Connect with us

রবিবারের পড়া

রবিবারের পড়া: বাংলাভাষার শিল্প-সাহিত্যে হাংরি আন্দোলন

Published

on

শুভদীপ রায় চৌধুরী

বাংলা শিল্প-সাহিত্যে স্থিতাবস্থা ভাঙার যে আন্দোলন সংঘটিত হয়েছিল তার নামই হাংরি আন্দোলন। এই আন্দোলনের প্রথম বুলেটিন ইংরাজিতে প্রকাশিত হয়, কারণ পাটনায় সেই সময় বাংলা প্রেস পাওয়া যায়নি। আন্দোলনের কেন্দ্রবিন্দুতে ছিলেন মলয় রায় চৌধুরী এবং সমীর রায় চৌধুরী – এঁরা দু’জনেই সাবর্ণ রায় চৌধুরী পরিবারের সুসন্তান। আন্দোলনের পর্যালোচনা করার আগে তাঁদের সম্পর্কে বা রায় চৌধুরী পরিবারের সম্পর্কে কিছু বলা যাক।

সাবর্ণ রায় চৌধুরী পরিবারের নাম কলকাতা-সহ বঙ্গের ইতিহাসে খুবই গুরুত্বপূর্ণ, কারণ জাহাঙ্গীরের আমলে এই পরিবারের সুসন্তান রায় লক্ষ্মীকান্ত মজুমদার চৌধুরী পেয়েছিলেন বিশাল অঞ্চলের জমিদারি আর তখন থেকেই শুরু রায় চৌধুরী পরিবারের যাত্রাপথ। সমীর রায় চৌধুরী এবং মলয় রায় চৌধুরী সাবর্ণদের উত্তরপাড়া শাখার সদস্য। সেই অঞ্চলের ‘সাবর্ণ ভিলা’র অস্তিত্ব বর্তমানে নেই ঠিকই, কিন্তু ইতিহাসের পাতায় এই ভিলার নাম স্বর্ণাক্ষরে লিখিত।

Loading videos...
সমীর রায় চৌধুরী।

উত্তরপাড়া অঞ্চলে রায় চৌধুরী পরিবারের উল্লেখযোগ্য নিদর্শন মা মুক্তকেশী কালীমন্দির প্রতিষ্ঠা থেকে শুরু করে বিশাল অট্টালিকা নির্মাণ (নির্মাণ করেছিলেন রত্নেশ্বর রায় চৌধুরী)। এই উত্তরপাড়া শাখায় সমীর রায় চৌধুরী এবং মলয় রায় চৌধুরী ছাড়াও ছিলেন আরও একজন কুলতিলক যোগীন্দ্রনাথ রায় চৌধুরী, পরবর্তীকালে স্বামী যোগানন্দ, যিনি ছিলেন মা সারদার প্রথম মন্ত্রশিষ্য এবং শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণদেবের পার্ষদদের অন্যতম।

আমাদের হাংরি আন্দোলনের হোতা মলয় রায় চৌধুরীর জন্ম ২৯ অক্টোবর ১৯৩৯ সালে এবং তাঁরই দাদা সমীর রায় চৌধুরী জন্মগ্রহণ করেছিলেন ১৯৩৩ সালের ১ নভেম্বর। দু’ জনেই বাংলা সাহিত্য জগতের বিতর্কিত কবি, ছোটোগল্পকার, ঔপন্যাসিক। আবার এই দু’ জনই ১৯৬০-এর দশকে হাংরি আন্দোলনের জনক, অর্থাৎ তথাকথিত বাংলা সাহিত্যে প্রতিষ্ঠানবিরোধিতার জনক ছিলেন। ১৯৬১ সালে আন্দোলনের প্রথম ইস্তাহার বা বুলেটিন প্রকাশিত হয় পাটনা থেকে। গোড়ার দিকে  আন্দোলনে ছিলেন চার সদস্য – সমীর রায় চৌধুরী, মলয় রায় চৌধুরী, শক্তি চট্টোপাধ্যায় এবং দেবী রায়। আন্দোলন চলেছিল ১৯৬৫ সাল অবধি। তার পর থেকে এই আন্দোলনের প্রভাব ফুরিয়ে যেতে থাকে।

দেবী রায়।

কিন্তু আন্দোলনের নাম হাংরি কেন? কোথা থেকে পাওয়া এই নাম? বলা বাহুল্য সমীর রায় ও মলয় রায়ের ঠাকুমা ছিলেন অপূর্বময়ী দেবী এবং তাঁর ভাই ছিলেন সাহিত্যিক ত্রৈলোক্যনাথ মুখোপাধ্যায়। ছোটো থেকেই সাহিত্যচর্চার প্রতি দুই ভাইয়ের  নজর ছিল প্রবল। সেই কারণে মলয় রায় চৌধুরীর বন্ধু সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়, শক্তি চট্টোপাধ্যায়রা নিয়মিত আসতেন উত্তরপাড়ায় সাবর্ণদের ভিলাতে।

এই ভিলাতেই সপরিবার ভাড়ায় থাকতেন ‘ছোটো ফণি’ – ফণী গাঙ্গুলি। আবার এই সাবর্ণ ভিলাতেই সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় খুঁজে পেয়েছিলেন তাঁর ‘নীরা’ চরিত্রকে। সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের প্রথম বই ‘এক এবং কয়েকজন’ প্রকাশ করেছিলেন সমীর রায় চৌধুরী। মলয় রায় চৌধুরীর কৈশোর আর যৌবন কেটেছে পাটনা ও চাইবাসায়। তাঁদের বাবা রঞ্জিত রায় চৌধুরী (১৯০৯-১৯৯১) ছিলেন বিখ্যাত ভারতীয় চিত্রশিল্পী আর তাঁদের পিতামহ লক্ষ্মীনারায়ণ রায় চৌধুরী ছিলেন ভারতবর্ষের প্রথম ভ্রাম্যমাণ আলোকচিত্রশিল্পী। প্রসঙ্গত এই ‘হাংরি’ কথাটি মলয়বাবু খুঁজে পেয়েছিলেন জিওফ্রে চসারের ‘ইন দি সাওয়ার হাংরি টাইম’ কাব্যছত্রটি থেকে। সেখান থেকেই তিনি এই ‘হাংরি’ কথাটি ব্যবহার করেছিলেন, অর্থাৎ তাঁর ইচ্ছা ছিল বাংলা শিল্প-সাহিত্যকে বাঁচানোর জন্য কিছু একটা করার।

১৯৬১ সাল থেকে ১৯৬৫ সাল অবধি যে আন্দোলন চলেছিল তা বাংলা-সহ ভারতবর্ষের বিভিন্ন প্রান্তে সাড়া ফেলেছিল। তরুণ প্রজন্মের সাহিত্যিকরা দলে দলে যুক্ত হয়েছিলেন এই হাংরি আন্দোলনে। তাঁদের মধ্যে বিনয় মজুমদার, সন্দীপন চট্টোপাধ্যায়, উৎপলকুমার বসু, সুবিমল বসাক, বাসুদেব দাশগুপ্ত, ফাল্গুনী রায়, রবীন্দ্র গুহ, অরুপরতন বসু, সতীন্দ্র ভৌমিক, করুণানিধান মুখোপাধ্যায়, মনোহর দাশ, যোগেশ পাণ্ডা, অজিতকুমার ভৌমিক প্রমুখ উল্লেখযোগ্য। এই চার বছর ধরে হাংরি আন্দোলন নিয়ে শতাধিক বুলেটিন প্রকাশিত হয়েছিল এবং তা সাড়া ফেলেছিল গোটা ভারতবর্ষে।

এই হাংরি আন্দোলনের বুলেটিন কেমন ছিল? কী কী লেখা থাকত? কী ভাবে প্রকাশিত হত? কে কে দায়িত্বে ছিলেন? বহু প্রশ্নই মনের মধ্যে আসছে। আগেই উল্লেখ করেছি ১৯৬১-এর নভেম্বরে প্রথম যে বুলেটিনটি প্রকাশিত হয়েছিল তা ছিল ইংরাজি ভাষায়। বুলেটিন প্রকাশনার খরচ দেবেন মলয় রায় চৌধুরী, সমস্ত কিছু সংগঠিত করার দায়িত্ব সমীরবাবুর, সম্পাদনা ও বিতরণের  ভার দেবী রায়ের ওপর আর সব কিছুর নেতৃত্বে থাকবেন শক্তি চট্টোপাধ্যায় – এই ছিল চার সারথির কাজ। বুলেটিনগুলি ছিল ছাপানো বা সাইক্লোস্টাইল করা, অধিকাংশই হ্যান্ডবিলের মতো ফালিকাগজে, কয়েকটা দেওয়াল-পোস্টারে, তিনটি এক ফর্মার মাপে এবং একটি কুষ্ঠিঠিকুজির মতো দীর্ঘ কাগজে। এই বুলেটিনে কবিতা, রাজনীতি, ধর্ম, জীবন, ছোটোগল্প, নাটক, অনুগল্প, স্কেচ ইত্যাদি নানান ধরনের সৃজনশীল কাজকর্ম প্রকশিত হত। ১৯৬৩-৬৫ সালে হাংরি আন্দোলনকারীরা কয়েকটি পত্রিকাও প্রকাশ করেছিলেন যেমন, সুবিমল বসাক সম্পাদিত ‘প্রতিদ্বন্দ্বী’, মলয় রায় চৌধুরী সম্পাদিত ‘জেব্রা’, দেবী রায় সম্পাদিত ‘চিহ্ন’, আলো মিত্র সম্পাদিত ‘ইংরেজি দ্য ওয়েস্ট পেপার’ ইত্যাদি।

হাংরি আন্দোলনের বুলেটিনগুলো হ্যান্ডবিলের আকারে প্রকাশিত হয়েছিল বলে ঐতিহাসিক ক্ষতি হয়েছে প্রচুর, কারণ অধিকাংশ বুলেটিনই সংরক্ষণ করা সম্ভব হয়নি। কিছু সংরক্ষিত আছে ঢাকা বাংলা একাডেমি ও কলকাতার লিটিল ম্যাগাজিন লাইব্রেরিতে। পরবর্তী কালে যখন এই আন্দোলনের সারথিরা গ্রেফতার হয়েছিলেন তখন সকল বইপত্র, ডায়েরি, ফাইল, পাণ্ডুলিপি, টাইপরাইটার ইত্যাদি পুলিশের কাছে দিতে হয়েছিল যা তাঁরা আর ফেরত পাননি। সেই সময়ের কয়েকটি হাংরিয়ালিস্ট কবিতা হল – উৎপলকুমার রচিত ‘পোপের সমাধি’, শৈলেশ্বর ঘোষ রচিত ‘ঘোড়ার সঙ্গে ভৌতিক কথাবার্তা’, মলয় রায়ের ‘প্রচণ্ড বৈদ্যুতিক ছুতার’, সমীর রায়ের ‘হনির জন্মদিন’, শম্ভু রক্ষিতের ‘আমি স্বেচ্ছাচারী’, বিকাশ সরকারের ভর্ত ‘ভর্ৎসনার পাণ্ডুলিপি’ ইত্যাদি। মোট ১০৮টি বুলেটিন প্রকাশ করা হয়েছিল যার মধ্যে কয়েকটিই রয়েছে সংরক্ষিত।

এই আন্দোলন চার বছরের পর আর এগোতে পারল না কেন? কেন গ্রেফতার হতে হল হাংরিয়ালিস্টদের? মলয়বাবুদের এই আন্দোলন যে খুব সহজেই অগ্রসর হয়েছিল তা কিন্তু নয়। তাঁদের বিভিন্ন বাধার সম্মুখীন হতে হয়েছিল। ১৯৬৩ সালে সুবিমল বসাককে পর পর দু’ বার কলেজ স্ট্রিটের কফিহাউসে হেনস্থা হতে হয়। হাংরি আন্দোলনের ১৫নং রাজনৈতিক ও ৬৫নং ধর্মীয় বুলেটিন তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী প্রফুল্ল সেনের এস্টাবলিশমেন্টকে চটিয়ে দিয়েছিল। তাই তাঁদের রাজরোষে পড়তে হয়েছিল।

শক্তি চট্টোপাধ্যায়।

১৯৬৪ সালে ‘প্রচণ্ড বৈদ্যুতিক ছুতার’ কবিতার জন্য মলয় রায় চৌধুরীকে অশ্লীলতার অভিযোগে গ্রেফতার হতে হয়। তাঁকে কোমরে দড়ি বেঁধে, হাতে কড়া পরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। নিম্ন আদালতে সাজা ঘোষণা হলেও উচ্চ আদালতে অভিযোগমুক্ত হন তিনি। মলয়ের পক্ষে সাক্ষী ছিলেন সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়, তরুণ সান্যাল, জ্যোতির্ময় দত্ত প্রমুখ। ১৯৬৪ সালে ভারতীয় দণ্ডবিধির ধারা অনুযায়ী ১১ জন হাংরিয়ালিস্টকে গ্রেফতার করা হয়। তাঁদের মধ্যে ছিলেন মলয় রায় চৌধুরী, সমীর রায় চৌধুরী, দেবী রায়, সুভাষ ঘোষ, শৈলেশ্বর ঘোষ, প্রদীপ চৌধুরী, উৎপলকুমার বসু, বাসুদেব দাশগুপ্ত প্রমুখ।

ইতিমধ্যে মলয় রায় চৌধুরী আমেরিকার ‘টাইম’ ম্যাগাজিনে সংবাদ হয়ে গেছেন। আমেরিকার বহু জনপ্রিয় লিটিল ম্যাগাজিনেও খবর প্রকাশিত হল। ইউরোপ ও লাতিন আমেরিকার পত্রপত্রিকা তাঁদের সংবাদ ও রচনা প্রকাশ করার জন্য কলকাতায় প্রতিনিধি পাঠায়। ভারতবর্ষে তাঁরা সমর্থন পেয়ে যান প্রতিষ্ঠিত লেখকদের। আপাতদৃষ্টিতে হাংরি আন্দোলনকে কেন্দ্র করেই তাঁরা ভারতবর্ষ তথা বিদেশে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিলেন। মলয় রায় চৌধুরী ২০০৪ সালে ‘সাহিত্য অকাদেমি’ পুরস্কার পান, কিন্তু সেই পুরস্কার তিনি তাঁর স্বভাবসিদ্ধ মানসিকতায় সহজই ত্যাগ করেছিলেন।

আরও পড়ুন: রবিবারের পড়া: বাসু চট্টোপাধ্যায়ের ছবিতে ঘরোয়া জীবনের খুঁটিনাটি, সঙ্গে বিনোদনের দু’শো মজা

বর্তমানে প্রায় চল্লিশ বছর পরে হাংরি জেনরেশনের আন্দোলনকে নিয়ে ব্যবসা হচ্ছে। ‘হাংরি জেনরেশন রচনা সংকলন’ নামে বই প্রকাশিত হচ্ছে কিন্তু সেখানে আন্দোলনের হোতা সেই মলয় রায় চৌধুরীর নাম বা তাঁকে নিয়ে লেখা কিছুই নেই। নেই শক্তি, উৎপল, সমীর রায় চৌধুরীর লেখাও। এ যেন এক ইতিহাসের বিকৃত রূপ। কিন্তু এই ভাবে সাহিত্যিক মলয় রায় চৌধুরীরকে ইতিহাসের পাতা থেকে মোছা সম্ভব নয়। তিনি তাঁর নিজ প্রতিভায় বাংলা সাহিত্যে ঠাঁই নিয়েছেন। আর হাংরি আন্দোলনের অন্যতম স্রষ্টা তিনিই।

কৃতজ্ঞতা স্বীকার:

১. হাওয়া ৪৯, তেত্রিশতম সংকলন, বইমেলা ২০০৬ (সম্পাদক সমীর রায় চৌধুরী)

২. প্রতি সন্দর্ভের স্মৃতি – মলয় রায় চৌধুরী, দিগঙ্গন উৎসব সংখ্যা, ২০০৪

৩. বঙ্গীয় সাবর্ণ কথা কালীক্ষেত্র কলিকাতা – ভবানী রায় চৌধুরী, সেপ্টেম্বর ২০০৬

৪. হাংরি কিংবদন্তি – মলয় রায় চৌধুরী

৫. হাংরি শ্রুতি ও শাস্ত্রবিরোধী আন্দোলন – ডঃ উত্তম দাশ

৬. হাংরি আন্দোলন ও দ্রোহপুরুষ-কথা – ডঃ বিষ্ণুচন্দ্র দে

৭. হাংরি আন্দোলন- উইকিপিডিয়া

বিনোদন

রবিবারের পড়া: শহর ছেড়ে তুমি কি চলে যেতে পারো তিন ভুবনের পারে

‘বর্ণালী’ ছবিতে নৌকায় শর্মিলার কণ্ঠে ‘যখন ভাঙল মিলন মেলা ভাঙল’ গানটি শুনে মনে হল গীতবিতান তোমার কাছে আত্মার শান্তি আর আবোলতাবোল তোমার প্রাণের স্পন্দন।

Published

on

'তিন ভুবনের পারে' ছবিতে তনুজার সঙ্গে।

পাপিয়া মিত্র

এই বাদামগাছের ছায়ায় / তোমায় আমি উপহার দেব একটি শোক / জেনো আজ এই চৈত্রদিনের সন্ধ্যার / তার থেকে আপন আর তোমার কেউ নেই। (এই বাদাম গাছের ছায়ায়)

তাঁর লেখা কবিতা দিয়েই আজকের লেখা শুরু। তাঁকে শ্রদ্ধা জানানো, খানিক গঙ্গাজলে গঙ্গাপুজোর মতো। চৈত্রের দিন নয়। হেমন্তের প্রান্তদিনের মধ‍্যগগনে মনের মধ‍্যে শেষ চৈত্রের ঝড় এল – চলে যায় মরি হায় বসন্তের দিন। সৌমিত্র মানে বসন্ত। সে বসন্ত যৌবনের, সে বসন্ত প্রৌঢ়ের, আবার সে বসন্ত বার্ধক্যেরও। এই তিন পর্যায়ের বসন্তের এক তৃপ্ত আকর্ষণ আছে, যার টানে প্রেক্ষাগৃহে দেখা গেছে নানা স্তরের দর্শকদের। তাঁকে বা তাঁর অভিনয়ক্ষমতা বিশ্লেষণ করার স্পর্ধা নেই। বরং নতমস্তকে আজ মনে করব সেই সব চিরসবুজ, চিরযৌবনের গানের কলি।  কখনও সৌমিত্র গেয়েছেন আবার কখনও তাঁর নায়িকারা। কখনও বা তিনি একাই।

Loading videos...
‘অরণ্যের দিনরাত্রি’ ছবিতে শর্মিলার সঙ্গে।

জনসমুদ্রের মাঝে আমাদের অপু, ক্ষিদদা, অমল, ফেলুদা তথা প্রদোষচন্দ্র মিত্র, গঙ্গাচরণ, সন্দীপ, অসীম, ময়ূরবাহন, অমিতাভ রায়, নরসিং, রতন, অরুণাভ মুখার্জি, শ‍্যাম, উদয়ন পণ্ডিত। সুধীন দাশগুপ্তের কথা, পুলক বন্দ‍্যোপাধ‍্যায়ের সুর, মান্না দের কণ্ঠ আর লেজেন্ডের লিপ – এই শহর থেকে আরও অনেক দূরে / চলো কোথাও চলে যাই। গঙ্গায় নৌকায়, দূরে বিবেকানন্দ সেতু। সঙ্গে ‘প্রথম কদমফুল’ ছবির নায়িকা তনুজা।

রবিবারে অলস দুপুরে তখন রাজপথে রাজার মতো অনন্তশয‍্যায় চলেছেন কিং লিয়র। এই শহর ছেড়ে যাওয়ার কথা সৌমিত্র কখনও ভাবেননি বা বলেননি। কৃষ্ণনগর জন্মস্থান আর কৈশোর যৌবন প্রৌঢ়কালের জীবনযুদ্ধের খেলাঘর তাঁর সৃষ্টির শহর এই কলকাতা। এই শহর দেখেছে তাঁর প্রথম সব কিছু। এই শহর দেখেছে ‘জীবনে কী পাবো না’র মতো যৌবনের উদ্দাম টুইস্ট। না বলা বাণী দিয়ে অনেক সময় চিরনবীন বসন্ত বুঝিয়ে দিয়েছেন প্রেমিক হতে হয় কেমন করে।

‘বসন্ত বিলাপ’ ছবিতে অপর্ণার সঙ্গে।

সংস্কৃতি জগতের কিংবদন্তি শেষ স্তম্ভকে বিদায় জানাতে যে জনদেবতার শোকমিছিল পায়ে পায়ে এগিয়েছে সেখানে ততই জীবন্ত হয়ে উঠছিল আমাদের ‘গণদেবতা’। মন বলে ওঠে চাই, তোমায় ফিরে পেতে চাই। তুমি যে চলেছ অনন্তধামের দিকে… ভুল ভেঙে যায়। সুইমিংপুলের ধার ঘেঁষে গলার শিরা ফুলিয়ে ক্ষিদদার ‘ফাইট কোনি ফাইট’ চিৎকার কানে আসছে। চোয়াল তোমার দৃঢ়, তুমি বলছ, ঘুঘু দেখেছ ফাঁদ দেখনি মগনলাল। অশনি সংকেতের হনহনিয়ে হেঁটে চলা পণ্ডিতমশাইয়ের ছাত্র পড়ানোর আওয়াজ কানে আসছে।

১৫ নভেম্বর দুপুর ১২.১৫ মিনিটে কিছু ক্ষণের জন্য সব থেমে গেলেও এই কয়দিনের সকালের পুবালি হাওয়া জানান দেয় আসলে তুমি এই শহরের জনস্রোতের মধ্যে মিশে আছ। শহর ছেড়ে তুমি কি চলে যেতে পারো তিন ভুবনের পারে? যেখানে প্রেমের জন্য দুরন্ত বন‍্য হওয়ার অমন নিবেদন করার কেউ থাকবে না? আশুতোষ মুখোপাধ‍্যায় পরিচালিত তনুজা অভিনীত বখাটে ছেলেটি আজ ৮৬র ঘরে। তোমার অসংখ্য নন্দিনীরা ঘর থেকে রাজপথে। হেমন্তের ছায়ানামা ছাদ থেকে বারান্দায়। তোমার নায়িকারা টিভির সামনে খুঁজে বেড়াচ্ছেন ‘দূরে দূরে কাছে কাছে এখানে ওখানে’ কত দূরের সেই মানুষটিকে।

ভিড়ে, ফুলে মানবসমুদ্রের মধ্যে দিয়ে তোমার শকট চলেছে হাসপাতালের দুয়ার থেকে অমৃতলোকের সিংহদুয়ারের দিকে। সে যাক। সেটা তোমার শুধুমাত্র শরীরটা। ‘মন্ত্রমুগ্ধ’র মতো মানুষ তোমার কত স্মৃতি মনে করে চলেছে। তোমার ধুতির কোঁচা মাটিতে লুটিয়ে পড়ছে। বগলে চোলাইয়ের বোতল নিয়ে তুমি গাইছ ‘একটু চোলাই খাব আর ধোলাই খাব না?’ তোমার নায়িকা সাবিত্রীকে প্রশ্ন ছুড়ে দিচ্ছ ‘মাতাল হব আর পাতালে যাব না?’ কী একস্প্রেশন দিয়েছ তুমি!

চারুলতা’ ছবিতে মাধবীর সঙ্গে।

এখন আর দুঃখ নয়। তোমার রেখে যাওয়া সম্পদ দিয়ে তোমার জন্মদিনের মালা গাঁথা শুরু। সোনালি রোদকে সঙ্গী করে সাইকেলের চাকা এগিয়ে চলেছে এক নতুন পৃথিবীর দিকে। ‘ও আকাশ সোনা সোনা, এ মাটি সবুজ সবুজ’ নায়ক সৌমিত্রের আটপৌরে পোশাকে নতুন রঙ ধরিয়ে দিল সোনার পৃথিবীতে। মাধবী-সৌমিত্রের দুরন্ত অভিনয় উপহার দিল ‘অজানা শপথ’। নায়িকা তন্দ্রা বর্মনের সঙ্গে সৌমিত্র ‘অতল জলের আহ্বান’-এ গাইলেন ‘একি চঞ্চলতা জাগে আমার মনে’। ‘কে যেন গো ডেকেছে আমায়’- আরও এক নায়িকা সন্ধ্যা রায়কে শেখাচ্ছেন গান। ‘মরমিয়া কেন গো…ফাগুন আগুন লাগে মন কোনও কাজে লাগে না, কি করিতে কী যে হয়ে যায়’।

আজ মন বড়ো চঞ্চল। কেন না তুমি নাকি নেই। এই তো মানবমন। যেখানের পৃথিবীর সীমারেখা শুধুই খিড়কি থেকে সিংহদুয়ার পর্যন্ত। সেই-ই তো নায়ক, সেই ‘অগ্রদানী’র ঠাকুরমশাই হয়ে আনন্দে গান ধরেছ নদী পার করে বটের ঝুরি ধরে – ‘শোনো গাঁয়ের মাঠঘাট/ শোনো বৃক্ষলতা / গ্রামবাসী প্রতিজনে / শোনো সুখের কথা / আমার বংশে দিতে বাতি / আমার ঘরে আসছে এবার আমার বাপের নাতি / এত দিনে ঘুচল বুঝি পাপ / আমার বৌ হবে মা আমি হব বাপ।’ কী অভিব‍্যক্তি! যখন তুমি বাবা হওয়ার খবর শুনলে।

‘সাত পাকে বাঁধা’ ছবিতে সুচিত্রার সঙ্গে।

তুমি ‘সুদূর নীহারিকা’ হয়ে থেকে যেও না। সুমিত্রা মুখোপাধ‍্যায় নাচছে ‘আজ এই রাত জলসার রাত’ গানের সঙ্গে। ওই একই চলচ্চিত্রে সোমা দের সঙ্গে গাইলে ‘জীবন মরণের সাথী’। মানবেন্দ্রের কণ্ঠে ঠোঁট মেলালে ‘কার মঞ্জীর ঝঙ্কার’ গানে। আবার ‘শেষ পৃষ্ঠায় দেখুন’-এ নায়ক যদি গায় ‘এ কী এমন কথা তাকে বলা গেল না’ পাশাপাশি নায়িকা অপর্ণা গেয়ে ওঠেন ‘নেই সত‍্যি বলে কিছু নেই’।  তা হলে তো বলতেই হয় তুমি কোথাও যেতে পার না। তুমি উদয়ন পণ্ডিত হয়ে থেকে গেছ পাঠশালার শিশুদের মধ‍্যে।

‘বেনারসী’ ছবিতে বেলডাঙার বেনারসী বাইজিকে (রুমা গুহঠাকুরতা) পানের দোকানে চিনে ফেলে রতন (সৌমিত্র)। কিশোরী সোনা গঙ্গাস্নানে হারিয়ে গিয়ে পরবর্তীতে বেনারসী বাইজি হয়। টান টান আভিজাত‍্যের মোড়কে গল্প এগিয়ে গিয়েছে। আবার মিনু কাফে চায়ের দোকানের মালিক সঞ্জুদা হয়ে তুমি ‘নতুন দিনের আলো’য় বন্ধুদের মাঝে গান ধরলে ‘চলেছে, চলছে চলবেই / যা কৈলাশে জমে আছে বরফের স্তূপ হয়ে / সে তো বন‍্যার স্রোত হতে গলবেই’।

নানা রঙের চরিত্রের পাশে কতই না নায়িকা অভিনয় করেছেন। শর্মিলা ঠাকুর, তনুজা, অরুন্ধতী দেবী, মাধবী মুখোপাধ‍্যায়, সুচিত্রা সেন, সুপ্রিয়া চৌধুরী, সাবিত্রী চট্টোপাধ‍্যায়, তন্দ্রা বর্মন, অপর্ণা সেন, আরতি ভট্টাচার্য, সুমিত্রা মুখোপাধ‍্যায়, সন্ধ্যা রায়, লিলি চক্রবর্তী, সুমিতা সান‍্যাল, অঞ্জনা ভৌমিক, মৌসুমী চট্টোপাধ‍্যায়, রুমা গুহঠাকুরতা, মমতাশঙ্কর, নন্দিনী মালিয়া-সহ বহু নায়িকা। প্রবীণদের পাশাপাশি অনেক নবীন অভিনেতার সঙ্গে অভিনয় করে ছবিকে এক নতুন মাত্রা দিয়েছ।

‘ঘরে বাইরে’ ছবিতে স্বাতীলেখার সঙ্গে।

এমন মজাদার গানের আগে পরে আমরা পাই ‘ঘরে বাইরে’র সন্দীপকে, ‘বিধির বাঁধন কাটবে তুমি এমন শক্তিমান’ গানটিতে। ‘বর্ণালী’ ছবিতে নৌকায় শর্মিলার কণ্ঠে ‘যখন ভাঙল মিলন মেলা ভাঙল’ গানটি শুনে মনে হল গীতবিতান তোমার কাছে আত্মার শান্তি আর আবোলতাবোল তোমার প্রাণের স্পন্দন।

এ বার সব বাধা দূরে সরিয়ে একবার বলে ওঠ তো ‘মুশকিল আসান, আমি এসে গেছি’।

খবরঅনলাইনে আরও পড়ুন

সৌমিত্র, কবে যে চলে এলে গৃহস্থের রান্নাঘর থেকে বৈঠকখানা হয়ে শীতের ছাদে আলোচনায়

Continue Reading

ক্রিকেট

রবিবারের পড়া ২ / রানআউটে শুরু, রানআউটেই শেষ…

ধোনি কিন্তু নিজের মর্জিমাফিক চলেন বোঝা যায়। টেস্ট থেকে যেমন আচমকা অবসর ঘোষণা করেছিলেন, তেমনই সীমিত ওভারের ক্রিকেট থেকে যখন অবসর ঘোষণা করলেন তখন তাঁর জন্য একটি বিদায় ম্যাচের আয়োজন করারও উপায় নেই।

Published

on

শ্রয়ণ সেন

১০ জুলাই ২০১৯। নিউজিল্যান্ডের মার্টিন গাপ্টিলের দুরন্ত একটা থ্রো শেষ করে দিল ১৩০ কোটির স্বপ্ন। একটুর জন্য ক্রিজের ভেতরে ঢুকতে পারেনি তাঁর ব্যাট, আর তাতেই সব স্বপ্নের জলাঞ্জলি।

বরাবরের আবেগহীন মহেন্দ্র সিংহ ধোনি সে দিন কিন্তু নিজের আবেগকে চেপে রাখতে পারেননি। প্যাভিলিয়নে ফেরার সময়ে তাঁর চোখে জল দেখা গিয়েছিল স্পষ্ট। ভারতকে জয়ের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিয়ে ধোনির ব্যর্থ হয়ে ফিরে আসার ঘটনা ভারতীয় ক্রিকেটে খুব একটা ঘটেনি, কিন্তু সে দিন হয়েছিল।

গত দু’ বছর ধরেই ধোনির ফর্ম পড়ে গিয়েছিল। শেষের দিকে নেমে রান পেলেও আগের মতো সেই আগ্রাসী ব্যাটিংয়ের ধোনি কোথায় যেন হারিয়ে গিয়েছিলেন। তবুও একটা স্বপ্ন ছিল, ধোনির হাত ধরেই ভারত আরও একবার বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হবে।

Loading videos...

কিন্তু সেই সব স্বপ্ন শেষ করে দিল সেই দুঃস্বপ্নের রানআউট। রানআউট হওয়ার আগে ওই ম্যাচটায় খারাপ খেলেননি ধোনি। অর্ধশতরান করেছিলেন। কিন্তু ভারতের ব্যর্থতায় সেই সব কিছুই চাপা পড়ে গেল।

ধোনি কিন্তু ভারতের হয়ে আর কোনো ম্যাচ খেলেননি। তাঁর অবসরের ঘোষণা ছিল শুধুমাত্র সময়ের অপেক্ষা। তবুও আশায় ছিলেন ক্রিকেটভক্তরা। যদি কোনো ভাবে নিজের মত বদল করেন তিনি।

সেই সেমিফাইনালে রানআউটের মধ্যে দিয়ে শেষ হওয়া কেরিয়ারের সুচনাও হয়েছিল রানআউট দিয়েই।

সেটা ২০০৪-এর ডিসেম্বর। ঘরোয়া ক্রিকেটে তখন ফুলিঝুরি ঝরাচ্ছেন বছর ২৩-এর ধোনি। রাহুল দ্রাবিড়ের ওপর থেকে ভার কিছুটা হালকা করার জন্য একদিনের ক্রিকেটে ভারতের দরকার ভালো নির্ভরযোগ্য উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান। অধিনায়ক সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের জোরাজুরির কারণে বাংলাদেশ সফররত ভারতের একদিনের দলে ধোনিকে জায়গা দিতে বাধ্য হলেন নির্বাচকরা।

[চট্টগ্রামের অভিষেক ম্যাচে রানআউট ধোনি]

কিন্তু শুরুটা যে ভালো হল না ধোনির। চট্টগ্রামে প্রথম ম্যাচে ব্যাট করতে নেমেই রানআউট। খাতা খোলার সুযোগই এল না তাঁর কাছে। ঘরোয়া ক্রিকেটে মোটামুটি নাম করে ফেলা ধোনির এ হেন অভিশপ্ত অভিষেক কেউ কল্পনাই করতে পারেননি।

তবে ধোনিকে নিজের জাত চেনাতে লাগল মাত্র পাঁচটা ম্যাচ। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে একদিনের ম্যাচ ছিল সেটা। ফাটকা খেলে তিন নম্বরে ধোনিকে নামিয়েছিলেন সৌরভ। আর তাতেই বাজিমাত। ১২৩ বলে ১৪৮ রানের দুর্ধর্ষ একটি ইনিংস। ব্যাস, তার পর আর তাঁকে ফিরে তাকাতে হয়নি।

[বিশাখাপত্তনমে শতরানের পর]

কয়েক মাসের মধ্যেই আবারও ধোনি-তাণ্ডব। এ বার জয়পুরে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে। তাঁর ব্যাট থেকে বেরোল অপরাজিত ১৮৩ রানের দুর্ধর্ষ একটা ইনিংস।

এর পর টেস্ট ক্রিকেটেও নিয়ে আসা হল ধোনিকে। আর সেখানেও কয়েক মাস পরেই বাজিমাত। ২০০৬-এর পাকিস্তান সফরে ফৈজলাবাদ টেস্টে শোয়েব আখতারদের ঠেঙিয়ে ১৪৮ রানের তুখোড় একটি ইনিংস। ঝাঁকড়া চুলের ধোনি তত দিনে গোটা বিশ্বে পরিচিত হয়ে গিয়েছেন। তাঁর চুলের জন্য ফ্যান হয়ে গিয়েছেন স্বয়ং পাকিস্তানের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট পরভেজ মুশারফ। ধোনিকে চুল না কাটারও আবদার করেছিলেন মুশারফ। যদিও পরের বছরই সেই চুল ছেঁটে ফেলেন মাহি।

[ফৈজলাবাদ টেস্টে শতরান করে ধোনি]

আসলে দায়িত্ব বাড়তেই এই বাড়তি বোঝা নিজের শরীরের ওপর থেকে ঝেড়ে ফেলেন ধোনি। ধোনি তত দিনে ভারতের অধিনায়ক হয়ে গিয়েছেন। অধিনায়কের কেরিয়ারের শুরুতেই বাজিমাত।

২০০৭-এ ৫০ ওভারের ক্রিকেট বিশ্বকাপে ভারতের গ্রুপ লিগেই বিদায়ের পর কেউ ভাবতেই পারেনি যে ওই বছরের সেপ্টেম্বরে টি২০ বিশ্বকাপে ভারত আদৌ ভালো ফল করতে পারবে বলে।

সম্ভবত নির্বাচকদেরও বেশি আশা ছিল না। আর তাই সৌরভ-সচিন-দ্রাবিড়দের বাদ দিয়ে পুরোপুরি যুবদল ভারত পাঠায় দক্ষিণ আফ্রিকায় টি২০ বিশ্বকাপের জন্য। অধিনায়ক করা হয় ধোনিকে। ওই দলে বেশি অভিজ্ঞতার যুবরাজ থাকলেও নির্বাচকরা ভরসা করেন ধোনির ওপরেই। আর এটাই হয়ে যায় এক যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত।

[২০০৭-এ টি২০ বিশ্বকাপে জয়ের পর]

ধোনির নেতৃত্বে টি২০ বিশ্বকাপ ঘরে তোলে ভারত। টুর্নামেন্টের ফাইনালে পাকিস্তান, সেমিফাইনালে অস্ট্রেলিয়া, তার আগে ইংল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকার মতো দলকে হারিয়ে নজির তৈরি করে ভারত। এই বিশ্বজয়ের পরেই ভারতের একদিনের আর টেস্ট দলের দায়িত্ব ছেড়ে দেন রাহুল দ্রাবিড়। একদিনের অধিনায়কের কুর্সিতেও বসে পড়েন ধোনি।

তার পরেই ভারতীয় ক্রিকেটের এক স্বর্ণযুগের শুরু। কার্যত ‘ম্যান উইথ দ্য মিডাস টাচ’ হয়ে যান ধোনি। ২০০৮-এ অনিল কুম্বলের অবসরের পরে টেস্ট দলের দায়িত্বও তাঁর হাতে চলে আসে।

একদিনের দলকে নিজের মতো করে তৈরি করতে গিয়ে বেশ কিছু অপ্রিয় সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছিল তাঁকে। সৌরভ আর দ্রাবিড়ের মতো সিনিয়রদের একদিনের দল থেকে বাদ দিয়েছিলেন। প্রবল সমালোচিত হয়েছিলেন বিভিন্ন জায়গায়। কিন্তু তাঁর হাতে তৈরি ভারতীয় দল ফল দিয়েছিল।

ধোনি যে ভাবে একদিনের দল তৈরি করতে চেয়েছিলেন, সেটাই করেছিলেন। আর তার ফলস্বরূপ ২০১১-তে বিশ্বজয়।

[২০১১-এ বিশ্বকাপের ট্রফি নিয়ে ধোনি]

নিঃসন্দেহে ধোনির কেরিয়ারে সব থেকে উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে ভারতের এই বিশ্বজয়। এর ঠিক দু’ বছরের মাথায় আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতেও দখল নিল ভারত। ধোনিই প্রথম অধিনায়ক যিনি আইসিসির তিনটে টুর্নামেন্টেই নিজের দেশকে চ্যাম্পিয়ন করেন।

পরিসংখ্যানের দিক দিয়ে ভারতের সব থেকে সফল অধিনায়ক হয়ে যান ধোনি। সৌরভের রেকর্ড ভেঙে টেস্টে সর্বাধিক জয়ের রেকর্ডেরও মালিক হন অধিনায়ক ধোনি, পরবর্তীকালে যে রেকর্ডের দখল নিয়েছেন বিরাট কোহলি।

কিন্তু এর মধ্যে একটি বিতর্কও থেকে যায়। পরিসংখ্যানের দিক থেকে সব থেকে সফল অধিনায়ক হলেই কি তাঁকে সফল বলা চলে?

বিদেশে টেস্ট জয়ের নিরিখে ধোনি কিন্তু সৌরভ আর বিরাট কোহলির থেকে পিছিয়েই শেষ করলেন। বিদেশের মাঠে ২৫টা টেস্টে নেতৃত্ব দিয়ে মাত্র ৬টায় ভারতকে জিতিয়েছেন ধোনি। ভারত হেরেছে ১১টি টেস্টে।

তবে ধোনির টেস্ট ক্রিকেট খুব একটা প্রিয় ছিল না, সেটা তিনি বুঝিয়ে দেন ২০১৪-এর ডিসেম্বরে। মাত্র ৩৩ বছর বয়সে সবাইকে চমকে দিয়ে টেস্ট থেকে নিজের অবসরের কথা ঘোষণা করেন মাহি। এর পর শুধুই সীমিত ওভারের ক্রিকেটে মনোনিবেশ করেন তিনি।

২০১৫-এর বিশ্বকাপে ধোনির নেতৃত্বে ভারত সেমিফাইনাল পর্যন্ত পৌঁছে যায়। গোটা টুর্নামেন্টে ভারত একটা মাত্র ম্যাচেই হেরেছিল। অস্ট্রেলিয়ার কাছে সেমিফাইনালে।

এর পরের বছরের এক্কেবারে শেষলগ্নে একদিনের ম্যাচের অধিনায়কত্বও ছেড়ে দেন মাহি। বিরাট কোহলির কাঁধে দায়িত্ব চলে আসে। তবে বকলমে ভারতের অধিনায়ক ধোনিই ছিলেন, সেটা পরতে পরতে বোঝা গিয়েছে। উইকেটের পেছনে দাঁড়িয়ে ধোনিকে অনেক বার ফিল্ড সেট করতে দেখা গিয়েছে।

বিরাট কোহলিও ধোনিকে অসম্ভব ভরসা করতেন। আর সেই কারণেই শেষ দু’ বছর তাঁর ব্যাটিং ফর্ম পড়ে গেলেও ধোনি সম্পর্কে কোনো বিরূপ ধারণা তৈরি হয়নি কোহলির। অধিনায়কের ব্যাকিং সব সময়ে পেয়ে গিয়েছিলেন ধোনি। এমনকি ক্রিকেটবিশ্ব যখন ধোনির সমালোচনায় মুখর, তখন তার জবাব কোহলিই দিয়েছেন।

কিন্তু যতই অধিনায়কের সমর্থন থাকুক, ধোনির নিজের ফর্ম যে পড়তির দিকে সেটা তিনিও সম্ভবত বুঝতে পারছিলেন। তবুও তাঁর আশা ছিল ভারতকে আরও একবার বিশ্বচ্যাম্পিয়ন করেই ক্রিকেট মাঠকে বিদায় জানাবেন তিনি।

কিন্তু মার্টিন গাপ্টিলের একটা রানআউট তাঁর সেই স্বপ্ন পূরণ করতে দিল না। রানআউটে শুরু হওয়া একটি কেরিয়ার শেষ হল রানআউটের মধ্যে দিয়েই।

[যে রানআউটে শেষ হয়ে গেল ১৩০ কোটির স্বপ্ন]

ধোনি কিন্তু নিজের মর্জিমাফিক চলেন বোঝা যায়। টেস্ট থেকে যেমন আচমকা অবসর ঘোষণা করেছিলেন, তেমনই সীমিত ওভারের ক্রিকেট থেকে যখন অবসর ঘোষণা করলেন তখন তাঁর জন্য একটি বিদায় ম্যাচের আয়োজন করারও উপায় নেই।

তবুও আমরা চাই, আপামর ক্রিকেটভক্ত চায়, ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেনও চান, অন্তত একটা ফেয়ারওয়েল ম্যাচ খেলুন ধোনি। করোনার দাপট কমে গেলে সামনের বছর দর্শকভরতি কোনো স্টেডিয়ামেই হোক এই ম্যাচ।

আপাতত চেন্নাই সুপারকিংসের হলুদ জার্সিতে দেখা যাবে ধোনিকে। কিন্তু নীল জার্সির মাহাত্ম্য যে সব সময় আলাদা।

২০১১-এর বিশ্বকাপের ফাইনালে ছয় মেরে ভারতকে জেতানোর সময়ে রবি শাস্ত্রীর বিখ্যাত ধারাবিবরণীটা এখনও মনে পড়ে, “ধোনি ফিনিসেজ অফ ইন স্টাইল!”

সেটাই কিন্তু এ বারও হল। একবারে নিজস্ব ঢঙে, নিজস্ব কায়দায় কেরিয়ার শেষ করলেন মাহি।

Continue Reading

রবিবারের পড়া

রবিবারের পড়া ১ / ঠিক ৪০ বছর আগের ১৬ আগস্ট

ঘরে ঘরে প্রিয়জনদের উদগ্রীব অপেক্ষা – ছেলেটা ঘরে ফিরল? পাড়ায় পাড়ায় জিজ্ঞাসা – ছেলেটা ফিরেছে?

Published

on

পঙ্কজ চট্টোপাধ্যায়

মায়ের সঙ্গে একবার গঙ্গাস্নান করতে বাবুঘাটে এসে ছেলেটি অবাক হয়ে দেখেছিল, একটু দূরে সেনাব্যারাকের পাশের মাঠে একদল গোরা একটা পেটমোটা গোল জিনিস নিয়ে খেলছে, ছুটছে, পায়ে পায়ে কেড়ে নিচ্ছে…। হঠাৎ ফেনসিং-এর ধারে সেই গোল জিনিসটা চলে এল। একজন গোরা ছুটে এসে সেটা চাইল। ছেলেটি তৎক্ষণাৎ সেই গোল জিনিসটা তুলে নিয়ে গোরার দিকে ছুড়ে দিল। তার পর তার ফিরে আসা মায়ের সঙ্গে। কিন্তু মনের মধ্যে সেই মুহূর্তগুলো জ্বলজ্বল করতে লাগল। ভাবনায় বার বার ঘুরে ঘুরে আসতে লাগল।

ছেলেটি কলকাতার হেয়ার স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র। তার অভিজ্ঞতার কথা বন্ধুদের কাছে বলল। জানল, ওই পেটমোটা গোল বস্তুটা হল ‘বল’, আর খেলাটার নাম ‘ফুটবল’। ছেলেটির নাম নগেন্দ্রপ্রসাদ সর্বাধিকারী। তারই উদ্যমে কেনা হল একটি বল। সেই জোগাড় করল তার স্কুলের সহপাঠীদের। নামল সবাই মিলে মাঠে, শুরু হল খেলা। কিন্তু সে খেলা ছিল এলোপাথাড়ি – যে যে দিকে পারে ছুটছে, এলোপাথাড়ি লাথি মারছে, বল পায়ে পেলে যে দিকে খুশি মেরে দিচ্ছে – সে এক হট্টগোলের হল্লাগুল্লা খেলা।

Loading videos...

১৮৭৯-এর সেই গোড়ার কথা

পাশেই হিন্দু কলেজ। সেখানকার কয়েক জন ছাত্রও জুটে গেল তাদের সঙ্গে। কয়েক দিন পরে হিন্দু কলেজের (পরে প্রেসিডেন্সি কলেজ, অধুনা বিশ্ববিদ্যালয়) অধ্যাপক বি ভি স্ট্যাকের নজরে পড়ল ঘটনাটা। শেষে তিনিই উদ্যোগী হয়ে নিয়ে এলেন নতুন বল। শেখালেন খেলার নিয়মকানুন। ছাত্রদের দু’ দলে ভাগ করে দিয়ে তিনিই রেফারি হিসাবে মুখে বাঁশি নিয়ে মাঠে নামলেন। শুরু হল বাংলার মাটিতে ফুটবলের ইতিহাস। সময়টা ১৮৭৯।

নগেন্দ্রপ্রসাদ সর্বাধিকারী।

তখন থেকেই শুরু বাংলা ও বাঙালির ফুটবল-ইতিহাসের অগ্রগতি। একে একে জন্ম নিল ওয়েলিংটন ক্লাব (পরে টাউন ক্লাব), শোভাবাজার ক্লাব, মোহনবাগান ক্লাব, ইস্টবেঙ্গল ক্লাব, মহমেডান স্পোর্টিং, ঢাকার ওয়েলিংটন ক্লাব (পরে উয়াড়ি ক্লাব), ঢাকা স্পোর্টিং অ্যাসোসিয়েশন ইত্যাদি। বাঙালির আবেগে, রক্তে ধীরে ধীরে প্রতিষ্ঠিত হল ফুটবলের আকর্ষণ, উত্তেজনা। স্বামী বিবেকানন্দও তাঁর কৈশোরকালে নিয়মিত ফুটবল খেলতেন। অনুভব করেছিলেন ফুটবল খেলার মাধ্যমে শরীরচর্চার তাৎপর্য, তাই ডাক দিতে পেরেছিলেন ফুটবল খেলতে।

ফুটবল খেলার মধ্য দিয়ে একটা জাতিয়তাবাদী সত্তা ও আবেগ জন্ম নিয়েছিল পরাধীন ভারতবর্ষে। তাই তো বোধহয় ১৯১১-তে ১১ জন বাঙালির যুবকের খালি পায়ে লড়াই বাঙালিকে ইংরেজের বিরুদ্ধে দেশপ্রেমের মন্ত্রে দীক্ষিত করেছিল।

গত শতকের প্রতিটি দশকে বাঙালি ও ফুটবল একে অন্যের পরিপূরক হয়ে উঠেছিল। আর সেই খেলার ২২ জন খেলোয়াড় ছাড়া বাকি যে বিরাট অংশ – সেই বঙ্গসন্তানেরা কখনও মাঠের ধারে, কখনও বা গ্যালারিতে বা রেডিও ধারাবিবরণীতে মশগুল হয়ে থাকত। প্রিয় দলের জেতা-হারায় ছিল আনন্দ-দুঃখের অভিব্যক্তি। বাংলার গ্রামে-গঞ্জে, মফস্‌সলে কৈশোর, যৌবন ফুটবল খেলার প্রতি ছিল নিবেদিত প্রাণ। সেই আবেগ এমনই ছিল বা বলা যায় আজও আছে, যে বিশ্ব ফুটবলের প্রতিযোগিতায় বাঙালি দলে দলে বিভক্ত হয়ে যায় – ব্রাজিল, আর্জেন্তিনা, জার্মানি, ইংল্যান্ড ইত্যাদির পক্ষে। ঠিক যেমন, দেশের মাটিতে মোহনবাগান-ইস্টবেঙ্গল-মহমেডান…।

সেই দিনটিতে ফুটবল কাঁদিয়েছিল

সেই ফুটবল খেলা, যা বাঙালিকে আনন্দ দেয়, উত্তেজনায় ভরপুর করে তোলে, শপথে-প্রতিজ্ঞায় সুদৃঢ় করে তোলে, সেই ফুটবল বাঙালিকে কাঁদিয়েও তোলে, যখন বাঙালির মনে পড়ে আজ থেকে ঠিক ৪০ বছর আগের একটি দিনের ইতিহাস, যে দিন ফুটবলের চোখে নেমেছিল কান্না, হাহাকার।

দিনটা ছিল ১৯৮০ সালের ১৬ আগস্ট। খেলার নন্দনকানন ইডেন গার্ডেনস। কলকাতা লিগের ডার্বি ম্যাচ – প্রতিপক্ষ দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী মোহনবাগান ও ইস্টবেঙ্গল। গ্যালারি কানায় কানায় পূর্ণ। দর্শকসংখ্যা ৭০ হাজারের কিছু বেশি। রেডিওতে কান পেতেছে লক্ষ লক্ষ ফুটবলপ্রেমী। দূরদর্শনে চোখ রেখেছে আরও অনেকে। মোহনবাগানের ক্যাপ্টেন কম্পটন দত্ত আর ইস্টবেঙ্গলের সত্যজিৎ মিত্র। রেফারি সুধীন চ্যাটার্জি।

টানটান উত্তেজনায় শুরু হল খেলা। দু’ পক্ষই অঙ্গীকারবদ্ধ – জিততেই হবে। গ্যালারিতে সেই উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ছে দর্শকদের অন্তরে অন্তরে – শরীরী ভাষায় আর তাদের শিরায় শিরায় বইছে উত্তেজিত রক্তস্রোত। খেলা এগোচ্ছে, দু’ দলই মরিয়া তাদের সম্মান-ঐতিহ্য অটুট রাখতে। মাঠের মধ্যে ৯০ মিনিটের প্রতি সেকেন্ডে খেলোয়াড়দের যেমন চোয়াল শক্ত করে চলছে লড়াই, ঠিক তেমনই গ্যালারির বুকে হাজার হাজার সমর্থকের হৃদপিণ্ডে চড়ছে উত্তেজনার পারদ। এক সময় খেলা শেষ হল, ফল ০-০। কিন্তু ততক্ষণে মাঠের গ্যালারিতে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছিল। গ্যালারিতে শুরু হয়ে গিয়েছিল বিশৃঙ্খলা, ভেঙে পড়েছিল প্রশাসনিক দৃঢ়তা। দর্শকরা যে যার মতো করে প্রাণ হাতে করে ছুটতে শুরু করল। দিগ্‌বিদিক জ্ঞানশূন্য হাজার হাজার মানুষ। কে রইল পেছনে, কে রইল পায়ের নীচে – সে সব চিন্তা তখন কারও নেই। সবার অবস্থা তখন ‘আপনি বাঁচলে বাপের নাম’।            

সে দিনের বিশৃঙ্খলা।

ঘটে গেল কলকাতার ফুটবলের ইতিহাসে এক মর্মান্তিক ঘটনা। পদপিষ্ট হয়ে মারা গেলেন ১৬ জন ফুটবলপ্রেমী – ১৯৮০-র ১৬ আগস্ট। সারা মাঠ, সারা শহর, বাংলার গ্রাম-গঞ্জ-মফস্‌সল সে দিন হতবাক, শোকে বিহ্বল। হাহাকারে, আর্তনাদে ভরে গিয়েছিল বাঙালির মন-প্রাণ।

খেলা দেখতে বেরিয়ে আর ঘরে ফিরল না ১৬টি তরতাজা প্রাণ – হিমাংশুশেখর দাস, উত্তম ছাউলে, কার্তিক মাইতি, সমীর দাস, অলোক দাস, সনৎ বসু, বিশ্বজিৎ কর, নবীন নস্কর, কার্তিক মাজী, ধনঞ্জয় দাস, প্রশান্তকুমার দত্ত, শ্যামল বিশ্বাস, রবীন আদক, মদনমোহন বাগলি, অসীম চ্যাটার্জি এবং কল্যাণ সামন্ত। সে দিন আহত হয়েছিল কয়েকশো ফুটবলপ্রেমী দর্শক।

১৬ আগস্টের সন্ধ্যা-রাত্রি ভীষণ ভারী হয়ে উঠেছিল বাংলার বুকে, বড়ো দীর্ঘ হয়ে উঠেছিল, কিছুতেই সকাল হতে চাইছিল না সেই রাত। ঘরে ঘরে প্রিয়জনদের উদগ্রীব অপেক্ষা – ছেলেটা ঘরে ফিরল? পাড়ায় পাড়ায় জিজ্ঞাসা – ছেলেটা ফিরেছে? সারা বাংলা সে দিন গুমরে গুমরে কাটিয়েছিল নিদ্রাহীন রাত।

পরের দিন প্রভাতী সংবাদপত্রের প্রথম পাতায় প্রকাশিত খবরের অক্ষরগুলো যেন কেঁদে উঠেছিল। আকাশবাণীতে ঝরে পড়েছিল কষ্টের উচ্চারণ ‘সংবাদ বিচিত্রা’য়। উপেন তরফদারের উপস্থাপনায় প্রচারিত ওই অনুষ্ঠানে হৃদয় নিঙড়ানো শ্রদ্ধা জানানো হয়েছিল উত্তম ছাউলে, মদনমোহন বাগলিদের (তখনও পর্যন্ত সকলের নাম জানা যায়নি) প্রতি। সে দিন বাংলার লক্ষ লক্ষ মানুষ শুনেছিলেন সেই অনুষ্ঠান। সেই অনুষ্ঠানে শোনা গিয়েছিল এক সন্তানহারা পিতার আর্তনাদ – খো…কা, খো…কা।  

‘খেলার মাঠে কারও খোকা আর না হারায় দেখো’

বাংলার মানুষ শুনেছিলেন বাংলা নাট্যজগতের অন্যতম নক্ষত্র সত্য বন্দ্যোপাধ্যায়ের লেখা সেই ঐতিহাসিক গান – ‘খেলা ফুটবল খেলা, খোকা দেখতে গেল সেই সকালবেলা’। সেই সন্তানহারা পিতার কান্নাই বোধহয় তাঁকে দিয়ে এই গান লিখিয়ে নিয়েছিল। গানটিতে সুর দিয়েছিলেন প্রখ্যাত সুরকার নচিকেতা ঘোষের পুত্র সুপর্ণকান্তি ঘোষ। গেয়েছিলেন মান্না দে।

গানটি ১৯৮১ সালের সরস্বতী পুজোর আগে এইচএমভি থেকে প্রকাশ করা হয়। ফুটবল-শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে ক্যালকাটা স্পোর্টস জার্নালিস্টস ক্লাব এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। সেই অনুষ্ঠানেই ওই গানটি প্রকাশ করা হয়। সেই অনুষ্ঠানে ছিলেন স্বয়ং মান্না দে, সত্য বন্দ্যোপাধ্যায়, সুপর্ণকান্তি ঘোষ, সেই সময়কার অ্যাডভোকেট জেনারেল স্নেহাংশুকান্ত আচার্য, পি কে ব্যানার্জি, চুণী গোস্বামী, সুঁটে ব্যানার্জি, পঙ্কজ রায়, বিদেশ বসু, সুরজিৎ সেনগুপ্ত, কম্পটন দত্ত, সত্যজিৎ মিত্র-সহ বাংলার ক্রীড়া ও সংস্কৃতি জগতের নক্ষত্ররা।

গানটি ছিল প্রায় সাড়ে পাঁচ মিনিটের। শেষে সন্তানহারা পিতার সেই মর্মস্পর্শী আবেদন প্রোথিত হয়ে যায় বাঙালির মর্মস্থলে – ‘তোমরা আমার একটা কথাই রেখো / খেলার মাঠে কারও খোকা আর না হারায় দেখো’।

Continue Reading
Advertisement
রাজ্য8 mins ago

টেস্টের সংখ্যা না কমলেও রাজ্যে নতুন সংক্রমণ আরও কিছুটা কমল, সক্রিয় রোগী মাত্র ৫.৩ শতাংশ

Jallikattu
বিনোদন1 hour ago

ভারত থেকে অস্কারের দৌড়ে মালায়ালি ছবি ‘জাল্লিকাট্টু’

দঃ ২৪ পরগনা2 hours ago

ফের বাঘের পায়ের ছাপ কুলতলিতে, তৎপর বন দফতর

রাজ্য2 hours ago

দেশব্যাপী সাধারণ ধর্মঘটে শামিল হচ্ছে পশ্চিমবঙ্গ সরকারি কর্মচারী ইউনিয়ন

রাজ্য3 hours ago

শুভেন্দু-জট কাটাতে ফের বৈঠকের আগেই ‘তাৎপর্যপূর্ণ’ বার্তা মমতার

ফুটবল3 hours ago

শতবর্ষে কলকাতা ডার্বি: জেনে নিন ডার্বি সম্পর্কিত দশটা চমকপ্রদ তথ্য

শিল্প-বাণিজ্য3 hours ago

এসবিআই গ্রাহকদের জন্য উপহার! এসবিআই কার্ড অ্যাপে চালু নতুন পরিষেবা

ক্রিকেট4 hours ago

ঠাট্টা-তামাসা চলুক কিন্তু স্লেজিং নয়, সাফ কথা জাস্টিন ল্যাঙ্গারের

দেশ12 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ৪৪৩৭৬, সুস্থ ৩৭৮১৬

বিনোদন2 days ago

মাদক মামলায় জামিন পেলেন ভারতী সিংহ ও হর্ষ লিম্বাচিয়া

ফুটবল2 days ago

সুসাইরাজকে বাদ দিয়েই ডার্বি জয়ের ছক আবাসের

ফুটবল2 days ago

পেনাল্টি কাজে লাগিয়ে প্রথম ম্যাচে ৩ পয়েন্ট ঘরে তুলল হায়দরাবাদ

ফুটবল1 day ago

পিকে-চুণী স্মরণে ডার্বি শুরুর আগে নীরবতা পালন হোক, আইএসএল কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ জানাল ইস্টবেঙ্গল

দেশ1 day ago

দুর্ভাগ্য! ভ্যাকসিন নিয়ে রাজনীতি হচ্ছে, বৈঠকে বললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

Allahabad High Court
দেশ1 day ago

‘প্রিয়ঙ্কা-সালামাতকে আমরা হিন্দু-মুসলিম হিসেবে দেখি না,” ঐতিহাসিক রায় এলাহাবাদ হাইকোর্টের

দেশ2 days ago

অসমের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তরুণ গগৈ প্রয়াত

কেনাকাটা

কেনাকাটা20 hours ago

ঘর সাজানোর জন্য সস্তার নজরকাড়া আইটেম

খবর অনলাইন ডেস্ক: ঘরকে একঘেয়ে দেখতে অনেকেরই ভালো লাগে না। তাই আসবারপত্র ঘুরিয়ে ফিরে রেখে ঘরের ভোলবদলের চেষ্টা অনেকেই করেন।...

কেনাকাটা4 days ago

লিভিংরুমকে নতুন করে দেবে এই দ্রব্যগুলি

খবর অনলাইন ডেস্ক: ঘরের একঘেয়েমি কাটাতে ও সৌন্দর্য বাড়াতে ডিজাইনার আলোর জুড়ি মেলা ভার। অ্যামাজন থেকে তেমনই কয়েকটি হাল ফ্যাশনের...

কেনাকাটা1 week ago

কয়েকটি প্রয়োজনীয় জিনিস, দাম একদম নাগালের মধ্যে

খবর অনলাইন ডেস্ক: কাজের সময় হাতের কাছে এই জিনিসগুলি থাকলে অনেক খাটুনি কমে যায়। কাজও অনেক কম সময়ের মধ্যে করে...

কেনাকাটা3 weeks ago

দীপাবলি-ভাইফোঁটাতে উপহার কী দেবেন? দেখতে পারেন এই নতুন আইটেমগুলি

খবর অনলাইন ডেস্ক : সামনেই কালীপুজো, ভাইফোঁটা। প্রিয় জন বা ভাইবোনকে উপহার দিতে হবে। কিন্তু কী দেবেন তা ভেবে পাচ্ছেন...

কেনাকাটা4 weeks ago

দীপাবলিতে ঘর সাজাতে লাইট কিনবেন? রইল ১০টি নতুন কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আসছে আলোর উৎসব। কালীপুজো। প্রত্যেকেই নিজের বাড়িকে সুন্দর করে সাজায় নানান রকমের আলো দিয়ে। চাহিদার কথা মাথায় রেখে...

কেনাকাটা2 months ago

মেয়েদের কুর্তার নতুন কালেকশন, দাম ২৯৯ থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক: পুজো উপলক্ষ্যে নতুন নতুন কুর্তির কালেকশন রয়েছে অ্যামাজনে। দাম মোটামুটি নাগালের মধ্যে। তেমনই কয়েকটি রইল এখানে। প্রতিবেদন...

কেনাকাটা2 months ago

‘এরশা’-র আরও ১০টি শাড়ি, পুজো কালেকশন

খবর অনলাইন ডেস্ক : সামনেই পুজো আর পুজোর জন্য নতুন নতুন শাড়ির সম্ভার নিয়ে হাজর রয়েছে এরশা। এরসার শাড়ি পাওয়া...

কেনাকাটা2 months ago

‘এরশা’-র পুজো কালেকশনের ১০টি সেরা শাড়ি

খবর অনলাইন ডেস্ক : পুজো কালেকশনে হ্যান্ডলুম শাড়ির সম্ভার রয়েছে ‘এরশা’-র। রইল তাদের বেশ কয়েকটি শাড়ির কালেকশন অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন...

কেনাকাটা2 months ago

পুজো কালেকশনের ৮টি ব্যাগ, দাম ২১৯ টাকা থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক : এই বছরের পুজো মানে শুধুই পুজো নয়। এ হল নিউ নর্মাল পুজো। অর্থাৎ খালি আনন্দ করলে...

কেনাকাটা2 months ago

পছন্দসই নতুন ধরনের গয়নার কালেকশন, দাম ১৪৯ টাকা থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক : পুজোর সময় পোশাকের সঙ্গে মানানসই গয়না পরতে কার না মন চায়। তার জন্য নতুন গয়না কেনার...

নজরে