অনলাইন গেমে আসক্তি বাড়ছে শিশুদের, কেন্দ্রকে নীতি প্রণয়নের নির্দেশ দিল হাইকোর্ট

0
অনলাইন গেম। প্রতীকী ছবি: gadgetmatch.com থেকে

খবর অনলাইন ডেস্ক: অনলাইন গেমের আসক্তি থেকে বাঁচাতে জাতীয় স্তরের নীতি প্রণয়ন এবং একটি নিয়ন্ত্রক কমিটি গঠনের দাবি জানিয়ে আবেদন জমা পড়েছিল দিল্লি হাইকোর্টে। বুধবার সেই আবেদনের শুনানিতেই কেন্দ্রীয় সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষে বিশেষ নির্দেশ দিল আদালত। বলা হয়েছে, অফলাইন এবং অনলাইন, উভয় ধরনের গেমের উপর পর্যবেক্ষণ চালাতে যথোপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া দরকার।

গত বৃহস্পতিবার বিচারপতি ডিএন পটেল এবং বিচারপতি জ্যোতি সিংয়ের একটি বেঞ্চ আবেদনকারীর আর্জির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য মহিলা ও শিশু উন্নয়ন মন্ত্রক এবং আইন ও বিচার মন্ত্রকের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছিল।

Shyamsundar

আইনজীবী রবিন রাজু এবং দীপা জোসেফের ওই আবেদনে বলা হয়েছে, শিশুদের অনলাইন গেম আসক্তির বিষয়ে উদ্বিগ্ন অনেক অভিভাবক। তাঁদের কাছ থেকে অসংখ্য অভিযোগ পাওয়ার পরই এই আবেদন জানানো হয়েছে।

সাম্প্রতিক বেশ কিছু মিডিয়া রিপোর্টে দেখা গিয়েছে, অনলাইন গেমে আসক্তির জেরে শিশুরা আত্মহত্যা পর্যন্ত করছে। আবার হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়া অথবা চুরি করার মতো ঘটনাগুলিতেও জড়িয়ে যাচ্ছে শিশুরা।

বিশেষ করে ১০ বছরের কম বয়সি শিশুদের মধ্যে অনলাইন গেমের নেতিবাচক প্রভাব জোরালো ভাবে পড়ছে। করোনা মহামারির কারণে স্মার্টফোন, ল্যাপটপ থেকে শিশুদের দূরে রাখা মুশকিল হয়ে দাঁড়িয়েছে। এখন অনলাইনে চলছে পঠনপাঠন। ফলে অভিভাবকরা শিশুদের হাতে এই সামগ্রীগুলি তুলে দিতে বাধ্য হচ্ছেন। ৬-১০ বছর বয়সি শিশু অথবা ১১-১৯ বছর বয়সি কিশোরদের মধ্যে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে।

অনলাইনে গেমে আসক্তি এবং তার ফলস্বরূপ আর্থিক ঝুটঝামেলা মোকাবিলায় সাইবার সেলের ব্যবহারের কথাও জানানো হয়েছে ওই আবেদনে। আবেদনকারীরা বলেছেন, এ ক্ষেত্রে জাতীয় নীতির প্রয়োজন রয়েছে, যা এই সমস্যা মোকাবিলায় স্কুল এবং সাইবার সেলের ভূমিকার উপর জোর দিতে পারে।

আরও পড়তে পারেন: ভারতীয় পড়ুয়াদের নিষিদ্ধ চিনা অ্যাপ ডাউনলোড করতে চাপ, ক্ষতিগ্রস্ত অনলাইন পড়াশোনা

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন