Connect with us

পরিবেশ

রবিবারের পড়া: চলছে নির্বিচার বৃক্ষনিধন, মানুষ হচ্ছে প্রকৃতি-বিচ্ছিন্ন

Published

on

today's slogan
সন্তোষ সেন

উফ কী গরম পড়ছে গত দু-তিন বছর ধরে। বৃষ্টিও হচ্ছে অনিয়মিত, অপ্রতুল। আবার কখনও কোনো কোনো অঞ্চল প্লাবিত হচ্ছে মনুষ্যসৃষ্ট বন্যার কবলে পড়ে। কী দিনকাল পড়ল রে বাবা – এই সব যখন আমরা, আমআদমি, ভাবছি তখন কিন্তু এর পিছনের কারণগুলো অনেকেই খুঁজে দেখছি না। এ সবের ভিলেন হল – বায়ুদূষণ, ভূ-উষ্ণায়ন বা গ্লোবাল ওয়ার্মিং, ব্যাপক হারে জঙ্গল ধ্বংস ইত্যাদি।

হিসেবমতো ভারতবর্ষে বনাঞ্চল থাকার কথা মোট ভূমির অন্তত ৩০ শতাংশ, তা কমতে কমতে আজ প্রায় ২২ শতাংশে পৌঁছেছে। কয়েকটি নমুনা দেখা যাক। গত পাঁচ বছরে আমাদের দেশে এক লক্ষ কুড়ি হাজার হেক্টর বনাঞ্চল স্রেফ হাওয়া করে দেওয়া হয়েছে, যা আগের পাঁচ বছরের তুলনায় ৩৬ শতাংশ বেশি। নিয়মগিরি, মালকানগিরি, বস্তার-সহ ছত্তীশগঢ়ের বিস্তৃত বনাঞ্চল নামজাদা শিল্পপতিদের মালিকানাধীন বহুজাতিক কোম্পানির হাতে তুলে দেওয়া হচ্ছে মাটির নীচে লুকিয়ে থাকা খনিজ সম্পদ তুলে আনার জন্য। এই সব কোম্পানির অপরিসীম লোভ, লালসা মেটাতে জানি না কাটা পড়বে আরও কত সহস্র হেক্টর বনাঞ্চল।

Loading videos...

এরই মধ্যে আশার কথা – দান্তেওয়াড়ার মূল নিবাসী আদিবাসীদের সংগঠিত প্রতিবাদ-প্রতিরোধের মুখে পড়ে বায়লাডিলাতে আদানি গোষ্ঠীর সাধের লোহা-ইস্পাত শিল্প এখন বিশ বাঁও জলে। স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললাম আমরা – হয়তো-বা বেঁচে যাবে কয়েক হাজার বৃহৎ বৃক্ষ, ধ্বংসের হাত থেকে। রক্ষা পাবে হাজার হাজার জীববৈচিত্র্য, বন্যপ্রাণী তথা সামগ্রিক বাস্তুতন্ত্র।

কিন্তু এই বনানী ধ্বংসের জন্য শুধু মুনাফাবাজ বহুজাতিক কোম্পানিকে দোষ দিয়ে লাভ কী, যখন দেশের সরকার, প্রশাসন একই পথের শরিক? সারা বছরই কার্যত নির্জলা থাকে মহারাষ্ট্রের বিদর্ভ অঞ্চল। জলের জন্য হাহাকার। এই হাহাকারে বধির থেকে প্রশাসন এখানকার অমরাবতী ডিভিশনে প্রায় এক লক্ষ গাছ কাটার পরিকল্পনা করেছে। উপলক্ষ্য, ৭০১ কিমি দীর্ঘ মুম্বই-নাগপুর সুপার হাইওয়ে বানানো। উন্নয়নের যজ্ঞে আবার প্রাণ দিতে চলেছে তারা, যারা আমাদের সুস্থ ভাবে বেঁচে থাকার রসদ জোগায়।

আমাদের রাজ্যও এই তালিকা থেকে বাদ নয়। এখানেও অপরিকল্পিত, অবৈজ্ঞানিক উন্নয়নের জন্য চলছে নির্বিচারে সবুজ ধ্বংস। জলাভূমি, পুকুর, নদী-নালা দখল করে ছুটে চলেছে উন্নয়নের রথ। জাপানের এক বহুজাতিক কোম্পানির সাধের মডেল – বামনির পর টুর্গা পাম্প স্টোরেজ প্রকল্প। শক্তির অপচয় করে লোয়ার ড্যাম থেকে পাম্প করে আপার ড্যামে জল তুলে শহরের বাবুদের জন্য পিক টাইমে বিদ্যুৎ দেওয়ার অযৌক্তিক, অবৈজ্ঞানিক টুর্গা প্রকল্পের জন্য পুরুলিয়ার অযোধ্যা পাহাড় এলাকায় কম করে তিন লক্ষ গাছ কাটা পড়বে, অন্তত দশটি গ্রাম তলিয়ে যাবে জলের তলায়। এর আগে বামনি প্রকল্পে ধ্বংস হয়ে যাওয়া কয়েক লক্ষ গাছের পরিবর্তে কোনো নতুন গাছ লাগানো হয়নি। আর নতুন কয়েকটা গাছ লাগালেই বাস্তবে লতা-গুল্ম-ফল-মূল-পাখ-পাখালি সমৃদ্ধ সত্যিকারের এক জঙ্গল কি তৈরি করা যায়? জঙ্গল তৈরি হয় প্রাকৃতিক উপায়ে।

এ বার একটু দেশ ছেড়ে বিদেশের দিকে তাকানো যাক। ১৯৭৮ থেকে আজ পর্যন্ত ব্রাজিল, পেরু, কোলোম্বিয়া, বোলিভিয়া, ভেনেজুয়েলা প্রভৃতি দেশ থেকে পৃথিবীর ফুসফুস বলে খ্যাত বৃহত্তম বৃষ্টিঅরণ্য আমাজনের চার লক্ষ বর্গ কিলোমিটারব্যাপী বৃহৎ বৃক্ষরাজি জাস্ট ভ্যানিশ করে দেওয়া হয়েছে। ২০১১-য় দিলমা রৌসেফ ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট হওয়ার অনেক আগে থেকেই সেখানে যে বন-সংহারের কাজ শুরু হয়েছিল, তা গুণিতক হারে বেড়ে গিয়েছে বর্তমান প্রেসিডেন্ট জাইর বোলসোনারো ক্ষমতাসীন হওয়ার পর থেকে।

আরও পড়ুন রবিবারের পড়া: আর মাত্র পনেরোটা বছর, তার পর হয়তো…

চাষবাস, বিশেষ করে গবাদি পশুর খাদ্যশস্য চাষ, মাটির বুক চিরে আকরিক তুলে আনা, আসবাব তৈরির জন্য বহুমূল্য মেহগনি, সেগুন রফতানি বা পাচার করা, নদীর বুকে জলাধার বা ওভারব্রিজ বানানো আর বহুজাতিক কোম্পানি-সহ কাঠমাফিয়াদের সহজে জঙ্গলে ঢোকার রাস্তা তৈরি করার ফলে আমাজন নামক এক বিশাল বৃষ্টিঅরণ্য হয়তো চিরকালের জন্য হারিয়ে যেতে চলেছে পৃথিবীর মানচিত্র থেকে। বন-সংহার, ধরণীর বুক চৌচির করে খনিজ সম্পদ লুঠ চলছে অবাধে, সরকার-প্রশাসনের মদতে।

সবুজের সমারোহ এক বৃহৎ বনানী এক দিকে বাতাস থেকে কয়েক লক্ষ টন দূষিত কার্বন ডাইঅক্সাইড শুষে নিয়ে আমাদের উপহার দেয় কয়েক কোটি টাকার বিশুদ্ধ বাতাস অক্সিজেন, যা প্রাণ ভরে বুকে টেনে নিয়ে বেঁচে থাকি আমরা। অন্য দিকে পথিককে দেয় শীতল ছায়া। শুধু মানুষই নয়, লক্ষ লক্ষ কীটপতঙ্গ, পশুপাখি, অণুজীবদের আশ্রয়স্থল এই বনরাজি। তাই গাছ কেটে জঙ্গল ধংস করলে কার্বন ডাইঅক্সাইডের পরিমাণ বেড়ে পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা যায় বেড়ে, দেখা দেয় গ্লোবাল ওয়ার্মিং। যার ফলে মেরু-বরফ দ্রুত হারে যাচ্ছে গলে, হলে চলেছে হিমালয়ের গ্লেসিয়ারসমূহ।

বিজ্ঞানীদের গবেষণা বলছে, পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা আর তিন ডিগ্রি বেড়ে গেলে সমুদ্রজলের উচ্চতা সাড়ে ছয় ফুট পর্যন্ত ফুলে ফেঁপে উঠবে, ফলে জলের তলায় তলিয়ে যাবে উপকূলবর্তী অঞ্চল ও সংলগ্ন সব শহর, মারা যাবেন বা বাস্তুচ্যুত হবেন লক্ষ কোটি মানুষ। বিপর্যস্ত পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তনের হাত ধরে মানবসভ্যতা অবলুপ্তিতে কিনারায় দাঁড়িয়ে। ‘Natural essence of man’ – এই আপ্তবাক্যটি ভুলে মেরে মানুষ আজ প্রকৃতি থেকে সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন, বিক্ষিপ্ত। প্রকৃতির থেকে তৈরি মানুষকে হতে হবে প্রাকৃতিক। প্রকৃতির উপর প্রভুত্ব বা দখলদারি নয়, থাকতে হবে প্রকৃতির অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসেবেই। তবেই সম্ভব হবে মানবসভ্যতাকে চির অবলুপ্তির হাত থেকে বাঁচানো। আগামী প্রজন্মের জন্য শুদ্ধ বাতাস, বিশুদ্ধ পরিমিত জল ও একটা সুস্থ প্রাকৃতিক পরিবেশ রেখে যাওয়া সম্ভব হবে। এ অঙ্গীকার হোক আমার, আপনার সকলের। আর দেরি নয়, বিপর্যস্ত পরিবেশকে ঠিক করার কাজে হাত লাগাতে হবে এক্ষুনি, হ্যাঁ এক্ষুনি।

পরিবেশ

২০ বছরে বাংলাদেশের সুন্দরবনে ২৫ বার আগুন, পুড়ে গেছে প্রায় ৮১ একর বনভূমি

ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ১৮ লাখ ৫৫ হাজার ৫৩৩ টাকা।

Published

on

ঋদি হক: ঢাকা

বাংলাদেশের সুরক্ষা দেওয়াল সুন্দরবনে কেন বার বার অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে!  নেপথ্যের রহস্যই বা কী? বিগত ২০ বছরে ২৫ বার আগুন লেগেছে সেখানে। আগুনের লেলিহান শিখায় পুড়ে গেছে প্রায় ৮১ একর বনভূমি। তাতে ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ১৮ লাখ ৫৫ হাজার ৫৩৩ টাকা। কিন্তু আগুন লাগার কারণ অজ্ঞাত। সুন্দরবনের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের সূত্রে এ সব তথ্য জানা গেছে।

Loading videos...

তবে বন বিভাগের খবর, ২০০২ থেকে ২০২১ সনের ৩ মে পর্যন্ত বিশ বছরে আগুনে পুড়েছে সুন্দরবনের প্রায় ৭২ একর বনাঞ্চল।

সর্বনাশা আগুনের লেলিহান শিখা যেন ম্যানগ্রোভ সুন্দরবনের পিছু ধাওয়া করে ফিরছে। সুযোগ পেলেই আগুনের লেলিহান শিখা ছড়িয়ে পড়ে এই জঙ্গলে। বছর ঘুরতে না ঘুরতেই বলতে গেলে একই এলাকায় বারংবার আগুন লাগে। একের পর এক আগুনে ক্ষতবিক্ষত বাংলাদেশ রক্ষার দেওয়াল সুন্দরবন। বেড়েই চলেছে জীববৈচিত্র্যের ক্ষতি। 

সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগ সূত্রের খবর, ২০০২ সালে সুন্দরবনের পূর্ব বিভাগের চাঁদপাই রেঞ্জের কটকায় আগুন লাগে একবার। একই রেঞ্জের নাংলি ও মান্দারবাড়িয়ায় দু’ বার। ২০০৫ সালে পচাকোড়ালিয়া, ঘুটাবাড়িয়ার সুতার খাল এলাকায় দু’ বার। ২০০৬ সালে তেড়াবেকা, আমুরবুনিয়া, খুরাবাড়িয়া, পচাকোড়ালিয়া ও ধানসাগর এলাকায় পাঁচ বার অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

২০০৭ সালে পচাকোড়ালিয়া, নাংলি ও ডুমুরিয়ায় তিন বার, ২০১০ সালে গুলিশাখালিতে এক বার। ২০১১ সালে নাংলিতে দু’ বার। ২০১৪ সালে গুলিশাখালিতে এক বার। ২০১৬ সালে নাংলি, পচাকোড়ালিয়া ও তুলাতলায় তিন বার। ২০১৭ সালে মাদ্রাসারছিলায় এক বার এবং চলতি বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি ধানসাগর এলাকায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

সর্বশেষ সুন্দরবনের দাসের ভারানি এলাকায় আগুন লাগে গত সোমবার অর্থাৎ ৩ মে সকাল ১১টায়। ৩০ ঘণ্টা পর মঙ্গলবার বিকালে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসার কথা জানায় বন বিভাগ ও ফায়ার সাভির্স। পরে সন্ধ্যায় সুন্দরবন ছেড়ে চলে যায় ফায়ার সাভির্সের ৩টি ইঞ্জিন। 

সর্বশেষ বুধবার ভোর থেকে একই স্থানে ফায়ার লাইনের মধ্যেই ফের আগুন লাগে। তাতে গাছপালা ও লতাগুল্ম দাউদাউ করে জ্বলতে থাকে। আগুনের খবর পেয়ে সকালে বন বিভাগ ও ফায়ার সার্ভিসের শরণখোলা থেকে একাধিক ইঞ্জিন ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার কাজ শুরু করে। পরবর্তীতে মোরেলগঞ্জ ও বাগেরহাটের ফায়ার সার্ভিসের আরও দু’টি ইঞ্জিন ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে আগুন নেভানোর কাজে যুক্ত হয়। স্থানটি লোকালয় থেকে প্রায় ৩ কিলোমিটার বনের গহীনে দাসের ভারানি এলাকায়।

সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের শরণখোলা রেঞ্জ কর্মকর্তা ও তদন্ত কমিটির প্রধান সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ) জয়নাল আবেদিন তৃতীয় দিনের মতো শরণখোলা রেঞ্জের দাসের ভারানি এলাকায় আগুন লাগার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, শরনখোলা, মোরেলগঞ্জ ও বাগেরহাটের ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইঞ্জিন-সহ বন বিভাগ ও সুন্দরবন সুরক্ষায় নিয়োজিত ভিটিআরসি টিমের সদস্যরা আগুন নেভানোর কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

ওই আগুন লাগার কারণ ও ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নিরূপণে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বন বিভাগ। কমিটিকে সাত কার্যদিবসের মধ্যে বিভাগীয় বন কর্মকর্তার কাছে (ডিএফও) প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

আরও পড়ুন: প্রথম বার ভারত থেকে রেলপথে বাংলাদেশ আমদানি করছে ৫০ হাজার টন চাল

Continue Reading

দেশ

Caribbean Volcano: ক্যারিবিয়ানে জেগে উঠেছে আগ্নেয়গিরি, ভারতের বায়ুমণ্ডলে পৌঁছে গিয়েছে বিষাক্ত সালফার ডাইঅক্সাইড

মানবশরীরে মারাত্মক প্রভাব ফেলতে পারে।

Published

on

উপগ্রহ চিত্রে দেখা যাচ্ছে কী ভাবে ক্যারিবিয়ান থেকে ভারতের দিকে এসে গিয়েছে সালফার ডাইঅক্সাইড। ছবি: সেন্টিনেল ৫ উপগ্রহ।

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সুদূর ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জের ভয়াবহ আগ্নেয়গিরি। সেখান থেকে নির্গত বিষাক্ত গ্যাস ভারতের বায়ুমণ্ডলেও পৌঁছে গিয়েছে। উপগ্রহ চিত্র বিশ্লেষণ করে এমনই জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। এর পরিণাম ভয়াবহ হতে পারে বলে ইতিমধ্যেই সতর্ক করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

৯ এপ্রিল শুরু হয় অগ্ন্যুৎপাত

গত ৯ এপ্রিল আচমকা জেগে ওঠে এই ঘুমন্ত দৈত্য। ৪২ বছর ধরে ঘুমিয়ে ছিল সে। কিন্তু গত সপ্তাহের শুক্রবার সে জেগে ওঠে। ক্যারিবিয়ান সাগরের সেন্ট ভিনসেন্ট দ্বীপে অবস্থিত লা সুফ্রিয়া পর্বত। জেগে উঠেই প্রলয় শুরু করে সে। আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাত এতটাই প্রবল যে বাতাসে ৬ কিমি অবধি উঁচুতে কালো ছাইয়ে ঢেকে যায়। এমনকি আশেপাশের ২০ কিমি এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে সেই ছাই।

Loading videos...

অগ্ন্যুৎপাতের ফলে উড়ন্ত গরম ছাই বাড়ি ঘর ও ফসলের ওপরে পড়েছে। এর ফলে মারাত্মক ক্ষতি হয়েছে ফসলের। আশেপাশের অঞ্চলের প্রায় ১৬ হাজার বাসিন্দাকে নিরাপদে সরানো হলেও প্রচুর প্রাণী মারা গিয়েছে। ফসলের ক্ষতি অপরিসীম।

আগ্নেয়গিরির অঞ্চলে উদ্ধারকাজ শুরু হয়েছে। জানা গিয়েছে, সেন্ট ভিনসেন্টের প্রায় ১০ শতাংশ মানুষ এই এলাকায় বাস করে। কিন্তু বিপুল পরিমাণে ছাই রাস্তাঘাট, ট্রেনলাইনে পড়ে থাকার দরুণ উদ্ধারকাজে মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে। তবে আশার কথা একটাই যে এখনও পর্যন্ত মানুষ মারা যায়নি।

জ্বলছে আগ্নেয়গিরি।

ভারতে পৌঁছে গেল বিষাক্ত সালফার ডাইঅক্সাইড

এই আগ্নেয়গিরি থেকে এখন অন্য ভয়ের জিনিস দেখতে পাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। অতলান্তিক মহাসাগর, আফ্রিকা মহাদেশ পেরিয়ে এই আগ্নেয়গিরি থেকে নির্গত বিষাক্ত সালফার ডাইঅক্সাইড এখন ভারতের বায়ুমণ্ডলে এসে গিয়েছে। সেন্টিনেল ৫ উপগ্রহ চিত্রে এই ছবি ধরা পড়েছে।

উপগ্রহ চিত্রে দেখা যাচ্ছে, দক্ষিণ আমেরিকা মহাদেশের উত্তর প্রান্ত থেকে উত্তরপশ্চিম ভারত পর্যন্ত সালফার ডাইঅক্সাইডের জমাট বাঁধা একটি সমান্তরাল রেখা তৈরি হয়ে গিয়েছে। ওই রেখা বরাবরই এগিয়ে আসছে এই বিষাক্ত গ্যাসটি। দেখে মনে হচ্ছে এর প্রভাব উত্তর ভারতে পড়তে পারে। তার পর সেটি চিনের দিকে এগিয়ে যেতে পারে। পূর্ব ভারতে এর প্রভাব পড়ার সম্ভাবনা নেই বলেই মনে হচ্ছে।

শরীরে কুপ্রভাব ফেলতে পারে

মানুষের শরীরে খুব খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে সালফার ডাইঅক্সাইড। বিশেষত হাঁপানি, ব্রঙ্কাইটিস, হার্ট এবং ফুসফুসের রোগীদের সমস্যা আরও গুরুতর হতে পারে। এই গ্যাসটি মানুষের শরীরে গেলে মানুষের মৃত্যু পর্যন্তও হতে পারে। সাধারণত সালফার ডাইঅক্সাইড শরীরে যাওয়ার প্রভাব বোঝা যায় ১০ থেকে ১৫ মিনিটের মধ্যে।

ফলে পরিস্থিতি যে খুব একটা ভালো নয়, সেটা বোঝাই যাচ্ছে। উত্তর ভারতের বাসিন্দাদের সতর্ক থাকা ছাড়া আপাতত আর কোনো রাস্তা নেই।

খবরঅনলাইনে আরও পড়তে পারেন

Indianapolis Shooting: বন্দুকবাজের হামলায় হত ৮, নিহতদের মধ্যে চার জনই শিখ সম্প্রদায়ের

Continue Reading

দেশ

আগুনে পুড়তে থাকা সিমলিপালে স্বস্তির বৃষ্টি, আনন্দে নেচে উঠলেন মহিলা বন আধিকারিক

শনিবার পর্যন্ত আরও বৃষ্টির সম্ভাবনা।

Published

on

খবরঅনলাইন ডেস্ক: প্রকৃতিকে রক্ষা করার দায়িত্ব প্রকৃতিই নিয়ে নিল। আর সেই আনন্দে নেচে উঠল মানুষ। এমনই ঘোষণা ঘটেছে বুধবার ওড়িশার সিমলিপাল জাতীয় উদ্যানে।

গত দুই সপ্তাহ ধরে ভয়াবহ আগুনের গ্রাসে ছিল এই জাতীয় উদ্যান। দাবানলে পুড়ে ছারখার হয়ে গিয়েছে এই ন্যাশনাল পার্কের অনেকটা অংশ। কতো যে বন্যপ্রানের মৃত্যু হয়েছে তার হিসেব নেই। সেই আগুন নেভাতে গিয়ে বন আধিকারিক এবং দমকল যখন অসহায়, তখনই নামল স্বস্তির বৃষ্টি।

Loading videos...

বুধবার দুপুরের পর থেকে সিমলিপালের অনেকটা অংশ জুড়ে জোর বৃষ্টি হয়েছে। কোথায় কোথাও শিলাবৃষ্টিও হয়েছে। এতে আগুন অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে এসে গিয়েছে।

সিমলিপালে বৃষ্টি শুরু হওয়ার পর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে একটি ভিডিও। সেখানে দেখা গিয়েছে,  বনবিভাগের এক মহিলা আধিকারিক আনন্দে নাচতে শুরু করেছেন। আকাশের দিকে হাত তুলে নাচতে নাচতে উদাত্ত কণ্ঠে তিনি বলছেন, “বহুত যাদা বর্ষা দে”, অর্থাৎ আরও বেশি বৃষ্টি দাও।

ইন্ডিয়ান ফরেস্ট অফিসার রমেশ পাণ্ডে এই ভিডিও শেয়ার করেছেন টুইটারে। ক্যাপশনে তিনি লিখেছেন, “এই রকম পরিস্থিতিতে বৃষ্টি হওয়া ঈশ্বরের অসীম কৃপা। ওই মহিলা অফিসার কেন এতটা খুশি সেটা আমরা সবাই আন্দাজ করতে পারছি। আগুন অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে এসে গিয়েছে। সাম্প্রতিক স্যালেটাইট ডেটা থেকে তেমনটাই জানা গিয়েছে।”

প্রাথমিক ভাবে টুইটারে এই ভিডিয়ো শেয়ার করেছিলেন ডক্টর যুগল কিশোর মহান্ত। তিনি জানিয়েছিলেন, এই মহিলা আধিকারিকের নাম স্নেহা ঢাল। সিমলিপাল জাতীয় উদ্যানে দাবানলের পর আগুন নেভানোর কাজে সর্বক্ষণের জন্য রয়েছেন স্নেহা।

আরও আনন্দের কথা হল শনিবার পর্যন্ত প্রায় রোজই দুপুরের পর সিমলিপাল অঞ্চলে ঝড়বৃষ্টি হতে পারে। ফলে আগুন যে একদমই নিভে যাবে তা বলাই বাহুল্য।

খবরঅনলাইনে আরও পড়তে পারেন

৫ বছরে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সম্পদ কমে প্রায় অর্ধেক!

Continue Reading
Advertisement
Advertisement
বিদেশ23 mins ago

২৫ বার এভারেস্ট শীর্ষে, নিজের রেকর্ড ভেঙে ইতিহাস সৃষ্টি করলেন কামি রিটা শেরপা

ক্রিকেট2 hours ago

IPL 2021: বাকি ম্যাচগুলি আয়োজন করতে চেয়ে বিসিসিআইকে আবেদন জানাল শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড

দেশ2 hours ago

Coronavirus Second Wave: এ বার সম্পূর্ণ লকডাউনের পথে হাঁটল তামিলনাড়ুও

রাজ্য2 hours ago

Bengal Corona Update: রাজ্যের ১৫ জেলায় মৃত্যুহার ১ শতাংশের কম

দেশ3 hours ago

Corona Update: দৈনিক সংক্রমণ কিছুটা কমলেও মৃতের সংখ্যায় রেকর্ড, তবুও মৃত্যুহার নিম্নমুখী

দেশ3 hours ago

Delhi Covid Crisis: অক্সিজেনের সংকট শেষ, তিন মাসের মধ্যে সব দিল্লিবাসীর টিকাকরণ হয়ে যাবে, জানালেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল

দেশ4 hours ago

Assam CM Dilema: ফলাফলের ছ’দিন পরেও মুখ্যমন্ত্রীর ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে পারল না বিজেপি

দেশ4 hours ago

Coronavirus Second Wave: করোনা মোকাবিলায় এ বার দু’ সপ্তাহের সম্পূর্ণ লকডাউন জারি হল কর্নাটকে

রাজ্য3 days ago

কমিশনের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে পুনর্গণনার দাবিতে আদালতে যাওয়ার হুঁশিয়ারি শুভেন্দু অধিকারীর

রাজ্য3 days ago

বৃহস্পতিবার থেকে রাজ্যে লোকাল ট্রেন বন্ধ, মেট্রো ও সরকারি বাস অর্ধেক, এক গুচ্ছ ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

sourav ganguly
ক্রিকেট2 days ago

Covid Crisis in IPL: জৈব সুরক্ষা বলয়ে কোনো ফাঁক ছিল বলে মনে করেন না সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়

দেশ2 days ago

Corona Update: দু’তিনটে রাজ্যে সংক্রমণবৃদ্ধির জের, ভারতের দৈনিক সংক্রমণ ভেঙে দিল অতীতের রেকর্ড

রাজ্য3 days ago

Bengal Corona Update: দৈনিক সংক্রমণ ১৮ হাজারের গণ্ডি পেরোলেও কমল সংক্রমণের হার, পর পর ৪ দিন সুস্থতার হারে বৃদ্ধি

রাজ্য2 days ago

Post-Poll Violence: ইন্ডিয়া টুডে-র সাংবাদিকের ছবি পোস্ট করে হিংসায় মৃত হিসেবে বর্ণনা বিজেপির

ক্রিকেট3 days ago

অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন স্পিনার অপহৃত, পরে মুক্ত

রাজ্য2 days ago

Bengal Corona Update: দৈনিক সংক্রমণে স্থিতাবস্থা অব্যাহত, কলকাতায় সক্রিয় রোগীর সংখ্যায় বড়ো পতন

ভিডিও

কেনাকাটা

কেনাকাটা2 months ago

বাজেট কম? তা হলে ৮ হাজার টাকার নীচে এই ৫টি স্মার্টফোন দেখতে পারেন

আট হাজার টাকার মধ্যেই দেখে নিতে পারেন দুর্দান্ত কিছু ফিচারের স্মার্টফোনগুলি।

কেনাকাটা3 months ago

সরস্বতী পুজোর পোশাক, ছোটোদের জন্য কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সরস্বতী পুজোয় প্রায় সব ছোটো ছেলেমেয়েই হলুদ লাল ও অন্যান্য রঙের শাড়ি, পাঞ্জাবিতে সেজে ওঠে। তাই ছোটোদের জন্য...

কেনাকাটা3 months ago

সরস্বতী পুজো স্পেশাল হলুদ শাড়ির নতুন কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই সরস্বতী পুজো। এই দিন বয়স নির্বিশেষে সবাই হলুদ রঙের পোশাকের প্রতি বেশি আকর্ষিত হয়। তাই হলুদ রঙের...

কেনাকাটা3 months ago

বাসন্তী রঙের পোশাক খুঁজছেন?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই আসছে সরস্বতী পুজো। সেই দিন হলুদ বা বাসন্তী রঙের পোশাক পরার একটা চল রয়েছে অনেকের মধ্যেই। ওই...

কেনাকাটা3 months ago

ঘরদোরের মেকওভার করতে চান? এগুলি খুবই উপযুক্ত

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঘরদোর সব একঘেয়ে লাগছে? মেকওভার করুন সাধ্যের মধ্যে। নাগালের মধ্যে থাকা কয়েকটি আইটেম রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার...

কেনাকাটা4 months ago

সিলিকন প্রোডাক্ট রোজের ব্যবহারের জন্য খুবই সুবিধেজনক

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন সামগ্রী এখন সিলিকনের। এগুলির ব্যবহার যেমন সুবিধের তেমনই পরিষ্কার করাও সহজ। তেমনই কয়েকটি কাজের সামগ্রীর খোঁজ...

কেনাকাটা4 months ago

আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আজ রইল আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার সময় যে দাম ছিল...

কেনাকাটা4 months ago

রান্নাঘরের এই সামগ্রীগুলি কি আপনার সংগ্রহে আছে?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরে বাসনপত্রের এমন অনেক সুবিধেজনক কালেকশন আছে যেগুলি থাকলে কাজ অনেক সহজ হয়ে যেতে পারে। এমনকি দেখতেও সুন্দর।...

কেনাকাটা4 months ago

৫০% পর্যন্ত ছাড় রয়েছে এই প্যান্ট্রি আইটেমগুলিতে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: দৈনন্দিন জীবনের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসগুলির মধ্যে বেশ কিছু এখন পাওয়া যাচ্ছে প্রায় ৫০% বা তার বেশি ছাড়ে। তার মধ্যে...

কেনাকাটা4 months ago

ঘরের জন্য কয়েকটি খুবই প্রয়োজনীয় সামগ্রী

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যদিনের প্রয়োজনীয় ও সুবিধাজনক বেশ কয়েকটি সামগ্রীর খোঁজ রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদনটি লেখার সময় যে দাম ছিল তা-ই...

নজরে