শিকাগো: স্ত্রী ইঁদুর স্বাস্থ্যবান ইঁদুরছানার জন্ম দিল। ভাবছেন তো, এটা আবার কি এমন বড়ো কথা! তবে শুনুন। স্বাভাবিক ডিম্বাশয় নয়, এটি সম্ভব হয়েছে একটি থ্রিডি প্রিন্টেড ডিম্বাশয়ের সাহায্যে। পরীক্ষাটি করেছেন উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের ফিজবার্গ স্কুল অব মেডিসিন বিশ্ববিদ্যালয়ের নারী স্বাস্থ্যের গবেষণা ইনস্টিটিউটের গবেষকরা। রিপোর্টটি প্রকাশিত হয়েছে ‘নেচার কমিউনিটিস’ পত্রিকায়।

ইনস্টিটিউটের প্রধান বিজ্ঞানী টেরেসা উড্রফ জানান, এই নতুন আবিষ্কারটি  ক্যান্সারে আক্রান্ত সেই সব নারীর কাছে আশার আলো জ্বালিয়েছে, যাঁরা ক্যান্সারের চিকিৎসা করানোর পর বন্ধ্যা হয়ে গিয়েছেন।

টেরেসা বলেন, এই সংস্থার গবেষকরা ম্যাককর্মিক স্কুল অব ইঞ্জিনিয়ারিং –এর  বিজ্ঞানীদের সহযোগিতায় একটি ডিভিডি-প্রিন্টেড ডিম্বাশয় তৈরি করেন। এই বিশেষ অবয়বটাই ডিম্বাশয়ের বীজকোষের সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছিল। এই বীজকোষটি একটি ডিম্বাশয় নিয়েই গঠিত। এই ডিম্বাশয়টি ইস্ট্রোজেন এবং প্রোজেসটেরন হরমোন উৎপন্ন কোষ দ্বারা বেষ্টিত।

এই ভাবে গঠিত বিশেষ ধরনের অবয়বটি একটি ইঁদুরের মধ্যে প্রতিস্থাপন করা হয়েছিল। এই ইঁদুরটির ডিম্বাশয়টি আগেই সরিয়ে নেওয়া হয়েছিল। এটি পরিণত হওয়ার পর ইঁদুরটির ডিম্বাণু উৎপাদন শুরু হয়। সেগুলো স্বাভাবিক ভাবেই মিলিত হয়ে ছানার জন্ম দিয়েছে।

টেরেসা জানান, এই একই পরীক্ষা আবারও করে দেখা হবে। তাকে আরও নির্ভুল ও উন্নত করা হবে। আপাতত প্রথম প্রচেষ্টা সফল হয়েছে।

তিনি জানান, পাঁচ বছরের মধ্যে এই ডিম্বাশয় মানব শরীরে প্রতিস্থাপন করা যাবে বলে আশা করছেন তাঁরা।

প্রসঙ্গত এর আগে কোষ, পেশী, হাড়-সহ অন্যান্য থ্রিডি প্রিন্টেড অঙ্গপ্রতঙ্গ রোগীদের মধ্যে প্রতিস্থাপন করা হয়েছে।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন