লন্ডন : বাইরে থেকেই মানুষের দেহের ভেতরের ছবি তুলতে পারবে ক্যামেরা। চিকিৎসাশাস্ত্রে এমনই একটা ক্যামেরা আবিষ্কার করলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত বিজ্ঞানী কেভ ধালিওয়াল ও তাঁর সহযোগীরা। কেভ ধালিওয়াল হলেন এডিনবরা বিশ্ববিদ্যালয়ের মলিকুলার ইমেজিং অ্যান্ড হেলথকেয়ার টেকনোলজির অধ্যক্ষ। তিনি বিশ্বাস করেন, রোগ নির্ণয়ের ক্ষেত্রে এই ক্যামেরা চিকিৎসকদের অনেক সাহায্য করবে। এর ব্যবহার করা হলে স্ক্যান, এক্স-রে-এর মতো খরচসাপেক্ষ অনেক পরীক্ষাই আর করার দরকার পড়বে না। এই ক্যামেরা শরীরের ভেতরের আলোর উৎস কাজে লাগিয়েই কাজ করতে পারে। তার জন্য আলাদা আলোর দরকার পড়ে না।

কেভিন বলেন, এই ক্যামেরাটি শরীরের রোগ নির্ণয়ের জন্য নানান ক্ষেত্রে ব্যবহারযোগ্য। এত দিন পর্যন্ত যে সব যন্ত্র ব্যবহার করা হয়েছে সেগুলো রোগের উৎসের সামান্য অংশই দেখাতে পেরেছে। কারণ ২০ সেন্টিমিটার পুরু কোষের মধ্যে দিয়ে সম্পূর্ণ বা তার থেকে বেশি স্পষ্ট হওয়া সম্ভব হয়নি। যদিও এন্ডোস্কপির ক্ষেত্রে একটা সরু নরম নল দেহের ভেতরে প্রবেশ করিয়ে ছবি তোলা সম্ভব হয়েছে। তবে তা-ও খুবই খরচসাপেক্ষ ও কষ্টদায়ক। তা ছাড়া নলটা সোজা যাওয়ার পরিবর্তে অনেক সময়ই এ-দিক ও-দিক সরে যায়। ফলে নির্দিষ্ট জায়গার পুরো স্পষ্ট ছবি তোলা সব সময় সম্ভব হয় না।

কিন্তু এই নতুন ক্যামেরাটা প্রত্যেকটা অণু-পরমাণু, কোষ ইত্যাদির স্পষ্ট ও পূর্ণ ছবি তুলতে সক্ষম। তা ছাড়া এটা এতটাই জোরালো যে সামান্য আলোতেই সবটা ধরতে পারে। এর যাবতীয় কার্যকারিতা এন্ডোস্কোপির মতোই। বরং বেশি।

এই গবেষণাটি পরিচালনা করেছে এডিনবরা বিশ্ববিদ্যালয় এবং হ্যারিয়েট-ওয়াট বিশ্ববিদ্যালয়। এরা ‘প্রটিয়াস ইন্টারডিসিপ্লিনারি রিসার্চ কোলাবরেশন’-এরই অংশ। এরা ফুসফুসের রোগ নির্ণয় ও তার চিকিৎসার জন্য নতুন নতুন প্রযুক্তি উদ্ভাবনের কাজ করছে।

এই গবেষণাপত্রটি প্রকাশ করা হয়েছে ‘বায়োমেডিক্যাল অপটিক এক্সপ্রেস’ পত্রিকায়।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন