30 C
Kolkata
Friday, June 18, 2021

DigiLocker: কী এই ডিজিলকার এবং এটা কী কাজে লাগে? সম্পর্কিত প্রতিটি প্রশ্নের উত্তর জানুন

আরও পড়ুন

খবর অনলাইন ডেস্ক: এখন অনেকেই নিজের গুরুত্বপূর্ণ নথিপত্র নিজের মানিব্যাগ অথবা পকেটে রাখেন না। দরকারি নথি পকেটে করে নিয়ে ঘোরার দিন শেষ। এই উন্নত প্রযুক্তির যুগে, আপনি নিজের ডকুমেন্টগুলি আপনার ফোনে রাখার সুবিধা পাবেন এবং সেটা ডিজিলকারের মাধ্যমে সম্ভব। ডিজিটাল লকার বা ডিজিলকার (DigiLocker) একটি ভার্চুয়াল লকার।

নিজের গুরুত্বপূর্ণ নথিগুলো অনলাইনে জমা করে রাখার জন্য আপনি এই ভার্চুয়াল লকার ব্যবহার করতে পারেন। ডিজিলকার অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য আধার কার্ডের প্রয়োজনী। ডিজিলকারে আপনি প্যান কার্ড, পাসপোর্ট, ভোটার আইডি ছাড়াও যে কোনো সরকারি প্রমাণপত্র রাখতে পারবেন।

Loading videos...

DigiLocker অ্যাকাউন্ট কী ভাবে তৈরি করবেন?

- Advertisement -

১. ডিজিলকারে একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে প্রথমে digilocker.gov.in বা Digitallocker.gov.in ওয়েবসাইটে যান।

২. ওয়েবসাইটের ডানদিকে Sign Up ক্লিক করুন।

৩. এটি করার পরে, একটি নতুন পৃষ্ঠা খুলবে যেখানে আপনি নিজের মোবাইল নম্বর দিতে পারবেন।

৪. ডিজিলকার রেজিস্টার্ড মোবাইল নম্বরে একটি ওটিপি আসবে, সেটা দিতে হবে।

৫. এ বার ইউজার নেম এবং পাসওয়ার্ড সেট করতে হবে।

৬. এ ভাবেই ডিজিলকার অ্যাকাউন্ট তৈরি হয়ে গেলে তা ব্যবহার করতে পারবেন।

ডিজি লকারে কী ভাবে কোনো নথি সংরক্ষণ করবেন?

ডিজিলকারে আপনার কোনো নথি সংরক্ষণ করতে, আপনাকে প্রথমে তা স্ক্যান করতে হবে। আপনি চাইলে আপনার ডকুমেন্টের একটি স্পষ্ট ছবিও তুলে নিতে পারেন। এর পরে আপনি সেটাকে ডিজিলকারে সেভ করতে পারেন।

ধাপে ধাপে জেনে নিন পদ্ধতি

সবার আগে ডিজিলকারে লগইন করুন।

সাইটের বাম পাশের Uploaded Documents-এ যান এবং আপলোড ক্লিক করুন।

আপনার নথি সম্পর্কে সম্পূর্ণ বিবরণ দিন।

আপলোড বাটনে ক্লিক করুন।

সেভ করা নথির বৈধতা কতটা?

ডিজিলকারে আপনি নিজের দশম, দ্বাদশ, স্নাতকোত্তর মার্কশিট পাশাপাশি ড্রাইভিং লাইসেন্সের মতো নথিও সংরক্ষণ করতে পারবেন। এখানে আপনি শুধু ৫০ এমবি সাইজের নথি আপলোড করা যায় এবং একটি ফোল্ডার তৈরি করে নথিও আপলোড করতে পারেন। ট্র্যাফিক পুলিশ, রেল সফরে ভেরিফিকেশনের সময় ডিজিলকারে সংরক্ষিত নথিগুলি দেখাতে পারেন।

ডিজিলকার কতটা নিরাপদ?

সুরক্ষার দিক থেকে ডিজিলকার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট এবং নেট ব্যাঙ্কিংয়ের মতোই নিরাপদ। ডিজিলকারে একটি ইউজার আইডি এবং পাসওয়ার্ড তৈরি করতে হয়। এর পরে, সেটার সঙ্গে আধার কার্ড লিঙ্ক করতে হয়। এগুলি ছাড়াও আপনাকে নিজের মোবাইল নম্বরটিও রেজিস্টার্ড করতে হবে। ফলে এটার নিরাপত্তা ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট এবং নেট ব্যাঙ্কিংয়ের মতোই।

আরও পড়তে পারেন: পশ্চিমবঙ্গ সরকারের কোভিড অ্যাপ, সহজে জানা যাবে যাবতীয় তথ্য

- Advertisement -

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

- Advertisement -

আপডেট

আজ নির্ধারিত সময়ের আধ ঘণ্টা আগেই শুরু টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ভারত এবং নিউজিল্যান্ডের মধ্যে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল শুরু হবে নির্ধারিত সময়ের আধ ঘণ্টা আগে, অর্থাৎ বিকেল...

পড়তে পারেন