horsley hills

এ বার পাড়ি হায়দরাবাদ ঘুরে অন্ধ্রপ্রদেশের অল্প চেনা পথে। এই পথে বাঙালি পর্যটকের পা খুব একটা পড়ে না। কিন্তু মার্চ পর্যন্ত এই পথে ভ্রমণ খুবই মনোরম।

হায়দরাবাদশ্রীশৈলমবেলুমতিরুপতিহর্সলে হিলস্‌বেঙ্গালুরু

প্রথম থেকে তৃতীয় দিন – রাত্রিবাস হায়দরাবাদ

হায়দরাবাদে কী দেখবেন – পড়ুন: শীতের ভ্রমণ ৮ / অন্ধ্র ঘুরে তেলঙ্গানায়

চতুর্থ দিন রাত্রিবাস শ্রীশৈলম

হায়দরাবাদ থেকে সকালেই রওনা হন শ্রীশৈলমের পথে। দূরত্ব ২১৩ কিমি, সাত ঘণ্টার পথ। গাড়ি ভাড়া করেও আসতে পারেন।

শ্রীশৈলমে কী দেখবেন

() দ্বাদশ জ্যোতির্লিঙ্গের অন্যতম শ্রীশৈলম, লিঙ্গরূপী স্বয়ম্ভু দেবতা শিব এখানে মল্লিকার্জুন স্বামী। পাহাড়চুড়োয় দেবী মহাকালী, ব্রহ্মারম্ভা রূপে মন্দিরে। সিঁড়ি বেয়ে নেমে যান কৃষ্ণার ধারে

() অন্ধ্র পর্যটনের রোপওয়ে চড়ে দেখে নিন পাতালগঙ্গা

ropeway in srisailam() ৮ কিমি দূরে ২৮৩৫ ফুট উঁচু শিখরম পাহাড়ে শিখরেশ্বর স্বামী তথা শিব মন্দির।

পঞ্চম দিন – রাত্রিবাস বেলুম/তাদিপাত্রি

শ্রীশৈলম থেকে সকালেই রওনা হয়ে চলে আসুন বেলুম। দূরত্ব ২২০ কিমি। গাড়ি ভাড়া করে আসতে পারেন। টানা বাসের অভাবে বাস বদল করতে হতে পারে নান্দিয়ালে, দুরত্ব ১৬০ কিমি। নান্দিয়াল থেকে তাদিপাত্রির বাসে আসুন বেলুম, দুরত্ব ৬০ কিমি।

belum cavesভারতীয় উপমহাদেশে দ্বিতীয় বৃহত্তম গুহা, .২ কিমি দীর্ঘ। এর মধ্যে দেড় কিমি পর্যন্ত যাওয়া যায়। প্রবেশ ফটক থেকে ১২০ ফুট নামতে হয়। স্ট্যালাকটাইট ও স্ট্যালাগমাইট দণ্ডের মাঝ দিয়ে পথ – অভিনবত্বে ভরা বৈচিত্র্যময় এই গুহা।

ষষ্ঠ ও সপ্তম দিন – রাত্রিবাস তিরুপতি

বেলুমে থাকলে ভোরের বাস ধরে চলে আসুন তাদিপাত্রি। সেখান থেকে ট্রেনে তিরুপতি।তাদিপাত্রি থেকে সকাল ৭.৩৬এর সিএসটিএমচেন্নাই এক্সপ্রেস রেনিগুন্টা পৌঁছে দেয় পৌনে ১টায়। সকাল ৯.৫৫এর কন্যাকুমারী এক্সপ্রেস তিরুপতি পৌঁছে দেবে বিকেল সোয়া তিনটেয়। অথবা সোয়া ১২টার চেন্নাই এক্সপ্রেস রেনিগুন্টা পৌঁছে দেবে বিকেল ৪.৪০এ। রেনিগুন্টা থেকে তিরুপতি ১০ কিমি, অজস্র স্থানীয় যান পাবেন।

মন্দির-শহরে কী দেখবেন

tirupati balaji temlpe(১) তিন প্রাকারে ঘেরা লর্ড ভেঙ্কটেশ্বরের মন্দির। প্রথম প্রাকারে সম্পাঙ্গী, দ্বিতীয় প্রাকারে বিমান আর তৃতীয় প্রাকারে বৈকুণ্ঠ প্রদক্ষিণ করে মূল মন্দির। মন্দির সংলগ্ন ভেঙ্কটশ্বর কুণ্ড। সহস্র ফটিক শিলাস্তম্ভের মণ্ডপ তথা সভাগৃহটিও সুন্দর। ২৪৭ ফুট উঁচু গোপুরমটি দ্রাবিড়ীয় স্থাপত্যের সুন্দর নিদর্শন।

(২) মন্দিরের বিপরীতে ছোট্টো মিউজিয়াম

(৩) মন্দির বাস স্ট্যান্ড থেকে পাঁচ কিমি দূরে পাপ বিনাশম তীর্থ

(৪) মন্দির থেকে তিন কিমি দক্ষিণে আকাশগঙ্গা ঝরনা। সিঁড়ি উঠে দেখা নেওয়া যায় বিষ্ণুর পা থেকে প্রবাহিত গঙ্গা।

লোয়ার তিরুপতিতে কী দেখবেন

(৫) বালাজি পত্নী শ্রীপদ্মাবতী দেবী তথা আলামেলুমঙ্গাপুরম দর্শন ছাড়া তিরুপতি দর্শন অসম্পূর্ণ থাকে।

(৬) কপিলেশ্বর মন্দির

(৭) কপিলাতীর্থম পুষ্করিণী।  

kapila teertham, tirupati
কপিলাতীর্থম।

তিরুপতির অদূরে

(৭) তিরুপতি থেকে ১১ কিমি দক্ষিণ পশ্চিমে দেখে নিন চন্দ্রগিরি, ১৫৬৫-তে তালিকোটার যুদ্ধে হেরে যাওয়ার পর বিজয়নগর রাজারা হাম্পি ছেড়ে এখানেই রাজধানী গড়েন। রয়েছে দুর্গ। প্রাসাদে বসেছে মিউজিয়াম। লাগোয়া রানি মহল। নানা মন্দিরও আছে।

(৮) ১২ কিমি পশ্চিমে শ্রীনিবাস মঙ্গাপুরম গ্রাম। বিয়ের পর এখানেই বাস করেন লর্ড ভেঙ্কটেশ্বর ও শ্রীপদ্মাবতী। দেখে নিন তাঁদের মন্দির।

srikalahasti(৯) ৩৭ কিমি পুবে দুই পাহাড়ের মাঝে স্বর্ণমুখী নদীর তীরে শিবতীর্থ শ্রীকালাহস্তী, পল্লব রাজাদের তৈরি শিবমন্দির।

অষ্টম ও নবম দিন রাত্রিবাস হর্সলে হিলস্‌

সকাল সোয়া ৮টার তিরুপতি-গুন্টাকল প্যাসেঞ্জার সাড়ে ১১টায় মদনাপাল্লে পৌঁছে দেয়। মদনাপাল্লে থেকে হর্সলে হিলস্‌ বাসে এক ঘণ্টার পথ। তিরুপতি থেকে হর্সলে হিলস্‌ ১২৮ কিমি, বাসে বা গাড়ি ভাড়া করে আসতে পারেন। সরাসরি বাসের অভাবে মদনাপাল্লেতে বাস বদল করে আসতে পারেন।

হর্সলে হিলস্‌-এ কী দেখবেন

১২৬৫ মিটার উঁচু পূর্বঘাটে পর্বতমালায় হর্সলে হিলস্‌ অন্ধ্রের একমাত্র শৈলশহর। শীত এখানে বেশ উপভোগ্য। চন্দন, পলাশ, পিয়াল, সেগুন, দেবদারু, ইউক্যালিপ্টাস, গুলমোহর আর আমগাছে ছাওয়া হর্সলের প্রকৃতি অত্যন্ত মনোরম।

(১) সুন্দর হর্সলের সূর্যাস্ত – ভিউ পয়েন্ট থেকে দেখুন, বাস স্ট্যান্ড থেকে ২০০ মিটার দূরে।

gali banda, horsley hills(২) বাস স্ট্যান্ড থেকে ৩০০ মিটার দূরে গলি বন্ডা (উইন্ডিং রক)। সারা দিন ধরে এখানে প্রচণ্ড বাতাস বয়।

(৩) বাস স্ট্যান্ড থেকে প্রায় এক কিমি দূরে ১৫০ বছরের পুরোনো ইউক্যালিপ্টাস গাছ, ‘কল্যাণ’।

(৪) বন বাংলোর কাছে চিড়িয়াখানা

(৫) আড়াই কিমি দূরে গঙ্গোত্রী লেক

(৬) বাস স্ট্যান্ড থেকে ৩৫০ মিটার দূরে মালাম্মার মন্দির। 

(৭) এনভায়রনমেন্টাল পার্ক

(৮) ৯ কিমি পাহাড়ি পথে ঋষি ভ্যালি

দশম ও একাদশ দিন – রাত্রিবাস বেঙ্গালুরু

হর্সলে হিলস্‌ থেকে বেঙ্গালুরু ১৪৪ কিমি, গাড়ি ভাড়া করে চলে আসুন। সরাসরি বাসের অভাবে মদনাপাল্লেতে বাস বদল করেও আসতে পারেন।

বেঙ্গালুরুতে কী দেখবেন

lal bagh, bengaluru(১) লাল বাগ, ভিতরে লন্ডনের ক্রিস্টাল প্যালেসের আদলে গ্লাস হাউস

(২) কুব্বন পার্ক, রূপসী বেঙ্গালুরুর আরেক মরূদ্যান।

(৩) দু’ কোটি বছরের পুরোনো প্রাচীন ফসিল বৃক্ষের সঙ্গে শিশু বিনোদনের নানা পসরা নিয়ে গড়া জওহর বালভবন।

(৪) কুব্বনের উত্তর-পুবে উলুসর লেক

(৫) টিপুর সামার প্যালেস

(৬) পাশেই প্রাচীন ভেঙ্কটরমণস্বামী মন্দির

(৭) শহর থেকে দক্ষিণে বাগল হিলে বুল টেম্পল তথা নন্দীর মন্দির।

(৮) এ ছাড়াও বাইরে থেকে দেখে নিন বিধান সৌধ, হাইকোর্ট ভবন ইত্যাদি।

(৯) ২১ কিমি দক্ষিণে বান্নেরঘাটা জাতীয় উদ্যান

bennerghata national park
বানেরঘাটা জাতীয় উদ্যান।

দ্বাদশ দিন – ঘরের পথে।

ভারতের সব বড়ো শহরের সঙ্গে বেঙ্গালুরু রেলপথে বা আকাশপথে যুক্ত।

কোথায় থাকবেন

() হায়দরাবাদে থাকুন তেলঙ্গানা পর্যটনের হোটেলে। অনলাইন বুকিং www.telanganatourism.gov.in

taramati baradari resort, hyderabad
তারামতী বরাদরি রিসর্ট, হায়দরাবাদ।

() শ্রীশৈলমে থাকার অঢেল ব্যবস্থা, আগাম সংরক্ষণ করতে হয় না। মন্দির কমিটির কটেজ, ধর্মশালা রয়েছে। এ ছাড়া নানা ধরনের গেস্ট হাউস আছে।

() বেলুমে আছে অন্ধ্র পর্যটনের ৩২ শয্যার ডর্মিটরি। বেলুমে রাত কাটাতে না চাইলে ৩০ কিমি দূরে তাদিপাত্রিতে রাত কাটান। হর্সলে হিলস্‌-এ আছে অন্ধ্র পর্যটনের হারিথা হিল রিসর্ট। তিরুপতি স্টেশনের কাছে অন্ধ্র পর্যটনের হোটেল আছে। অনলাইন বুকিং www.aptdc.gov.in

() তিরুপতিতে থাকতে পারেন পাহাড়ের পাদদেশে তিরুপতি শহরে কিংবা ৪ কিমি সমতল ও ১৮ কিমি পাহাড়ি পথ পেরিয়ে ৮৬০ মিটার উঁচু পাহাড়চুড়োর মন্দিরতীর্থে। পাহাড়চুড়োয় তিরুপতি তিরুমালা দেবস্থানমের উদ্যোগে থাকার নানা ব্যবস্থা আছে। অনলাইন বুকিং www.ttdsevaonline.com ।

(৫) বেঙ্গালুরুতে থাকতে হবে বেসরকারি হোটেলে। অন্যত্রও বেসরকারি হোটেলে থাকতে পারেন। triviago.in, make my trip, goibibo, yatra.com ইত্যাদির মতো ওয়েবসাইটগুলিতে বেসরকারি হোটেলের সন্ধান পাবেন।

কী ভাবে ঘুরবেন

() হায়দরাবাদে স্থানীয় যান ভাড়া করে ঘুরতে পারেন। তেলঙ্গানা পর্যটনের কন্ডাক্টেড ট্যুরেও হায়দরাবাদ ঘুরে নিতে পারেন, তবে মন ভরবে না।

() শ্রীশৈলমে স্থানীয় যান ভাড়া করে ঘুরুন।

() বেলুম গুহার মূল প্রবেশ ফটকের কাছেই বাস স্টপ।

tirumala ghat road
তিরুপতি থেকে তিরুমালা যাওয়ার রাস্তা।

(৪) তিরুপতিতে থাকলে তিরুমালা যাওয়ার জন্য মুহুর্মুহু বাস পাবেন। স্থানীয় যান ভাড়া করে নিতে পারেন।

(৫) বাসে তিরুপতি থেকে চন্দ্রগিরি গেলে তিন কিমি দূরে নামিয়ে দেবে। ভালো হয়, অটো ভাড়া করে চলুন। তবে একটা গাড়ি ভাড়া করে নিলে লোয়ার তিরুপতির দ্রষ্টব্য দেখে একেবারে চন্দ্রগিরি, শ্রীকালাহস্তী ইত্যাদি ঘ্রে নিতে পারেন।

(৬) হর্সলে হিলস-এ হেঁটে আর স্থানীয় যান ভাড়া করে ঘুরে নিন। কর্নাটক পর্যটনের তরফে সিটি ট্যুরের ব্যবস্থা আছে। দেখে নিন ওয়েবসাইট www.kstdc.co ।

(৭) বেঙ্গালুরুতে স্থানীয় যান ভাড়া করে ঘুরে নিন।

মনে রাখবেন

() শ্রীশৈলমে নিখরচায় দর্শনের সময় সকাল ৬টা থেকে বিকেল ৩.৩০, সন্ধে ৬টা থেকে রাত ১০টা। মাথাপিছু ৫০ টাকা দিয়ে বিশেষ দর্শনেরও ব্যবস্থা আছে। সময় সকাল সাড়ে ৬টা থেকে দুপুর ১টা, সন্ধে সাড়ে ৬টা থেকে রাত ৯টা।

srisailam devasthanam() শ্রীশৈলমে ধূমপান, মদ্যপান ও আমিষ আহার নিষিদ্ধ।

() বেলুম গুহা সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা খোলা।

() তিরুপতিতে তিরুমালা দর্শনের যাবতীয় নিয়মকানুন, স্পেশাল দর্শনের মাথাপিছু টিকিটের দাম ইত্যাদি দেখে নিতে পারেন www,tirumala.org ওয়েবসাইট থেকে।

(৫) চন্দ্রগিরি ফোর্টে লাইট অ্যান্ড সাউন্ড শো চালু আছে কি না জেনে নেবেন। সেই বুঝে ঘোরার সময় ঠিক করে নেবেন।

(৬) বেঙ্গালুরুতে যেখানে থাকবেন সেখানে লাল বাগ, কুব্বন পার্ক ইত্যাদি খোলার দিন ও সময় জেনে নিন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here