Pegasus -এর মতো স্পাইওয়্যারের থেকে কমপিউটার বা মোবাইলকে সুরক্ষিত রাখবেন কী ভাবে?

    আরও পড়ুন

    খবর অনলাইন ডেস্ক :  ভারতের একাধিক মন্ত্রী, বিরোধী নেতা ও সাংবাদিকের ফোন হ্যাক করেছে ইজরায়েলি সংস্থার তৈরি স্পাইওয়্যার পেগাসাস(Pegasus)। এই ধরনের স্পাইওয়্যার দিয়ে নজরদারি চালানো যায় আপনার ফোন বা কমপিউটারে। প্রশ্ন হল কী ভাবে এই ধরনের স্পাইওয়্যার থেকে আপনার পিসি বা কমপিউটারকে নিরাপদ রাখবেন। তা নিয়েই বিস্তারিত আলোচনা করা হল।

    স্পাইওয়্যার কী?

    স্পাইওয়্যার একধরনের কমপিউটার সফটওয়্যার যা ইন্টারনেটের মাধ্যমে আপনার অজান্তে আপনার কমপিউটারে ইনস্টল হয়ে যায়।

    Loading videos...

    এর মাধ্যমে ব্যবহারকারীর তথ্য চুরি করা যায়। শুধু তাই নয় ফোনে আপনার কথপোকথনের উপরও নজরদারি চালানো যায়।

    - Advertisement -

    আপনার অজান্তে এটি আপনার ভয়েস রেকর্ডার বা ক্যামেরা অন করে দেয় এবং আপনার সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করতে থাকে।

    এটি আপনার কমপিউটারে কিছু অপ্রয়োজনীয় প্রোগ্রাম ইনস্টল করে দেয়। যা আপনার ডেবিট কার্ড বা ক্রেডিট কার্ড সংক্রান্ত তথ্যও হাতিয়ে নিতে পারে।

    কবে প্রথম প্রকাশ

    ১৯৯৬ সালে প্রথম স্পাইওয়্যার শব্দটি জানা যায়। ২০০৪ সালে আমেরিকা একটি সমীক্ষা করে। সেই সমীক্ষায় উঠে আসে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের মধ্যে ৯৫ শতাংশ মানুষ স্পাইওয়্যার আক্রামণের স্বীকার হয়েছে। এর মধ্যে ৯৪ শতাংশ মানুষ জানতেনই না যে তাদের কমপিউটারে স্পাইওয়্যার রয়েছে।

    পেগাসাস স্পাইওয়্যার কী?

    পেগাসাস (Pegasus) ইজরায়েলি সংস্থা এনএসও-র তৈরি একটি সফটওওয়্যার। এটি মূলত মোবাইলে আড়িপাতার অস্ত্র হিসাবে কাজে লাগানো হয়। ফোনে কথাবার্তা, হোয়াটসঅ্যাপে ম্যাসেজ আদান প্রদান সবই জানা যায়। এমন কী ফোন সংরক্ষিত সমস্ত তথ্য নথি, ছবি রয়েছে তাও দেখে ফেলা যায় এর মাধ্যমে।

    আরও পড়ুন : নেতা, মন্ত্রী থেকে সাংবাদিক, দেশ জুড়ে ফোন হ্যাকের অভিযোগ ইজরায়েলি সংস্থার বিরুদ্ধে

    কী ভাবে ফোনে ইনস্টল হয়?

    প্রথমে ফোনে একটি ওয়েবসাইটের লিঙ্ক আসে। সেইলিঙ্কে ক্লিক করলেই পেগাসাস ইনস্টল হয়ে যায়। এ ছাড়া হোয়াটসঅ্যাপে ভয়েস কল বা ভিডিয়ো করে ফোনে ঢুকিয়ে দেওয়া যায়। 

    কয়েকটি অন্য স্পাইওয়্যার

    ট্রোজান : এটি একটি পরিচিত স্পাইওয়্যার। বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোডের সময় এযি সিস্টেমে ইনস্টল হয়ে যায়। একান্ত ব্যক্তিগত তথ্য যেমন ব্যাঙ্কের ক্রেডিট কার্ড সংক্রান্ত তথ্য চুরির ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়।

    কিলগার : এই সফটওয়্যাটি আপনার কমপিউটারে ইনস্টল করলে আপনি কী টাইপ করছেন তার সব তথ্য চলে যাবে অন্যের হাতে। সোশ্যাল মিডিয়া বা ব্যাঙ্কের তথ্য দুষ্কৃতীদের হাতে চলে যেতে পারে। 

    অ্যাডওয়্যার : এটি আপনার ব্রাউজার বা ফোনকে নজর করবে এবং সেই অনুযায়ী অ্যাড দেখাবে। এটি সিস্টেমে ইনস্টল হলে কমপিউটার স্লো হয়ে যায়।

    এগুলি ছাড়াও আর কয়েকটি স্পাইওয়্যার হল, ট্র্যাকিং কুকি, সিস্টেম মনিটর, কী বোর্ড লগার, ব্রাউজার হাইজ্যাক, ব্যাঙ্কার টোজান ইত্যাদি।

    স্পাইওয়্যার থেকে নিজের কমপিউটার বা মোবাইলকে নিরাপদে রাখবেন কী ভাবে?

    আরও পড়ুন : প্রি-অ্যাক্টিভেট সিম কার্ড দেওয়া বন্ধ করুন, টেলিকম অপারেটরদের বলল পুলিশ

    মোবাইল বা কমপিউটারকে নিরাপদে রাখার জন্য বিশ্বাসযোগ্য ওয়েবসাইট ব্যাবহার করুন। অজানা কোন লিঙ্ক থেকে কোন কিছু ডাউনলোড করবেন না।

    সোশ্যাল মিডিয়ায় অপ্রয়োজনীয় লিঙ্ক ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন। সেই সব ব্যবহার করলে আপনার অ্যাকাউন্টটি হ্যাক হয়ে যেতে পারে।

    কোনো অপ্রয়োজনী প্রোগ্রাম দেখলে দ্রুত তাকে আনইনস্টল বা ডিলিট করুন। প্রয়োজনে কমপিউটার বা মোবাইল রির্স্টাট করে ভালো করে চেক করে দেখুন সেটি আছে কি না।

    অপরিচিত অ্যাড্রেস থেকে কোনো ই-মেল এলে তা খোলা থেকে বিরত থাকুন। কারণ, এই ধরনের ই-মেল খুলুলেই স্পাইওয়্যার আপনার মেশিনে ডাউনলোড হয়ে যাবে।

    কমপিউটার বা ফোনে অপারেটিং সিস্টেন নিয়মিত আপডেট করুন। এরফলে আপনার ডিভাইসগুলি নিরাপত্তা আরও বাড়বে।

    কমপিউটার বা নিজের মোবাইলকে সুরক্ষিত রাখতে অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করুন।আজকাল কম দামে ভালো অ্যান্টিভাইরাস পাওয়া যায়। চেষ্টা করুন প্রযুক্তি সম্পর্কে নিজেকে আপডেট রাখতে। তবে সবার পক্ষে এটা হয়তো সম্ভব নাও হতে পারে। তবে দুটো বিষয় অবশ্যই খেয়াল রাখবেন। অপরিচিত কোন লিঙ্ক বা মেল খুলবেন না। হঠাৎ করে আসা কিছু সফটওয়্যার না জেনে বুঝে ফোন বা কমপিউটারে ইনস্টল করবেন না।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

    - Advertisement -

    আপডেট খবর