Connect with us

রবিবারের পড়া

রবিবারের পড়া: সাহিত্যসম্রাট বঙ্কিমচন্দ্রের সংগীতজ্ঞান / পর্ব ১

তপন মল্লিক চৌধুরী

গভীর রাত্রে জগৎসিংহের সঙ্গে গোপন সাক্ষাতে গড় মান্দারণ থেকে শৈলেশ্বর মন্দিরে চলেছেন বিমলা, সঙ্গে গজপতি বিদ্যাদিগ্‌গজ। রূপসী বিমলাকে ওই রাত্রে মুগ্ধ করতে বিগলিত দিগ্‌গজ গান গাইতে শুরু করে, ‘সই, কি ক্ষণে দেখিলাম শ্যামে কদম্বেরি ডালে।/সেই দিন পুড়িল কপাল মোর-/কালি দিলাম কুলে’। এই গানের সূত্র ধরে সংগীতনিপুণা বিমলা স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে গান গেয়ে উঠলে বিদ্যাদিগ্‌গজের আর গান গাওয়া হয় না, কারণ সে ‘বীণাশব্দবৎ মধুর সঙ্গীতধ্বনি’ শুনে মন্ত্রমুগ্ধ হয়ে পড়ে। গান শেষ হলে সে বিমলাকে একটি বাংলা গান গাওয়ার আনুরোধ করে।

নিজের প্রথম উপন্যাস ‘দুর্গেশনন্দিনী’র প্রথম খণ্ড পঞ্চদশ পরিচ্ছেদে বঙ্কিমচন্দ্র সংগীতের এমনই এক সুন্দর আবহ রচনা করেছিলেন। সে কালে প্রচলিত কায়স্থ কমলাকান্তের রূপ-অভিসারের পদ ‘কি ক্ষণে শ্যামাচাঁদের রূপ নয়নে লাগিল’ অথবা বেলডাঙার রূপচাঁদ অধিকারীর ঢপকীর্তন ‘কি রূপ দেখিনু কদম্বমূলে/কলিন্দ নন্দিনীর কূলে’ ইত্যাদি বাংলা গানের আদলে বঙ্কিম যে গীতিকাব্য রচনা করেছিলেন তা গজপতি বিদ্যাদিগ্‌গজের পক্ষে যেমন খুবই মানানসই ছিল তেমনই বঙ্কিমের সংগীতপ্রীতি-সহ তাঁর গান রচনার দক্ষতাও স্পষ্ট হয়। অন্য দিকে বিমলার গান শেষ হওয়ার পর গজপতি বিদ্যাদিগ্‌গজ যখন ‘একটি বাংলা গাও’ বলে অনুরোধ করে তখন বুঝতে অসুবিধা হয় না যে বিমলা শুদ্ধ কোনো হিন্দুস্তানি রাগসংগীত গেয়েছিলেন। বিমলা যে শাস্ত্রীয়সংগীত জানতেন সে কথা আমরা জানতে পারি ‘দুর্গেশনন্দিনী’ উপন্যাসের দ্বিতীয় খণ্ড সপ্তম পরিচ্ছেদে। সেখানে বিমলা জগৎসিংহকে তাঁর লেখা একটি চিঠিতে জানিয়েছেন, তিনি ছিলেন মানসিংহের মহিষী, জগৎসিংহের বিমাতা ঊর্মিলা দেবীর সহচারিণী দাসী, যিনি বিমলাকে দাসী নয় সহোদরা বোনের মর্যাদা দিতেন। বিমলাকে নানা বিদ্যায় শিক্ষিত করেছিলেন এবং তাঁরই ইচ্ছায় বিমলা নাচ ও গানের তালিম নিয়েছিলেন। বিমলার গানে মুগ্ধ হয়েছিলেন নবাব কতলু খাঁ। মৃত্যুর আগে বিমলার গান শুনে তাঁর মনে হয়েছিল, ‘এ কি মানুষের গান, না সুররমণী গায়?’

আরও পড়ুন রবিবারের পড়া: চলছে নির্বিচার বৃক্ষনিধন, মানুষ হচ্ছে প্রকৃতি-বিচ্ছিন্ন

গীতিকার হিসাবে বঙ্কিমের সম্যক পরিচয় মেলে ‘মৃণালিনী’ উপন্যাসে। এই উপন্যাসে মোট বারোটি গান আছে, এর মধ্যে মাত্র দু’টি গান উপন্যাসের নায়িকা ‘মৃণালিনী’-র গলায় আর বাকি দশখানি গান গেয়েছেন গিরিজায়া। এই গিরিজায়া ‘মৃণালিনী’ উপন্যাসে প্রথম আবির্ভূত হন প্রথম খণ্ড তৃতীয় পরিচ্ছেদে। গিরিজায়া আসলে ভিখারিনি বেশে দূতী। গিরিজায়া প্রথম গান গায়; এক দিকে কানু ও রাই, অন্য দিকে হেমচন্দ্র ও মৃণালিনী। গিরিজায়া গেয়ে চলে, ‘মথুরাবাসিনি, মধুরহাসিনি, শ্যামবিলাসিনি-রে।/কহ লো নাগরি, গেহ পরিহারি, কাঁহে বিবাসিনি-রে’। গিরিজায়ার কণ্ঠে এই গান শুনে মৃণালিনীর এতই ভালো লাগে যে সে দ্বিতীয় বার গিরিজায়াকে গানটি গাওয়ার অনুরোধ করে। দ্বিতীয় বার গান শেষ হলে মৃণালিনী গিরিজায়াকে জিজ্ঞাসা করে, “তুমি গীত সকল কোথায় পাও?” গিরিজায়া জানায়, “যেখানে যা পাই তাই শিখি”।

গিরিজায়া মারফত বঙ্কিম আমাদের ফের জানিয়ে দেন যে হাটে-মাঠে-বাটে গান গেয়ে ফেরা বৈষ্ণব-বৈষ্ণবীরা চিরকালই বাংলার সেরা গান সংগ্রাহক। লক্ষণীয় এই গানের ভাষা ব্রজবুলি ভাষায় এই গানের রচয়িতা বঙ্কিম, ‘মৃণালিনী’ উপন্যাসে তিনি ওই ভাষায় কেবল একটি নয় আরও বেশ কয়েকটি গান লিখেছেন। প্রসঙ্গত বঙ্কিমের ‘মৃণালিনী’ যখন প্রকাশিত হয় তখন রবীন্দ্রনাথ আট বছরের বালক। তার মানে ভানুসিংহ নন, বঙ্কিমই ব্রজবুলি ভাষাকে বাংলা সাহিত্যে নতুন ভাবে ব্যবহার করার অগ্রপথিক। গানটির ফুটনোটে আছে ‘এই গীত ঢিমে তেতালা তাল যোগে জয়জয়ন্তী রাগিণীতে গেয়’।

‘মৃণালিনী’ উপন্যাসে একের পর এক গান এসেছে নানা অনুষঙ্গে। ‘যমুনার জলে মোর, কি নিধি মিলিল।/ঝাঁপ দিয়া পশি জলে, যতনে তুলিয়া গলে,/পরেছিনু কুতুহলে, যে রতনে’। গিরিজায়ার কণ্ঠে এ গানে হেমচন্দ্র ও মৃণালিনীর পরিচয়, অনুরাগ ও শেষে আকস্মিক বিচ্ছেদের কথাই যেন ফুটে উঠছে। ব্রজবুলি ভাষায় রচিত আরেকখানি গান, ‘ঘাট বাট তট মাঠ ফিরি ফিরনু বহু দেশ।/কাঁহা মেরে কান্ত বরণ, কাঁহা রাজবেশ’। ব্রজবুলি ভাষায় রচিত গিরিজায়ার গাওয়া এই গানও যে  মৃণাল-হারা হেমচন্দ্রের উদভ্রান্ত দশার কথা বলেছে সেটা বুঝতে অসুবিধে হয় না।

কেবল ব্রজবুলি ভাষায় পদাবলি ঢঙে রাগাশ্রয়ী গান তো নয়, বাংলার নিজস্ব ধ্রুপদী গানের অন্য ধারারও দেখা মেলে উপন্যাসের দ্বিতীয় খণ্ডের তৃতীয় পরিচ্ছেদে। যখন গিরিজায়া ও মৃণালিনী একটি ছোটো নৌকায় চড়ে নদীতে ভেসে চলেছে, তখন তাদের কথোপকথনের মধ্যে যে গানের কলিগুলি বিনিময় হয় তা তো আসলে একটি কীর্তনের আসর। এই পরিচ্ছেদের প্রথম গান, ‘চরণতলে দিনু হে শ্যাম পরাণ রতন/দিব না তোমারে নাথ মিছার যৌবন’। দ্বিতীয় গান, ‘সাধের তরণী আমার কে দিল তরঙ্গে।/কে আছে কান্ডারি হেন কা যাইবে সঙ্গে’।

সংগীতপ্রেমী বঙ্কিম বাংলার নিজস্ব ধ্রুপদী সংগীত কীর্তনের প্রতি বিশেষ আগ্রহী ছিলেন। সেই আগ্রহ থেকে তিনি সংগ্রহ করতেন বৈষ্ণব গীতিপদ, তাঁর নিজস্ব সংগ্রহে ছিল বহু কীর্তন গান। ‘ক্যালকাটা রিভিউ’ পত্রিকায় ১৮৭১ সালের ১০৪ সংখ্যায় ‘বেঙ্গলি লিটারেচার’ শীর্ষক প্রবন্ধেও তিনি  বাংলার নিজস্ব ধ্রুপদী সংগীত কীর্তন প্রসঙ্গ উল্লেখ করেছেন। বঙ্কিমের সংগীতপ্রীতি কেবল কীর্তন গানে সীমাবদ্ধ ছিল না, তিনি বাউল গানেরও একজন মুগ্ধ শ্রোতা ছিলেন। ‘মৃণালিনী’ উপন্যাসে তাঁর নিজস্ব ভাষাশৈলীতে যেমন কীর্তনাঙ্গের গান বেঁধেছেন, পাশাপাশি ‘সাধের তরণী আমার কে দিল তরঙ্গে’র মতো যে গান রচনা করেছেন তাতে লালন বিরচিত ‘চাতক স্বভাব না হলে…’ কিংবা লালন-শিষ্য গোঁসাই গোপালের ‘না জেনে অকুল পাথারে ভাসালাম তরী’ ইত্যাদির প্রভাব লক্ষ করা যায়।

আরও পড়ুন রবিবারের পড়া: একটি বিপর্যয় ও দেব-রথের সারথি

১৮ শতকের শেষ দিক থেকেই বাংলার উত্তর-পূর্ব প্রান্তে লালনের সহজিয়া গান ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে। কর্মজীবনের শুরুতে ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট বঙ্কিমকে ঘুরতে হয়েছিল যশোর, খুলনার গ্রামেগঞ্জে। গানের টানে বঙ্কিমও কি সেই মাটিতে পা রেখেছিলেন, মাতোয়ারা হয়েছিলেন একতারার সহজ সুরধ্বনিতে? তাঁর সঙ্গে কি লালন ফকিরের দেখা হয়েছিল? এখনও পর্যন্ত তেমন কোনো তথ্যপ্রমাণ মেলেনি তবে বঙ্কিম যে কীর্তনের মতো বাউল গানেরও ভক্ত ছিলেন তাতে সংশয় নেই। হয়তো বঙ্কিম কীর্তনের মতো বাউল গানেরও সংগ্রাহক ছিলেন।

‘মৃণালিনী’ ছাড়াও কীর্তনের আসর বসতে দেখা যায় ‘বিষবৃক্ষ’ উপন্যাসে; সপ্তম পরিচ্ছেদে, এখানে আসর অনেক বেশি জমজমাট। ‘কথা কইতে যে পেলাম না—দাদা বলাই সঙ্গে ছিল—কথা কইতে যে’ তুলসির মালা পরা, কপালে তিলককাটা বৈরাগীর দলকে মৃদঙ্গ বাজিয়ে নগেন্দ্র দত্তের ঠাকুরবাড়িতে যেমন গাইতে দেখি, তেমনই বৈষ্ণবীদেরও রসকলি কেটে খঞ্জনীর তালে গাইতে দেখা যায় ‘মধো কানের’ বা ‘গোবিন্দ অধিকারীর’ গীত। এর পর নবম পরিচ্ছেদে শোরগোল তুলে নিজের উপস্থিতি জানান দিয়ে আবির্ভুত হয় হরিদাসী বোষ্টমী। হরিদাসী ভেকধারী, জাল বোষ্টমী, আসলে দেবেন্দ্র দত্ত, নগেন্দ্রর অন্তঃপুরে প্রবেশের জন্য ছদ্মবেশ ধারণ করেছিল। গিরিজায়ার মতো সে নয়, কিন্তু তার ঝুলিতে বঙ্কিম ভরে রাখেন আঠারো শতকের শেষপাদ ও উনিশ শতকের বাংলা গানের নমুনা। এক এক করে হরিদাসী পেশ করে সেই সব গান। কুন্দনন্দিনীর উদ্দেশে হরিদাসী প্রথমে কীর্তন, ‘শ্রীমুখপঙ্কজ—দেখবো বলে হে,/ তাই এসেছিলাম এ গোকুলে।/আমায় স্থান দিও রাই চরণতলে’। এর পর ঢপ, ‘আয়রে চাঁদের কণা/তোরে খেতে দিব ফুলের মধু, পরতে দিব সোনা’। এর পর দেবেন্দ্র বা হরিদাসী আরো প্রগলভ হয়ে ওঠে, ‘কাঁটাবনে তুলতে গেলাম কলঙ্কের ফুল,/গো সখি কাল কলঙ্কেরি ফুল’। জাল বোষ্টমী চরিত্র বোঝাতে বঙ্কিম উচ্চাঙ্গের কীর্তন যেমন রেখেছেন তেমনই হাজির করেছেন বাগানবাড়ির গান, গোপাল উড়ের টপ্পার ধাঁচে লঘু গান ইত্যাদি। (চলবে)

রবিবারের পড়া

রবিবারের পড়া ২: অমলাশঙ্কর বেঁচে থাকবেন তাঁর সৃজনশীলতার মধ্যে

ঘুমের মধ‍্যে রানির মতো চলে গেলেন পরম আত্মীয়ের কাছে।

papiya mitra
পাপিয়া মিত্র

ভোরের আলো ফোটার আগেই একটা যুগের অবসান। ঘুমের মধ‍্যে রানির মতো চলে গেলেন পরম আত্মীয়ের কাছে। শতায়ু নৃত্যশিল্পী বার্ধক‍্যজনিত কারণেই ইহলোক ত‍্যাগ করলেন শুক্রবার ভোররাতে।

ব্যবসার কাজে বিদেশে যাওয়ার জন্য বাবা অক্ষয়কুমার নন্দী যদি তাঁকে সঙ্গে না নিতেন, তা হলে তাঁর জীবন কোন দিকে বয়ে যেত বলা মুশকিল। বারো বছরের মেয়েকে নিয়ে প্যারিস যাওয়ার যে পরিকল্পনা করেছিলেন তিনি, তা এক সময়ে মহার্ঘ পিতৃ-আশীর্বাদ বলেই ভেবেছিলেন তিনি। তিনি নৃত্যশিল্পী অমলাশঙ্কর চৌধুরী, আমাদের সকলের অত্যন্ত শ্রদ্ধার অমলাশঙ্কর (Amala Shankar)।

সময়টা ১৯৩১। প্যারিসের ‘ইন্টারন্যাশনাল কলোনিয়াল এক্সপোজিশন’ থেকে আমন্ত্রণ এল বাবার কাছে। তাঁর অলংকারের কারখানা ‘ইকোনমিক জুয়েলারি ওয়ার্ক্স’-এর স্টল হবে সেখানে। সেই সূত্রে ফ্রান্সে যাওয়া। ছোট্ট অমলা আত্মহারা। যখন শুনল শহরের বোয়া দে ভান সাঁ বা ভানসার বন নামে একটি বনের ভেতরে প্রদর্শনীটি হবে এবং সেখানে নাচগানও হবে, তখন স্বাভাবিক ভাবেই আরও উৎফুল্ল হয়ে উঠেছিল কিশোরী অমলা। সেই প্রদর্শনীতে ভারতীয় নৃত্য পরিবেশনের দায়িত্বে ছিলেন মাদাম নিয়তা নিয়কা। অমলা তখন নাচের কিছুই জানত না। বাবার উৎসাহে সেই অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়া এবং নিয়তাই তৈরি করে নিলেন অমলাকে।

১৯৩১ স্মরণীয় হয়ে রইল আরও এক কারণে। সেই প্রদর্শনীতে নৃত্য পরিবেশনের জন্য আমন্ত্রিত ছিলেন আরও এক ভারতীয়, উদয়শঙ্কর। লোকমুখে জানা হয়ে গিয়েছিল, তিনিও একই জেলার লোক, বাবার বিশেষ পরিচিত ও বিশ্ববিখ্যাত নর্তকী আনা পাভলোভার সঙ্গে ইউরোপ ও আমেরিকায় নৃত্য পরিবেশন করে যশস্বী হয়েছেন। ভারতবর্ষকে গৌরবান্বিত করেছেন।

উদয়শঙ্কর ও অমলাশঙ্কর।

উদয়শঙ্কর – নাম শুনে মনে হল প্রবীণ এক দিকপাল প্যারিসে অবসর যাপন করতে এসেছেন। কিন্তু প্রদর্শনীতে তাঁদের প্যাভেলিয়নের সামনের সারিতে ষোলো আনা সাহেবি পোশাক পরিহিত সেই বাঙালিকে দেখে ধারণা পালটাল। সেই সঙ্গে সে দিনের কিশোরীর মনে একটা সুরও গেঁথে গেল। এত দিন তো পুরুষচিত্র বলতে মনের মধ্যে গাঁথা হয়ে গিয়েছিল কৃষ্ণ, অর্জুন আর রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর।  

শঙ্কর পরিবারের অনেকেই থাকতেন প্যারিসে। অক্ষয়বাবুর সঙ্গে কথা বলে অমলা ও তাঁকে তাঁদের বাড়িতে আসার নিমন্ত্রণ করে গেলেন উদয়শঙ্কর। প্যারিসের বাড়িতে অমলাকে পেয়ে উদয়ের মা হেমাঙ্গিনী দেবীর মহা আনন্দ। সে দিন হেমাঙ্গিনীর রান্না করা চচ্চড়ি, মাংস আর পোলাও খেয়েছিলেন অমলা। আর খেলার সঙ্গী হিসাবে পেয়েছিলেন রবিকে, মানে রবিশঙ্করকে।

শঙ্করদের প্যারিসের বাড়িতে প্রায়ই যেতেন অমলা। একদিন রবির সঙ্গে খেলছেন, এমন সময় উদয়শঙ্করের ডাক। অমলাকে একটা মুদ্রা দেখিয়ে নাচতে বললেন। অমলাও তৎক্ষণাৎ দেখিয়ে দিলেন। উদয় দেখে বুঝেছিলেন, নাচ অমলার রক্তে আছে। এ ভাবেই নৃত্যে হাতেখড়ি অমলার, ‘বড়দা’ উদয়শঙ্করের কাছে। খেলার ছলে নাচ তোলা হতে লাগল অনায়াসে।

ঠিক হল ইউরোপের নানা জায়গায় নাচের অনুষ্ঠান করা হবে। আর অমলার বাবাও ঠিক করেছিলেন ইউরোপের সব শিল্পকেন্দ্রগুলি মেয়েকে ঘুরিয়ে দেখাবেন। ১৯৩১-এর ২৯ ডিসেম্বর – শুরু হল ইউরোপ-যাত্রা, শুরু হল অমলার নৃত্যজীবনের যাত্রাও। ১৬ জনের দলে ছিলেন আরও দুই ভাই, তিন বাদ্যযন্ত্রশিল্পী – সুরশিল্পী তিমিরবরণ, অন্নদাচরণ এবং পশ্চিম ভারতীয় যুবক বিষ্ণুদাস শিরালি। মহিলা অধ্যক্ষ ছিলেন শিল্পকলাবিদ সুইৎজারল্যান্ডের মিস আলিস বোনর। দলে এসে অমলার নতুন নাম হল অপরাজিতা। ইউরোপ ঘুরে এসে সেই কিশোরী লিখে ফেলেন ‘সাত সাগরের পারে’ নামে এক ভ্রমণের বই। অস্ট্রিয়া থেকে বাল্টিকের লিথুয়ানিয়া, জার্মানির সুলৎজবার্গ, ফ্রান্সের টুলোঁ, সুইডেনের মালমো, নরওয়ের অসলো, ফিনল্যান্ডের হেলজিৎ ফোর্স, বেলজিয়ামের লিজ্‌ – কোথায় না ঘুরে ফেলল ছোট্ট অমলা।

নৃত্যের তালে তালে

ইতিমধ্যে নৃত্যশিক্ষা চলতে লাগল উদয়শঙ্করের হাত ধরে। ‘কালীয়দমন’ দিয়ে মঞ্চে প্রবেশ। অমলা কালীয়, উদয়শঙ্কর কৃষ্ণ। বিদেশিরা অভিভূত নাচ দেখে। আট মাসের সেই সফরে ভারতবর্ষের সংস্কৃতির শ্রেষ্ঠত্ব বিদেশিদের কাছে তুলে ধরলেন তাঁরা। এ দিকে মনের পুরুষচিত্র ধীরে ধীরে বাস্তবে পরিণত হচ্ছে। কষ্ট করে জীবনের পথ খুঁজতে হল না। নৃত্যশৈলী দেখিয়ে দিল কোনটা অমলার পথ। উদয়শঙ্করের হাত ধরেই পথ এসে মিশে গেল অমলার পথে। এ যেন হর-পার্বতীর মিলন।

বছর ষোলো বয়স। ম্যাডান থিয়েটার তথা এলিট সিনেমাহলে ‘কার্তিকেয়’ দেখতে গিয়ে মনের মানুষের খোঁজ যেন আরও ভালো করে পেলেন অমলা, কার্তিকেয়রূপী উদয়শঙ্করকে দেখে। বিদেশ সফরে উদয়শঙ্কর একটি ফোর্ড গাড়ি উপহার পেয়েছিলেন। সেই গাড়িতে অমলা-সহ কয়েক জনকে নিয়ে কলকাতা থেকে দেহরাদুন হয়ে আলমোড়া যাওয়া উদয়শঙ্করের। অমলার কাছে এ যাত্রার স্বাদ ছিল আলাদা। বিচিত্র অনুভূতি – রোমান্সের সঙ্গে মিশে আছে লজ্জা, ভয়, দ্বিধা। বিত্তশালী, অসামান্য মেয়েরা উদয়ের জন্য পাগল। আর সেখানে অমলা তো একরত্তি মেয়ে। তবে জোর ছিল এক জায়গায়। যে দু’-একটি বই কিনে অমলাকে  দিয়েছিলেন, তাতে লেখা ছিল – উইথ লাভ, উদয়শঙ্কর। কত বার বই খুলে সেই নাম দেখা – উদয়শঙ্কর। একদিন মেঘ না চাইতেই জল এসে পড়ল কপালে। উদয়শঙ্কর জানালেন, ম্যাটিনি শো-তে মেট্রো হলে ছবি দেখতে যাওয়ার কথা। অমলার পথ যেন আরও মসৃণ হল।             

বাবা অক্ষয়কুমার নন্দীর সঙ্গে সেই আমলের বহু গুণীজনের ভালো আলাপ ছিল। তাঁদের মধ‍্যে ছিলেন সংগীতবিশারদ বিখ্যাত দিলীপকুমার রায়। অমলার নাচ দেখে প্রশংসা করে জানালেন, এ মেয়ে নাচ করে হৃদয় দিয়ে। ওঁরই উৎসাহে সুরেন্দ্রনাথ বন্দ‍্যোপাধ‍্যায়ের বাড়িতে একদিন নাচের আয়োজন করা হল। দেখতে এলেন সুভাষচন্দ্র বসুও। খদ্দরের শাড়ি পরা অমলার নাচ দেখে খুব খুশি সুভাষ। অক্ষয়বাবুকে প্রস্তাব দিলেন আলমোড়ায় উদয়শঙ্করের সেন্টারে অমলাকে পাঠিয়ে দিতে। উদয়শঙ্করের গুণমুগ্ধ ছিলেন সুভাষ, অথচ কেউ কাউকে কোনওদিন দেখেননি। উদয়শঙ্কর সম্পর্কে সুভাষ বলতেন, আই অ্যাম অ্যান আরডেন্ট অ্যাডমায়ারার অফ দিস ম‍্যান। সুভাষ যখন অসুস্থ হয়ে ভিয়েনায় ছিলেন তখন সেখানে উদয়শঙ্করের শো চলছিল। সেই সময় সেখানকার পত্রপত্রিকায় উদয়শঙ্করের কথা তিনি পড়েছিলেন।

সুভাষচন্দ্রের প্রস্তাবে অমলার মন নেচে উঠল। কিন্তু বাধ সাধলেন অক্ষয়বাবু। বিশেষ আমল দিলেন না সেই প্রস্তাবে। লেখালেখিতেই মন দেওয়ার কথা বললেন অমলাকে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সুভাষচন্দ্রের হস্তক্ষেপেই আলমোড়ায় ‘শঙ্কর ইন্ডিয়া কালচার সেন্টার’-এ  অমলার যাওয়া। সময়টা ১৯৩৯। আলমোড়ার শিক্ষাকেন্দ্রে ১৪টি বাংলো ছিল। তখন সেখানে ছিলেন সিমকি, জোহরা মমতাজ, উজরা বেগম। আলমোড়ার অনাবিল প্রাকৃতিক ঐশ্বর্য আর শিল্পচর্চার আদর্শ ক্ষেত্র অমলাকে নিবিড় করে প্রশিক্ষিত করে তুলল। এক বছর টানা প্রশিক্ষণ চলল নৃত‍্যের সঙ্গে ধৈর্যের, সহ‍্যের, শারীরিক ক্ষমতার, খাঁটি ভারতীয় মেয়ের প্রতিনিধিত্ব করার যোগ্যতা কতটুকু ইত‍্যাদির। সেই সময় একদিন বলেছিলেন, তিনি সাত ঘাটের জল খেয়েছেন, গঙ্গাজলের স্বাদ কী তা তিনি জানেন। মনের মধ‍্যে শ্রদ্ধা আর অনুরাগ নিয়ে প্রশিক্ষণ চলতে লাগল।

সপরিবার – পুত্র আনন্দ, কন্যা মমতা আর স্বামী উদয়শঙ্করের সঙ্গে।

ইতিমধ্যে মনে মনে ভালোলাগা আর ভালোবাসার পর্ব শুরু হয়ে গিয়েছে নিজেদের অজান্তেই। প্রেম তো বলে কয়ে আসে না। উদয় চিঠি লিখলেন অক্ষয়কুমারকে। তিনি রাজি ছিলেন না। কিন্তু আলাউদ্দিন খাঁ সাহেবের মধ‍্যস্থতায় বিয়ে পরিপূর্ণ রূপ পেল ১৯৪২-এ।

১৯৪৮-এ উদয়শঙ্কর পরিচালিত ‘কল্পনা’ ছবিতে উমা চরিত্রে অভিনয় করলেন অমলাশঙ্কর। এর পরে এগিয়ে যাওয়া। কী সাংসারিক ক্ষেত্রে কী কর্মক্ষেত্রে। পুত্র আনন্দ ও কন‍্যা মমতার মা হয়ে গেলেন। পাশাপাশি এক দক্ষ প্রশিক্ষক হয়ে উঠলেন নৃত‍্যশিল্পে। স্বামী উদয়শঙ্করের সৃষ্টি করা কাজকে ফিরিয়ে এনেছিলেন মঞ্চে। সামান্য ক্ষতি, ছায়ানৃত‍্য মহামানব, মেশিনড‍্যান্স, স্নানাম, গ্রামীণ নৃত‍্য, অস্ত্রপূজা, কার্তিকেয়, রামলীলা সহ নানা কৃষ্টি। অমলাশঙ্কর নিজে মঞ্চায়ন করেছিলেন পুত্র আনন্দশঙ্করের সুরপ্রয়োগে সীতা স্বয়ম্ভরা, যুগচন্দ্র। এ ছাড়াও বাসবদত্তা, চিদাম্বরা, চিত্রাঙ্গদা, কালমৃগয়া – সবেতেই শঙ্কর ঘরানার নৃত‍্যকৌশলের উপস্থিতি যা দর্শকদের  মনে স্থায়ী জায়গা করে নিয়েছিল। আজও আমরা তার প্রতিচ্ছবি পাই যোগ্য উত্তরসূরিদের নৃত্য পরিবেশনের মধ্যে।

অমলাশঙ্কর নিজে শুধু শিল্পী ছিলেন না, ছিলেন এক পূর্ণ মা। শিল্পী হয়েও যিনি বহু ছাত্রছাত্রী ও নিজের শাখাপ্রশাখার মধ্যে ছড়িয়ে দিতে পেরেছেন শঙ্কর ঘরানাকে। মঞ্চ ও পোশাকের উৎকর্ষ নিয়ে প্রতিনিয়ত পরীক্ষানিরীক্ষা চালাতেন।১৯৯১-এ পদ্মভূষণে ভূষিত হন অমলাশঙ্কর। ২০১২-তে কান্ ফেস্টিভ‍্যালে আবার  উপস্থিত ছিলেন তিনি। ছেলেবেলাতেও সব চেয়ে কনিষ্ঠ সদস্য হিসেবে ওই উৎসবে তাঁর উপস্থিতি সেই সময়ে অনেকের নজর কেড়েছিল।

১৯১৯-এর ১৭ জুন যশোরে জন্ম হয়েছিল অমলা নন্দীর। গত মাসেই উদযাপন করেছিলেন নিজের জন্মের ১০১ বছর। তার মাস খানেক পরেই চলে গেলেন চির ঘুমের দেশে। শিল্পীর মৃত্যু নেই। অমলাশঙ্কর বেঁচে থাকবেন তাঁর সৃজনশীলতার মধ্যে, বেঁচে থাকবেন তাঁর পরবর্তী প্রজন্মের মধ‍্যে।

উদয়শঙ্কর ও অমলাশঙ্কর অভিনীত ছবি কল্পনা

Continue Reading

রবিবারের পড়া

রবিবারের পড়া ১: ১১ বছর আগের পুরো ক্লাসটাই উঠে এল হোয়াটসঅ্যাপে, স্মৃতি রোমন্থনে বন্ধুরা

শ্রয়ণ সেন

বর্তমানে এরা বিভিন্ন জায়গায় সুপ্রতিষ্ঠিত। কিন্তু ১১ বছর আগে এরা ছিল সদ্য তারুণ্যের দিকে পা বাড়ানো এক দল কিশোর-কিশোরী। বলা বাহুল্য, কিশোরী অনেক বেশি, কিশোর হাতে গোনা কয়েক জন।

করোনাভাইরাস ঠেকাতে কারা যেন ‘সামাজিক দূরত্বের’ কথা বলে! এই শব্দবন্ধটা যে সম্পূর্ণ ভুল, তা বুঝিয়ে দিল ১১ বছর আগে স্কুলজীবন শেষ করা সেই কিশোর-কিশোরীরা। ২০০৯-এ শেষ হওয়া গোটা ক্লাসটাই উঠে এল হোয়াটসঅ্যাপে। ‘শারীরিক দূরত্ব’ বজায় থাকলেও নিজেদের মধ্যে তৈরি হল ‘সামাজিক বন্ধন।’

হ্যাঁ, এই প্রতিবেদকও সেই হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপের সদস্য। কারণ সে-ও যে তখন ওই ক্লাসে পড়ত। একাদশ আর দ্বাদশ শ্রেণির স্মরণীয় দু’টো বছর চরম আনন্দ করে কাটিয়েছিল সেও।

কিছু দিন আগেই এই প্রতিবেদকের এক সহপাঠিনী ফেসবুকে তাদের স্কুলজীবনের শেষ দিনের ছবি পোস্ট করে। ছবিগুলোর মধ্যে নিজেকে খুঁজতে গিয়েই চমকে যায় সে।

ছবিটা দেখে নিজেকে চিনতে বেশ বেগ পেতে হচ্ছিল তার। ছবিটায় তার অনেক বন্ধুকে ট্যাগ করা হল। একটা পুনর্মিলনের আবহ তৈরি হল।

ছোটো থেকে সিবিএসই স্কুলে পড়েছে সে। তাই তার কাছে ক্লাস ১০-এর বোর্ড পরীক্ষা হল আদতে মাধ্যমিক পরীক্ষা। পরীক্ষায় তার নম্বর খারাপ হয়নি। তবুও সুযোগ থাকা সত্বেও সে সায়েন্স না নিয়ে আর্টস বেছে নিয়েছিল।

ছোটো থেকেই আর্টসের প্রতি তার বেশি আগ্রহ। আর্টসকে ভিত্তি করেই সে জীবনে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার স্বপ্ন দেখল। তবে তার জন্য তাকে অন্য লোকের কথাও শুনতে হয়েছিল।

আর্টসে মেয়েরা বেশি পড়ে, ছেলে হয়ে সে যেন একা না হয়ে পড়ে, এমন কথা অনেকেই বলেছিল তাকে। বলতে দ্বিধা নেই কিছুটা নিরুৎসাহ করার জন্য এই কথাগুলো অনেক ক্ষেত্রে বলা হয়েছে।

তার ক্লাসে মেয়েরাই বেশি ছিল, বলাই বাহুল্য। একাদশ শ্রেণিতে ৬ জন ছেলে থাকলেও, দ্বাদশে সেটা আরও কমে চার জনে নেমে এল। ক্লাসে নারী-পুরুষের অনুপাত ১:১০ হয়ে গেল। প্রতি দশ জন মেয়েতে একজন করে ছেলে। মানে ক্লাসে মোট ৪৪ জনের মধ্যে ৪০ জন ছিল মেয়ে, চার জন ছিল ছেলে। এর মধ্যে একটা ছেলে আবার সুযোগ পেলেই ডুব মারত।

ক্লাসে এই ১:১০ অনুপাত কি ছেলেদের কিছুটা ব্যাকফুটে রেখে দিয়েছিল? একদমই না। এই দু’টো বছর এই প্রতিবেদকের স্কুলজীবনের সেরা বছর ছিল নিঃসন্দেহে।

পড়াশোনার চাপ ছিল ভালোই, সেই সঙ্গে ছিল শিক্ষক-শিক্ষিকাদের স্নেহ। তাদের আশীর্বাদ ছিল, ছিল বকুনিও। এই সবই ছিল জীবনে বড়ো হওয়ার ক্ষেত্রে পাথেয়।

পড়াশোনা যেমন চলত, তেমন সুযোগ পেলে বন্ধুদের সঙ্গে খুনসুটিও লেগে থাকত সমান তালে। একজন ছেলে তো আসতই না প্রায় স্কুলে। কিন্ত বাকি তিন জন ছেলে অর্থাৎ সে নিজে, অর্ণব আর শুভম নিজেদের মধ্যে খুব মজা করে কাটিয়েছে।

ওদের ঠিক পেছনের বেঞ্চেই বসত সুকন্যা, অভিরূপা, স্পৃহা, দেবদত্তা। ওদের সঙ্গে খুনসুটি লেগেই থাকত। খুনসুটির ব্যাপারগুলো বেশিমাত্রায় অবশ্য অর্ণব করত। এ ছাড়া অঙ্কিতা, পায়েল, গায়েত্রী, শ্রেয়সী, অরুণিমারাও খুব ভালো বন্ধু হয়ে উঠেছিল।

স্কুলজীবনে অর্ণব খুব প্রাণচঞ্চল ছিল। এখনও রয়েছে অবশ্য। ভারতের ক্রিকেট ম্যাচ থাকলে ও রেডিও নিয়ে আসত স্কুলে। টিফিনের সময়ে ছেলেরা চলে যেত পেছনে একটা ঘরে। ও রেডিও চালিয়ে দিত।  

টিফিন টাইমে ওই ঘরে সায়ান্স আর কমার্স স্ট্রিম থেকে বেশ কয়েক জন আসত। এক সঙ্গে হইহই করে টিফিন খেতে খেতে খেলার রিলে শোনা হত। টিফিনের পর আবার ক্লাস শুরু।

এই অর্ণবের জন্যই একটা মারাত্মক দুষ্টুমি এই প্রতিবেদক শিখেছিল ক্লাস ১২-এ উঠে। ওদের ভূগোল ল্যাবটা ছিল চার তলায়। তিন তলায় নিজেদের ক্লাসরুম থেকে ভূগোল ক্লাসের সময়ে রোজ ওই ল্যাবে যেতে হত। ল্যাবের ঠিক পাশেই লিফ্ট। স্বাভাবিক ভাবেই ওই লিফ্টে চড়ার অনুমতি ছিল না ছাত্রছাত্রীদের।

অর্ণবের মাথায় একটি কুবুদ্ধি এল। ও রোজ ভূগোল ল্যাবে ঢোকার আগে লিফ্টের সুইচটা টিপে দিত। বলা নেই, কওয়া নেই, ফাঁকা লিফ্ট নীচ থেকে চার তলায় উঠে আসত। এই ব্যাপারটায় বেশ মজা লাগত।

তার পর এক দিন সব শেষ হল।

দিনটা ছিল ২০ ডিসেম্বর ২০০৮। স্কুলজীবনের শেষ দিন। বড্ড মন খারাপের দিন। সকাল সাড়ে সাতটায় স্কুলে পৌঁছেই বোঝা গেল মুডটা পুরো অন্য রকম।

আন্টিরা বলেই দিয়েছিলেন কোনো ক্লাস হবে না, এমনকি প্রথম বারের মতো সে দিনই স্কুলে মোবাইল নিয়ে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। সবার চোখ জলে ভরে আসছে। জানি না আসন্ন পরীক্ষার পর আবার কবে আমাদের দেখা হবে। একে অপরকে জড়িয়ে ধরে কান্নাকাটি। এই সময়টা তো আর ফিরবে না।

প্রথমে ক্লাসরুমের ভেতর, তার পর স্কুলের চাতালে খুব হইহল্লা হল। তার পর স্কুল শেষে গেটের বাইরে বেরিয়ে ফোটোসেশন। সেই ছবিগুলোই গত সপ্তাহে ফুটে উঠল ফেসবুকের দেওয়ালে।

স্কুল শেষ হওয়ার পরের বেশ কয়েকটা বছর অনেকেই অনেকের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছিল। দু’এক জনের সঙ্গে দু’এক জনের সম্পর্ক থাকলেও, মোটের ওপরে গোটা ক্লাসটা বিচ্ছিন্নই হয়ে গিয়েছিল।

এর পর কলেজজীবন। সেটা পেরিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাধা টপকে সবাই এখন জীবনে প্রতিষ্ঠিত। ক্লাসের অনেকেই এখন স্কুল বা কলেজের শিক্ষিকা হয়েছে। কেউ ট্র্যাভেল এজেন্সিতে কাজ করছে, কেউ আরও পড়াশোনা করে পিএইচডি করছে, কেউ গৃহকর্মে নিপুণা, অনেকেই মা হয়েছে, কেউ পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছে সাংবাদিকতাকে। কেউ বলিউডের একজন অতিপরিচিত গায়েকের সাগরেদ হয়েছে।  

তবে সবার শিকড় তো একটা জায়গাতেই। বিডি মেমোরিয়াল ইন্সটিটিউট, বর্তমানে যা বিডিএম ইন্টারন্যশনাল হিসেবে পরিচিত। সবার জীবনে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পেছনে এই প্রতিষ্ঠানের অবদান অনস্বীকার্য।  

সোশ্যাল মিডিয়ার খারাপ দিক হয়তো আছে, কিন্তু ঠিকঠাক ব্যবহার করলে তার ভালো দিক আরও অনেক বেশি। আজ থেকে কুড়ি বছর আগে এমনটা হলে পুরোনো বন্ধুদের খুঁজে পেতে হয়তো সাংঘাতিক বেগ পেতে হত। কিন্তু বর্তমানে ফেসবুকের যুগে সেটা আর কোনো সমস্যাই নয়।

গত রবিবার, অর্থাৎ ১৯ জুলাইয়ের কথা। এই প্রতিবেদকই ফেসবুকে তার স্কুলজীবনকে স্মরণ করে একটা লেখা লিখল। সেই লেখা যে তার বন্ধুদের মধ্যে এমন আবেগের বিচ্ছুরণ ঘটাবে সে আন্দাজ করতেই পারেনি। গোটা দিন ধরে স্কুলজীবনের স্মৃতি রোমন্থন করে গেল তার বন্ধুরা। কিন্তু আসল ঘটনা ঘটল ওই দিন রাতে।

তৈরি হয়ে গেল হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ। ‘১১-১২ আর্টস ২০০৯ ব্যাচ’। অবশ্য এই গ্রুপ তৈরি করার পেছনে প্রতিবেদকের প্রাক্তন সহপাঠী বাদশাহর সব থেকে বড়ো অবদান। বলিউড গায়কের সাগরেদ সে-ই। থাকে মুম্বইয়ে। কিন্তু এখনও নিজের শিকড় ভোলেনি।

বাদশাহরই ইচ্ছা ছিল আবার সব বন্ধুর সঙ্গে পুনরায় আলাপ করবে। সেই ইচ্ছা থেকেই এই গ্রুপের আত্মপ্রকাশ। ব্যাচের অনেক বন্ধুকেই ওই গ্রুপের সদস্য করা হল। তবে এখনও সবাইকে সদস্য করা যায়নি। ৪৪ জনের মধ্যে সবে ৩০ জন সদস্য হয়েছে। বাকিদেরও গ্রুপে নিয়ে আসার চেষ্টা চলছে।

করোনাভাইরাসের বাড়বাড়ন্ত ঠেকাতে বিভিন্ন রূপে লকডাউন চলছে। কোথাও খুব কড়া, খুব হালকা। কিন্তু চাকুরিরত অনেকেরই এই সময়টা এক রকমই চলছে। সব কিছুই বাড়ি বসে।

শিক্ষিকারাও বাড়ি বসে অনলাইন ক্লাস করছেন, যারা পড়াশোনা করছে, তারাও বাড়ি বসে। তথ্যপ্রযুক্তি ক্ষেত্রে কর্মরত যারা, তারাও বাড়ি বসে কাজ করছে। বাড়িতে বসে টানা কাজের ফলে মানসিক ভাবে যে চাপ তৈরি হচ্ছে, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

এই পরিস্থিতিতে এই গ্রুপটাই যেন একটা অক্সিজেন। সারা দিনের কাজের ধকল মিটিয়ে ওই গ্রুপে গিয়ে আড্ডাটা সবার কাছেই উপভোগ্য। পুরোনো দিনের স্মৃতি রোমন্থন তো থাকেই, সেই সঙ্গে আরও অনেক আড্ডায় মেতে ওঠে বন্ধুরা।

ঠিক এই কারণেই লকডাউনটা তাদের কাছে একটা আশীর্বাদ হয়ে এসেছে। হয়তো করোনার ভয়াবহ পরিস্থিতি তৈরি না হলে কেউ স্কুলজীবনের কথা ভাবতই না। আর তখন হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপের প্রয়োজনীয়তাই থাকত না।

যা-ই হোক, এই গ্রুপ তো হল। গ্রুপে আড্ডাও হচ্ছে রোজ। কিন্তু এখানেই তো থেমে থাকা যায় না। বন্ধুরা তাই পরিকল্পনা করছে, করোনা অতিমারির শেষে একটা গ্র্যান্ড পুনর্মিলনের আয়োজন করবে, সে কলকাতাতেই হোক বা দু’ দিনের জন্য বাইরে কোথাও।

ওই যে বললাম না ‘সামাজিক দূরত্ব’ শব্দটা কতটা ভুল। এই বন্ধুরাই প্রমাণ করে দিল, নিজেদের মধ্যে ‘শারীরিক দূরত্ব’ যতটাই থাক, সামাজিক ভাবে তারা আবার ঐক্যবদ্ধ হয়েছে, ঠিক ১১ বছর আগের মতো।

Continue Reading

রবিবারের পড়া

রবিবারের পড়া: মাহেশের জগন্নাথ মন্দির ও নয়নচাঁদ মল্লিক

পুরীর শ্রীশ্রীজগন্নাথদেবের মন্দিরের অনুকরণে ১৭৫৫ খ্রিস্টাব্দে নয়নচাঁদ মল্লিক হুগলি জেলার মাহেশে জগন্নাথ মন্দির নির্মাণ করান।

শুভদীপ রায় চৌধুরী

হুগলি জেলার শ্রীরামপুরের অন্তর্গত মাহেশের খ্যাতি তার  জগন্নাথ মন্দির ও রথযাত্রার জন্য হলেও এই স্থান খুবই প্রাচীন।  মাহেশ গ্রামের উল্লেখ প্রথম পাওয়া যায় পঞ্চদশ শতাব্দীর কবি বিপ্রদাস পিপলাইয়ের ‘মনসামঙ্গল’ কাব্যে। সেই কাব্যে তদবর্ণিত সময়কাল সম্ভবত ১৪৯৫ সাল। তবে মাহেশের রথযাত্রা তারও প্রাচীন। মাহেশের বর্তমান মন্দিরটি নির্মিত হয়েছিল ১৭৫৫ সালে। সেই মন্দির নির্মাণের খরচ বহন করেন কলকাতার বড়োবাজার অঞ্চলের মল্লিক পরিবারের নয়নচাঁদ মল্লিক মহাশয়। ভারতবর্ষের দ্বিতীয় প্রাচীনতম জগন্নাথমন্দির ও মল্লিক বংশের কিছু তথ্যই এই নিবন্ধে লিপিবদ্ধ করলাম।

দানবীর নিমাইচরণ মল্লিক কলকাতার বড়োবাজারের মল্লিক বংশে জন্মগ্রহণ করেছিলেন আনুমানিক ১৭৩৬সালে। এই পরিবারের মূল উপাধি ‘দে’, পরবর্তী কালে মল্লিক উপাধি প্রাপ্ত হন। এই বংশের স্বনামধন্য পুরুষ বনমালী মল্লিক তাঁর জমিদারির মধ্যে কাঁচড়াপাড়ার কাছে জনসাধারণের সুবিধার জন্য একটি খাল কাটান। সেই খাল এখনও মল্লিকদের খাল নামে প্রসিদ্ধ। সেই বনমালী মল্লিকের পুত্র বৈদ্যনাথ মল্লিক শ্রীশ্রীসিংহবাহিনী দেবীকে পেয়েছিলেন এবং এই মূর্তিপ্রাপ্তির পরই তাঁর বংশের শ্রীবৃদ্ধি ঘটতে শুরু করে।

নিমাইচরণের পিতামহ দর্পনারায়ণ মল্লিক ও নিমাইচরণের পিতার নাম নয়নচাঁদ মল্লিক। নয়নচাঁদ অত্যন্ত দানশীল ব্যক্তি ছিলেন। কলকাতার বড়োবাজারের একটি পাকা রাস্তা তৈরি করে সাধারণ মানুষের জন্য ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানিকে দান করেন। নয়নচাঁদ মল্লিক ছিলেন ইংরাজি, বাংলা ও ফারসি, এই তিন ভাষায় বিজ্ঞ। পিতার মৃত্যুর পর নিমাইচরণ মল্লিক প্রায় ৪০ লক্ষ টাকা পেয়েছিলেন।  নিজের প্রতিভাবলে নিমাইচরণ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির আমলে বিশাল খ্যাতি লাভ করেন এবং একজন প্রসিদ্ধ সওদাগর ও ব্যাঙ্কার হিসাবে পরিচিতও হয়েছিলেন।

পুরীর শ্রীশ্রীজগন্নাথদেবের মন্দিরের অনুকরণে ১৭৫৫ খ্রিস্টাব্দে নয়নচাঁদ মল্লিক হুগলি জেলার মাহেশে জগন্নাথ মন্দির নির্মাণ করান। মন্দিরের উচ্চতা প্রায় ৭০ ফুট এবং মন্দিরের বিগ্রহ জগন্নাথদেব, বলভদ্র ও সুভদ্রাদেবী। মন্দির ও সেই মন্দিরের সেবায়েতগণের বসতি নিয়ে প্রায় তিন বিঘা জমির ওপর নির্মিত এই মন্দির।

মাহেশের রথযাত্রা শুরু করার ক্ষেত্রে এক বহু প্রাচীন ইতিহাস রয়েছে। বস্তুত পক্ষে বর্তমানে মাহেশ এখন বঙ্গের রথযাত্রা উৎসবের কেন্দ্রস্থল হিসাবে পরিচিত এবং ভারতবর্ষের দ্বিতীয় প্রাচীনতম রথ, পুরীর পরেই।

সন্ন্যাসী-সাধক শ্রী ধ্রুবানন্দ ব্রহ্মচারী একবার পুরীর রথযাত্রায় গিয়েছিলেন। সেখানে গিয়ে তাঁর নিজের হাতে ভোগ রান্না করে জগন্নাথদেবকে নিবেদন করবেন। কিন্তু মন্দিরের পুরোহিতরা তাঁর এই ইচ্ছাকে বাস্তবায়িত হতে দেননি। ধ্রুবানন্দ মনঃকষ্টে ভেঙে পড়ায় জগন্নাথদেব তাঁকে মাহেশে আসার নির্দেশ দিলেন এবং প্রভুর কথা মতন তিনি মাহেশে উপস্থিত হলেন। একদিন গঙ্গার ধারে ধ্রুবানন্দ বসে দেখলেন গঙ্গায় নিমকাঠ ভেসে আসছে। সেই নিমকাঠ দিয়েই তৈরি হল মাহেশের জগন্নাথ, বলভদ্র ও সুভদ্রাদেবী। তার পর ১৩৯৭ সালে মাহেশের প্রাচীন মন্দিরে প্রতিষ্ঠিত হলেন তিন বিগ্রহ।

নবরত্ন মন্দিরের আদলে মাহেশের রথ।

কিন্তু মাহেশের সেই প্রাচীন মন্দির আজ আর নেই। সেই স্থানেই ২০,০০০ টাকা খরচ করে বড়োবাজারের মল্লিক বংশের নয়নচাঁদ মল্লিক মন্দির নির্মাণ করালেন।

ঠাকুরের নিত্যভোগরাগে সাড়ে বারো সের চালের অন্ন নিবেদন করা হয়। নিত্য ভোগের জন্য নিমাই মল্লিকের দান বার্ষিক ১৯২ টাকা ও রামমোহন মল্লিকের ট্রাস্ট ফান্ডের দান ১৫০টাকা। খিচুড়ি ভোগের জন্য নিমাই মল্লিকের স্বতন্ত্র দান ছিল বার্ষিক ৪৩৬ টাকা। বর্তমানে মল্লিক পরিবারের পক্ষ থেকে মাহেশের জগন্নাথদেবের সেবাপুজোর জন্য আরও বেশি অর্থ প্রদান করা হয়।

নিমাইচরণ মল্লিকের কনিষ্ঠপুত্র মতিলাল মল্লিক গঙ্গার ধারে সুদৃশ্য রাসমঞ্চ তৈরি করে দিয়েছিলেন। মতিলালের পোষ্যপুত্র যদুলাল মল্লিক রাসযাত্রার সময় মাহেশে গিয়ে প্রচুর অর্থ দান করতেন। রথ, স্নানযাত্রা, দোল, ঝুলন ও রাস মাহেশে বিখ্যাত। সমস্ত কিছু উৎসবের মধ্যেও মাহেশের রথে ভক্তদের ভিড় দেখার মতন।

মাহেশের রথে চেপে জগন্নাথ তাঁর দুই ভাই বোনকে নিয়ে মাসির বাড়ির উদ্দেশে রওনা হন রথযাত্রার দিন এবং উল্টোরথের দিন ফিরে আসেন নিজ মন্দিরে। তার পর তিন বিগ্রহকে রথ থেকে নামিয়ে মন্দিরে পুনরায় বসানো হয়।

মাহেশের রথযাত্রাকে কেন্দ্র করে বিশাল মেলার আয়োজন করা হয়। ১৩৯৭ সাল থেকে মাহেশের রথ অপরিবর্তিত থাকলেও চারশো বছর পর অর্থাৎ ১৭৯৭ সালে শ্রীরামকৃষ্ণশিষ্য বলরাম বসুর পিতামহ কৃষ্ণরাম বসু রথ তৈরির জন্য অর্থ দান করেছিলেন। তাঁর পুত্র গুরুপ্রসাদ বসু রথের সংস্কার করান ১৮৩৫ সালে। কিন্তু সেই রথ আগুন লেগে নষ্ট হয়ে গেলে কালাচাঁদ বসু রথ নির্মাণ করান ১৮৫২সালে। সেই রথের ভেতরে  একটি আত্মহত্যার ঘটনা ঘটলে বিশ্বম্ভর বসু ১৮৫৭ সালে আরও একটি রথ নির্মাণ করে দিয়েছিলেন। কিন্তু সেই রথও টিকল না। বিশ্বম্ভরবাবুর নির্মিত রথও পুড়ে যায়। তার পর আসে বর্তমান রথটি। মার্টিন বার্ন কোম্পানিকে দিয়ে সেই তৈরি করান দেওয়ান কৃষ্ণচন্দ্র বসু। লোহার রথটি আজও অটুট। ৪৫ ফুট উচ্চতার রথ বাংলার নবরত্ন মন্দিরের আদলে তৈরি।

এই রথটি তৈরি করতে প্রায় ২০ লক্ষ টাকা ব্যয় হয়েছিল। ঐতিহ্যপূর্ণ মাহেশের রথযাত্রা দর্শন করতে এসেছিলেন শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণ পরমহংসদেব, শ্রী মা সারদাদেবী, গিরিশচন্দ্র ঘোষ প্রমুখ মহাপুরুষরা। বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের ‘রাধারাণী’ উপন্যাসের পটভূমি ছিল এই মাহেশের রথ। আজ প্রায় ৬২৫ বছর ধরে মাহেশের রথযাত্রা উৎসব পালিত হয়ে আসছে মহাসমারোহে, যদিও এ বছর করোনার কারণে রথ না বেরোলেও পুজো হয়েছে সব কিছু নিয়ম মেনেই।

Continue Reading
Advertisement

বিশেষ প্রতিবেদন

Advertisement
manyata dutt
বিনোদন1 hour ago

আমরা জানি, আমরাই জয়ী হব, যেমন সবসময় হয়েছি! বললেন সঞ্জয় দত্তের স্ত্রী মান্যতা

অনুষ্ঠান2 hours ago

‘এএস ইভেন্ট ‘-এর আয়োজন ট্যালেন্ট হান্ট ‘লকডাউন সুপার কিডস ২০২০’, দেখা যাবে অনলাইনে

রাজ্য2 hours ago

রাজ্যে নতুন কোভিড-আক্রান্তের সংখ্যায় বজায় রইল স্থিতিশীলতা, আরও বাড়ল সুস্থতার হার

দেশ2 hours ago

কেন্দ্রীয় আয়ুষমন্ত্রী করোনা পজিটিভ

শিক্ষা ও কেরিয়ার3 hours ago

উচ্চ মাধ্যমিকের পরে : গ্রাফিক ডিজাইনের অনলাইন ফ্রি কোর্স, পর্ব ১

দঃ ২৪ পরগনা3 hours ago

রাতের অন্ধকারে সারমেয়কে কোপ ধারালো অস্ত্রের, অভিযোগ জয়নগর থানায়

শিল্প-বাণিজ্য4 hours ago

আধার লিঙ্ক থাকলে এ বার পোস্ট অফিসের সেভিংস অ্যাকাউন্টেও ঢুকবে সরকারি ভরতুকি

দেশ4 hours ago

কাশ্মীর প্রশ্নে বিরোধ, ঋণ আর তেল, পাকিস্তানকে দু’টোই দেওয়া বন্ধ করল সৌদি

কেনাকাটা

কেনাকাটা6 days ago

ঘর ও রান্নাঘরের সরঞ্জাম কিনতে চান? অ্যামাজন প্রাইম ডিলে রয়েছে ৫০% পর্যন্ত ছাড়

খবরঅনলাইন ডেস্ক : অ্যামাজন প্রাইম ডিলে রয়েছে ঘর আর রান্না ঘরের একাধিক সামগ্রিতে প্রচুর ছাড়। এই সেলে পাওয়া যাচ্ছে ওয়াটার...

কেনাকাটা6 days ago

এই ১০টির মধ্যে আপনার প্রয়োজনীয় প্রোডাক্টটি প্রাইম ডে সেলে কিনতে পারেন

খবরঅনলাইন ডেস্ক : চলছে অ্যামাজনের প্রাইমডে সেল। প্রচুর সামগ্রীর ওপর রয়েছে অনেক ছাড়। ৬ ও ৭  তারিখ চলবে এই সেল।...

কেনাকাটা7 days ago

শুরু হল অ্যামাজন প্রাইম ডে সেল, জেনে নিন কোন জিনিসে কত ছাড়

খবরঅনলাইন ডেস্: শুরু হল অ্যামাজন প্রাইম ডে সেল। চলবে ২ দিন। চলতি মাসের ৬ ও ৭ তারিখ থাকছে এই অফার।...

things things
কেনাকাটা2 weeks ago

করোনা আতঙ্ক? ঘরে বাইরে এই ১০টি জিনিস আপনাকে সুবিধে দেবেই দেবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনা পরিস্থিতিতে ঘরে এবং বাইরে নানাবিধ সাবধানতা অবলম্বন করতেই হচ্ছে। আগামী বেশ কয়েক মাস এই নিয়মই অব্যাহত...

কেনাকাটা2 weeks ago

মশার জ্বালায় জেরবার? এই ১৪টি যন্ত্র রুখে দিতে পারে মশাকে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: একে করোনা তায় আবার ডেঙ্গুর প্রকোপ শুরু হয়েছে। এই সময় প্রতি বারই মশার উৎপাত খুবই বাড়ে। এই বারেও...

rakhi rakhi
কেনাকাটা3 weeks ago

লকডাউন! রাখির দারুণ এই উপহারগুলি কিন্তু বাড়ি বসেই কিনতে পারেন

সামনেই রাখি। কিন্তু লকডাউনের মধ্যে মনের মতো উপহার কেনা একটা বড়ো ঝক্কি। কিন্তু সেই সমস্যা সমাধান করতে পারে অ্যামাজন। অ্যামাজনের...

কেনাকাটা3 weeks ago

অনলাইনে পড়াশুনা চলছে? ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ৪০ হাজার টাকার নীচে ৬টি ল্যাপটপ

ইনটেল প্রসেসর সহ কোন ল্যাপটপ আপনার অনলাইন পড়াশুনার কাজে লাগবে জেনে নিন।

কেনাকাটা3 weeks ago

করোনা-কালে ঘরে রাখতে পারেন ডিজিটাল অক্সিমিটার, এই ১০টির মধ্যে থেকে একটি বেছে নিতে পারেন

শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা বুঝতে সাহায্য করে এই অক্সিমিটার।

কেনাকাটা4 weeks ago

লকডাউনে সামনেই রাখি, কোথা থেকে কিনবেন? অ্যামাজন দিচ্ছে দারুণ গিফট কম্বো অফার

খবরঅনলাইন ডেস্ক : সামনেই রাখি। কিন্তু লকডাউনের মধ্যে দোকানে গিয়ে রাখি, উপহার কেনা খুবই সমস্যার কথা। কিন্তু তা হলে উপায়...

laptop laptop
কেনাকাটা4 weeks ago

ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ২৫ হাজার টাকার মধ্যে এই ৫টি ল্যাপটপ

খবরঅনলাইন ডেস্ক : কোভিভ ১৯ অতিমারির প্রকোপে বিশ্ব জুড়ে চলছে লকডাউন ও ওয়ার্ক ফ্রম হোম। অনেকেই অফিস থেকে ল্যাপটপ পেয়েছেন।...

নজরে

Click To Expand