আপনি যদি হোয়াটসঅ্যাপ, টুইটার, ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম এবং অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করেন, তা হলে বিপদে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে, সময় থাকতে সতর্ক হোন।

নিজের অজান্তেই প্রতারণার শিকার

বন্ধুবান্ধব, পরিবার এবং সহকর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগের জন্য সোশ্যাল মিডিয়া অন্যতম জনপ্রিয় এবং বিনোদনের মাধ্যম। কিন্তু আজকাল এই প্ল্যাটফর্মে অনেক সময়ই প্রতারণার শিকার হয়ে যান অনেকেই। সোশ্যাল মিডিয়ায় এমন কিছু মেসেজ আসে, যা আকর্ষণীয় উপহার বা উপকারের প্রতিশ্রুতি দেয়। সেখানে দেওয়া ক্লিক করার কথা জানানো হয় ওই সব মেসেজে। বলা হয় পুরস্কারের সুযোগ নিতে একমাত্র উপায় হল লিঙ্কে ক্লিক করা।

কিন্তু কোনো ব্যবহারকারী ওই ধরনের ভুয়ো লিঙ্কে ক্লিক করলেও কোনো অ্যাপ ডাউনলোড করতে বলা হয় অথবা স্বয়ংক্রিয় ভাবে ডাউনলোড হয়ে যায়। ব্যবহারকারীর ফোন বা কম্পিউটারে ম্যালওয়ারও ডাউনলোড হয়ে যেতে পারে। ব্যবহারকারীর তথ্য হাতিয়ে নিয়ে তা প্রতারকদের পাঠানোর জন্যই এটা করা হয়। এ ভাবে ব্যবহারকারীর সমস্ত কার্যকলাপ সহজেই ট্র্যাক করা যায় এবং তার অজান্তেই গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাঠানো হয়।

অনেক ক্ষেত্রেই সুবিধা নেওয়ার জন্য লিঙ্ক করার পর ব্যবহারকারীকে নির্দিষ্ট ফর্ম পূরণ করতেও বলা হয়। ইউজার নেম, এমনকী পাসওয়ার্ডও চাওয়া হয়। মনে রাখতে হবে, এগুলো সাধারণত ভুয়ো ওয়েবসাইট। কিন্তু আপাতদৃষ্টিতে দেখে তা বোঝা যায় না। ভুয়ো ওয়েবসাইটগুলো এমন ভাবে ডিজাইন করা হয়, তাতে দেখলে মনে হবে সেগুলো আসল!

রিপোর্ট বলা হয়েছে, হ্যাকারদের কৌশলে মাধ্যমে বিপুল সংখ্যক মানুষ প্রতারিত হন প্রতি বছর। এই ধরনের প্রতারকদের ফাঁদে না পড়ার জন্য, ব্যবহারকারীদের কয়েকটি বিষয় মনে রাখা উচিত।

অনলাইনে জালিয়াতি এড়ানোর উপায়

১. সোশ্যাল মিডিয়ায় যখনই কোনো বড়োসড়ো প্রতিশ্রুতি দিয়ে মেসেজ আসবে, বুঝতে হবে কিছু না কিছু গরমিল আছেই। প্রতারকরা আপনাকে জালে তুলতে চাইছে। কে না জানে, বিনে পয়সায় কোনো কিছুই পাওয়া যায় না। ফলে কেউ যখন যেচে উপকার করতে চাইছে, মানে আপনাকে ঠকানোর ফন্দি রয়েছে সেখানে।

২. যখনই কেউ আপনার কাছে ইউজার নেম এবং পাসওয়ার্ড বা অন্যান্য ব্যক্তিগত তথ্য জানতে চাইবে, তখন ধরে নিতে হবে সেটা কোনো কেলেঙ্কারির অংশ। কোনো ব্যাঙ্ক বা অন্য প্রতিষ্ঠানের নাম করে এই গোপন বিবরণ জানতে চায় প্রতারকরা।

৩. ব্যাঙ্কের তথ্য কখনোই কারোর সঙ্গে শেয়ার করবেন না। ক্রেডিট এবং ডেবিট কার্ড নম্বর, সিভিভি, পিন, ইন্টারনেট ব্যাঙ্কিং ইউজার আইডি, ইন্টারনেট ব্যাঙ্কিং পাসওয়ার্ড সুরক্ষিত রাখতে হবে।

৪. ওটিপি কখনোই অন্যের সঙ্গে শেয়ার করবেন না। এর মাধ্যমে প্রতারকরা আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট বা অন্য কোনো অ্যাকাউন্ট অ্যাক্সেস করার চেষ্টা করতে পারে। শুধু তাই নয়, আপনার আধার কার্ড থেকে শুরু করে ই-কমার্স ওয়েবসাইট অ্যাকাউন্ট, সব কিছুতেই হানা দিতে পারে প্রতারকরা।

আজকের আরও কিছু উল্লেখযোগ্য খবর পড়ুন এখানে:

কবে টিকা পাবে শিশু-কিশোররা? জানালেন কোভিড টাস্কফোর্সের প্রধান

‘ম্যাজিক্যাল ২২টা বছর’, বিবাহবার্ষিকীতে থ্রোব্যাক ভিডিও শেয়ার করলেন মাধুরী দীক্ষিত

মাদক মামলায় ফেঁসে কিডনি দানের অঙ্গীকার, সুপ্রিম কোর্টে স্বস্তি অভিযুক্তের

‘অপরাধীদের কোনো ধর্ম হয় না’, বাংলাদেশের পুজো মণ্ডপে দুষ্কৃতী আক্রমণ নিয়ে আব্বাস সিদ্দিকির লিখিত বিবৃতি

কোভিড টিকা নিলে টেলিভিশন, মোবাইল ফোন, কম্বল জেতার সুযোগ, অভিনব উদ্যোগ মণিপুরে

মহাকাশে এই প্রথম কোনো ছবির শ্যুটিং সেরে ১২ দিন পর পৃথিবীতে প্রত্যাবর্তন, দেখুন ভিডিয়োয়

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন