে গেলেন নিউটাউনের ইকো স্পেসে স্পোর্টস মিউজিয়ামে। তারপর চলে এলেন মোহনবাগান মাঠে। খেলোয়াড়দের সঙ্গে সময় কাটালেন, কর্তার থেকে জার্সি নিলেন।

এরপর গন্তব্য ছিল ইডেন। সেখানে দেখা আরেক কিংবদন্তির সঙ্গে। বাংলার কিংবদন্তি। সৌরভ গাঙ্গুলি। ভালদেরামাকে কিছুটা সময় দাঁড় করিয়ে রাখলেন সৌরভ, বিরক্ত হল একমাথা সোনালি চুল। শেষ পর্যন্ত দেখা হল ওদের। মিউজিয়মে আগেই দেখা হয়েছিল, এবার চাক্ষুস।

কত যে দৃশ্যের জন্ম হল। কলকাতা সমৃদ্ধ হল আরও এবার।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন