কলকাতা: আইএসএল-এর ধাক্কায় গত তিন বছরের সাজানো বাগান এবার তছনছ। আই লিগ জয়ী, ফেডারেশন কাপ জয়ী দলের বেশিরভাগ ফুটবলার এবার পেশাদারিত্বের অমোঘ টানে নাম লিখিয়েছেন ইন্ডিয়ান সুপার লিগে। নাম লেখানোর পথে রয়েছেন আরও কয়েকজন। কিন্তু ২-৩ বছরের সম্পর্কের আবেগ কি শেষ করে দিতে পারে পেশাদারিত্ব? না, পারেনি।

আরও পড়ুন: রিলায়েন্স, আলট্রাটেক-কে টেক্কা দিয়ে মোহন-ইস্টের স্পনসর হওয়ার লড়াইয়ে বহু সংস্থা

তিন বছর আগে সঞ্জয় সেন মোহনবাগানের দায়িত্ব নিয়ে ফুটবলারদের একসূত্রে বেঁধে রাখার জন্য তৈরি করেছিলেন একটি হোয়াটস অ্যাপ গ্রুপ। নাম দিয়েছিলেন ‘মোহনবাগান ফ্যামিলি’। এর মাঝে কিছু ফুটবলার মোহনবাগান ছেড়েছেন, নতুন ফুটবলার এসেছেন। সেই মতো ওই গ্রুপের সদস্য সংখ্যা কমেছে, বেড়েছে। কিন্ত মোটর ওপর বড়ো ভাঙন আসেনি পরিবারে।

এবার এসেছে। অনেক ফুটবলারই ছেড়ে দিয়েছেন দল। কিন্তু গ্রুপ থেকে সরে যাননি কেউই। তিন বছরের সম্পর্কটা নিছক পেশাদারিত্বের টানে ভেঙে দিতে রাজি নন তাঁরা। ফলে গ্রুপটা অটুট রয়েছে। দল ছেড়ে যাওয়া, থেকে যাওয়া সকলেই সেখানে কথা চালাচালি করেন। আড্ডা মারেন। বন্ধুত্বের টান, একসঙ্গে ২-৩টে বছর কাটানোর টান এমনই।

পেশাদারিত্ব মানেই আবেগহীন, কাঠখোট্টা একটা বিষয়, এই ধারণা ভেঙে দিয়েছেন গত তিন বছরের সাজানো বাগানের ফুলগুলো। নাকি, এও পেশাদারিত্বেরই অন্য রূপ। যেখানে পেশাগত সিদ্ধান্ত, ব্যক্তিগত সম্পর্কে বাধা হয়ে দাঁড়ায় না।

যে সম্পর্ক থেকে তৈরি হয়ে যেতে আগামী দিনের নতুন কোনো পেশাদারি সিদ্ধান্ত।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন