Connect with us

দঃ ২৪ পরগনা

বুলবুলে তছনছ বকখালির টুরিস্ট লজ, বিপুল টাকার ক্ষয়ক্ষতি

বকখালি: ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের জেরে কার্যত তছনছ হয়ে গিয়েছে বকখালিতে অবস্থিত পশ্চিমবঙ্গ উন্নয়ন নিগমের বালুতট রিসর্ট। আপাতত সব বুকিং বাতিল করা হয়েছে রিসর্টের।

কবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে, সেই ব্যাপারে কিছু বলতে পারছেন না রিসর্ট কর্তৃপক্ষ। তবে মাস দুয়েকের আগে যে রিসর্টকে আবার আগের অবস্থায় ফেরানো যাবে না, সেটা একপ্রকার নিশ্চিত।

গত শনিবার সন্ধ্যা থেকে রাত পর্যন্ত দক্ষিণ ২৪ পরগণার বিস্তীর্ণ অঞ্চলে তাণ্ডব চালিয়েছে বুলবুল। তার অভিঘাত সব থেকে বেশি বকখালি এবং লাগোয়া অঞ্চলে ছিল। তার কারণ বকখালিতেই আছড়ে পড়েছিল এই ভয়াল ঘূর্ণিঝড়।

বুলবুলের জেরে কার্যত বেসামাল অবস্থা নিগমের এই রিসর্টের। উল্লেখ্য, কিছু দিন আগেই এই রিসর্টের নাম বদল করা হয়েছে। বকখালি টুরিস্ট লজের নাম এখন হয়েছে বালুতট ট্যুরিজম রিসোর্ট।

রিসর্টের ম্যানেজার তন্ময় হালদারের অনুমান সব মিলিয়ে কোটি খানেক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে এই রিসোর্টে।

তন্ময়বাবুর কথায়, রিসর্টের ৩০ কেভিএ-এর জেনারেটর পুরোপুরি ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে গিয়েছে। তিনি বলেন, “বিশাল ওই জেনারেটরটা মাঝখান থেকে পুরোপুরি ভেঙে গিয়েছে। ওটাকে আর সারিয়ে তোলা যাবে না।”

এই একটা জেনারেটরের পেছনেই প্রায় ৩০ লক্ষ টাকার ধাক্কা বলে জানান তন্ময়বাবু। এ ছাড়া রিসর্টের অন্তর্গত বন দফতরের যে কটেজটি ছিল, সেটি এতটাই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে যে কোনো ভাবে তাকে আগের অবস্থায় ফেরানো সম্ভব নয়। ফলে ওই কাঠের বাড়িটিকে পরিত্যক্ত করে দেওয়া হবে।

রিসর্টের রিশেপসন আর রেস্তোরাঁর কোনো কাচই আর আস্ত নেই। একই অবস্থা রিসর্টের নতুন ভবনটিরও।

আরও পড়ুন বুলবুলের জেরে তছনছ জনপ্রিয় পর্যটনকেন্দ্র, আগামী পাঁচ মাসের সব বুকিং বাতিল

চার দশকের পুরোনো এই রিসর্টে একটি নতুন তিন তলা বাড়ি তৈরি হয়েছে। ওই বাড়ির ঘরগুলো সমুদ্রমুখী। ফলে ওই বাড়ির ক্ষয়ক্ষতি অনেক বেশি। জানলার কাচ ভেঙে ঘরগুলিও তছনছ হয়ে গিয়েছে। ভেঙে পড়েছে রিসর্টের জলের ট্যাঙ্কও।

রিসর্টের চৌহদ্দির মধ্যেই অসংখ্য গাছ ছিল যার মধ্যে অধিকাংশই নারকেল। তন্ময়বাবুর কথায়, “সব নারকেল গাছগুলিকেই দেখে মনে হচ্ছে ওপর দিয়ে কেউ কেটে দিয়েছে।” ভেঙে পড়েছে বাকি গাছগুলিও।

তবে এরই মধ্যে কিছুটা স্বস্তির খবর এই যে বুধবার রাতে বিদ্যুৎ সংযোগ ফেরানো হয়েছে বকখালিতে। ফলে আতঙ্কের পরিবেশ একটু হলেও কমেছে।

সামনে পর্যটনের ভরা মরশুম। এই মরশুমের মুখে বুলবুলের জন্য মুখ থুবড়ে পড়ল দক্ষিণ ২৪ পরগণার একটা বিস্তীর্ণ অঞ্চলের পর্যটনশিল্প। তবুও ধ্বংসের মধ্যে আবার নতুন করে সংগ্রাম শুরু করতে হবে।

যে লড়াইটা বকখালির সাধারণ মানুষ চালাচ্ছেন, সেই লড়াইটা এখন পর্যটন কর্তৃপক্ষকেও করতে হবে রিসর্টকে আবার আগের চেহারায় ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য।

ছবি: রিসর্ট কর্তৃপক্ষ

দঃ ২৪ পরগনা

‘গরিবের প্রাপ্য টাকা হজম করে দিচ্ছেন তৃণমূল নেতৃত্ব’, অভিযোগ শমীক লাহিড়ির

উজ্জ্বল বন্দ্যোপাধ্যায়, জয়নগর: করোনাভাইরাস লকডাউনের মধ্যেও উম্পুন ত্রাণ দুর্নীতি নিয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে বামফ্রন্ট, বিজেপি এবং কংগ্রেসের মতো বিরোধী দলগুলি। বৃহস্পতিবার তেমনই একটি বিক্ষোভ সমাবেশ এবং প্রতিবাদসভা অনুষ্ঠিত হল দক্ষিণ ২৪ পরগনার জয়নগরে।

এ দিন দুপুরে জয়নগর-১ বিডিও অফিস বহড়ুতে সিপিএমের উদ্যোগে একগুচ্ছ দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ এবং প্রতিবাদসভা হয়। সভার মূল বক্তা হিসাবে উপস্থিত ছিলেন দলের জেলা সম্পাদক শমীক লাহিড়ি।

দাবি-দাওয়া

ঘূর্ণিঝড় উম্পুনকে জাতীয় বিপর্যয় হিসাবে ঘোষণা, উম্পুনে ক্ষতিগ্রস্ত সমস্ত মানুষকে সরকারি সাহায্য, একশো দিনের কাজ, পরিযায়ী শ্রমিকদের একশো দিনের কাজ এবং স্বচ্ছ্ব পদ্ধতিতে ক্ষতিপূরণের দাবি তোলা হয়ে এ দিনের অনুষ্ঠানে।

সিপিএমের অভিযোগ

শমীক লাহিড়ি বলেন, “প্রশাসনকে কাজে লাগিয়ে গরিব মানুষের প্রাপ্য টাকা হজম করে দিচ্ছেন তৃণমূল নেতৃত্ব । আমরা চাই উম্পুনে ক্ষতিগ্রস্তরা সবাই ক্ষতিপূরণ পাক”।

সিপিএম সদস্য অপূর্ব প্রামানিকের নেতৃত্বে পাঁচ জনের একটি প্রতিনিধি দল জয়নগর-১ ব্লকের যুগ্ম বিডিও বিপ্লব পালের কাছে ডেপুটেশন পেশ করেন। ব্লকের যুগ্ম বিডিও বিপ্লব পাল দাবি গুলি বিবেচনা করার আশ্বাস দিয়েছেন বলে জানান সিপিএম নেতৃত্ব।

দুর্নীতিরোধে মুখ্যমন্ত্রী

প্রসঙ্গত, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একাধিক বার বলেছেন, দলমত নির্বিশেষে ক্ষতিগ্রস্তদের কাছে ত্রাণ পৌঁছে দিতে হবে। এ নিয়ে কোনো দুর্নীতি বরদাস্ত করা হবে না। ত্রাণ নিয়ে কোনো নেতা দুর্নীতি করলে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশের পর গ্রাম পঞ্চায়েত, পঞ্চায়েত সমিতি স্তরের অসংখ্য তৃণমূল নেতাকে শোকজ করা হয়। এ বিষয়ে দলীয় পর্যায়েও তদন্ত চলছে বলে জানা গিয়েছে।

বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি অবশ্য শাসক দলের এহেন পদক্ষেপে ‘ড্যামেজ কন্ট্রোল’-এর ইঙ্গিত দেখছেন। তাদের বক্তব্য, দুর্নীতি যে হচ্ছেই, সেটা স্বীকার করে নিচ্ছে শাসক দল।

Continue Reading

দঃ ২৪ পরগনা

বিডিও অফিসে উম্পুনে ক্ষতিপূরণের ফর্ম জমা দিতে গিয়ে কুলতলিতে পদপিষ্ট একাধিক

ভিড়ের চাপে বেশ কয়েকজন মহিলা মাটিতে পড়ে যান। কেউ আবার তাঁদের উপর দিয়েই চলে যান। ফলে মাটিতে পড়ে থাকা মহিলারা আহত হন।

উজ্জ্বল বন্দ্যোপাধ্যায়, কুলতলিত: ঘূর্ণিঝড় উম্পুনে (Cyclone Amphan) ক্ষতিপূরণের ফর্ম জমা দেওয়াকে কেন্দ্র করে চরম বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হল দক্ষিণ ২৪ পরগনার কুলতলিতে। বৃহস্পতিবার বিডিও অফিসের সামনে হুড়োহুড়িতে সরকারি ভাবে দু’জন মহিলার পদপিষ্ট হওয়ার কথা স্বীকার করা হয়েছে।

বিডিও অফিস সূত্রে জানা গিয়েছে, সন্ধ্যা গায়েন এবং অসীমা হালদার নামে দুই পদপিষ্ট মহিলাকে হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে। তবে আবেদনকারীদের দাবি, আরও বেশ কয়েকজন জখম হয়েছেন।

এ দিন বিডিও অফিসের সামনে আবেদনকারীদের ভিড় ক্রমশ লম্বা হতে শুরু করে। সকাল থেকেই লাইনে দাঁড়িয়ে পড়তে শুরু করেন অনেকে। বেলা গড়ালে রোদের তাপে কেউ কেউ অসুস্থ হয়েও পড়েন। ঘটনায় প্রকাশ, তাঁদের মধ্যেই কেউ কেউ আগে নিজের ফর্ম দিতে চান। যা নিয়ে বিতর্ক বাঁধে। শুরু হয়ে যায় হুড়োহুড়ি।

সে সময় ভিড়ের চাপে বেশ কয়েকজন মহিলা মাটিতে পড়ে যান। কেউ আবার তাঁদের উপর দিয়েই চলে যান। ফলে মাটিতে পড়ে থাকা মহিলারা আহত হন। দুই মহিলাকে তৎক্ষণাৎ সেখান থেকে উদ্ধার করে স্থানীয় জামতলা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

বিক্ষোভ আগেও!

গত বুধবার বিকেলে কুলতলির দেউলবাড়ি দেবীপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের মাধবপুর গ্রামে ‘উম্পুন দুর্নীতি’র বিরুদ্ধে ক্ষোভ চরমে ওঠে। বিক্ষোভকারীদের দাবি, তালিকায় যাঁদের নাম রয়েছে, তাঁরা ক্ষতিপূরণ পাচ্ছেন না। উল্টে গ্রামের বাইরের কিছু লোক ক্ষতিপূরণ পেয়ে যাচ্ছেন।

এক বিক্ষোভকারী বলেন, “উম্পুনে আমাদের ঘর ভেঙে গিয়েছে। কিন্তু সরকারি ঘোষণা মতো ২০ হাজার টাকার ক্ষতিপূরণ পাইনি। প্রধানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, তালিকা জমা দেওয়া হয়েছে। পাওয়া যাবে। কিন্তু কবে”?

উম্পুন ক্ষতিপূরণ

ঘূর্ণিঝড় উম্পুনে যাঁরা চরম ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন, তাঁদের জন্য ২০ হাজার টাকার ক্ষতিপূরণ ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পশ্চিমবঙ্গে কমপক্ষে ১০ লক্ষ বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে সেই ক্ষতিপূরণ পাওয়া নিয়ে অসংখ্য অভিযোগ উঠে আসে। ‘ক্ষতিপূরণ পাওয়ার জন্য অন্যকে টাকার ভাগ দিতে হচ্ছে’ বলেও মারাত্মক অভিযোগ উঠে আসে।

জুন মাসের মাঝামাঝি মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেন, ক্ষতিপূরণ পাওয়ার জন্য ফর্ম কেনার দরকার নেই। টাকা সরাসরি ক্ষতিগ্রস্তের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে পৌঁছে যাবে। একই সঙ্গে তিনি বলেন, “অভিযোগ সত্য হিসাবে প্রমাণ হলে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেবে প্রশাসন”।

Continue Reading

দঃ ২৪ পরগনা

দেশের মধ্যে প্রবীণতম, করোনাকে হেলায় হারালেন ডায়মন্ড হারবারের ৯৯ বছরের বৃদ্ধ

খবরঅনলাইন ডেস্ক: তাঁর শরীরে করোনা ধরা পড়ার পর পরিজনরা তাঁর বেঁচে থাকার আশা প্রায় ছেড়েই দিয়েছিলেন। কারণ করোনার সঙ্গেও বার্ধক্যজনিত আরও অসুস্থতা তো রয়েছে।

কিন্তু সবাইকে কার্যত চমকে দিয়ে করোনাকে হেলায় হারালেন ৯৯ বছরের বৃদ্ধ। কাঁকুড়গাছির বেসরকারি নার্সিংহোমে চিকিৎসাধীন করোনা আক্রান্ত ওই বৃদ্ধ শ্রীপতি ন্যায়বান সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। রাজ্য তো বটেই, দেশের মধ্যে সব থেকে প্রবীণ ব্যক্তি তিনি, যিনি করোনাকে হারালেন।

ওই বৃদ্ধর দুই ছেলেও করোনায় আক্রান্ত। ৭২ বছর বয়সি বড়ো ছেলে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি রয়েছেন। আরও এক ছেলে মুকুন্দপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

জানা গিয়েছে, বৃদ্ধের এক ছেলের প্রথম কোভিড ধরা পড়ে। নিউমোনিয়ার উপসর্গ নিয়ে গত ১১ জুন রাতে তাঁকে মুকুন্দপুরের বেসরকারি হাসপাতালে ভরতি করানো হয়। করোনা পরীক্ষা হলে তার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। দশ দিন পর তাঁর আরও এক ছেলেও করোনায় আক্রান্ত হন।

দুই সন্তান আক্রান্ত হওয়ার মধ্যে গত সপ্তাহে অসুস্থ বোধ করেন বৃদ্ধ। গত ২৪ জুন তাঁর নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। বৃদ্ধের মৃদু হাইপারটেনশন ছিল। শীর্ণকায় শরীরে অক্সিজেনের মাত্রাও স্বাভাবিকের থেকে কম ছিল বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা।

এই অবস্থায় বৃদ্ধকে ডায়মন্ড হারবার থেকে কাঁকুড়গাছির বেসরকারি নার্সিংহোমে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে প্রায় সপ্তাহখানেক চিকিৎসাধীন থাকার পরে অবশেষে তাঁকে ছুটি দেওয়া হয়। করোনাকে হারিয়ে বৃদ্ধ বলেন, ‘‘ভালো আছি। শরীরে এখন কোনো অসুবিধা নেই।’’

করোনা যে মারণ ভাইরাস নয় আর করোনা নিয়ে কারও অতিরিক্ত আতঙ্কিত হওয়ারও যে দরকার নেই, এই বৃদ্ধই সেটা বুঝিয়ে দিলেন।

Continue Reading
Advertisement
দেশ33 mins ago

সুপ্রিম কোর্ট কোভিড-১৯ চিকিৎসার খরচ বেঁধে দিতে পারে না: প্রধান বিচারপতি

দেশ58 mins ago

ফুঁসছে কোশী, বিহারে হুড়মুড়িয়ে নদীগর্ভে তলিয়ে গেল স্কুল বাড়ি

উঃ দিনাজপুর2 hours ago

ময়নাতদন্তে বিধায়কের আত্মঘাতী হওয়ারই ইঙ্গিত, জানালেন স্বরাষ্ট্রসচিব

রাজ্য2 hours ago

আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে, প্রশ্ন উঠছে চিকিৎসা পরিষেবা নিয়েও

দেশ2 hours ago

করোনায় স্বস্তির খবর, ১.১৩ থেকে আর নম্বর কমে এখন ১.১১

শিক্ষা ও কেরিয়ার4 hours ago

কাল মাধ্যমিক ও সিবিএসই দশম শ্রেণির ফলপ্রকাশ

বাংলাদেশ4 hours ago

উভয় দেশে পণ্যবাহী ট্রেন চালুর সিদ্ধান্তের পর প্রথম ভারতীয় ট্রেন বাংলাদেশে

দেশ5 hours ago

মন্ত্রী ও দলীয় সভাপতি পদ থেকে অপসারিত সচিন পায়লট

কেনাকাটা

কেনাকাটা2 days ago

হ্যান্ডওয়াশ কিনবেন? নামী ব্র্যান্ডগুলিতে ৩৮% ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনাভাইরাস বা কোভিড ১৯ এর সঙ্গে লড়াই এখনও জারি আছে। তাই অবশ্যই চাই মাস্ক, স্যানিটাইজার ও হ্যান্ডওয়াশ।...

কেনাকাটা5 days ago

ঘরের একঘেয়েমি আর ভালো লাগছে না? ঘরে বসেই ঘরের দেওয়ালকে বানান অন্য রকম

খবরঅনলাইন ডেস্ক : একে লকডাউন তার ওপর ঘরে থাকার একঘেয়েমি। মনটাকে বিষাদে ভরিয়ে দিচ্ছে। ঘরের রদবদল করুন। জিনিসপত্র এ-দিক থেকে...

কেনাকাটা1 week ago

বাচ্চার জন্য মাস্ক খুঁজছেন? এগুলোর মধ্যে একটা আপনার পছন্দ হবেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিউ নর্মালে মাস্ক পরাটাই দস্তুর। তা সে ছোটো হোক বা বড়ো। বিরক্ত লাগলেও বড়োরা নিজেরাই নিজেদেরকে বোঝায়।...

কেনাকাটা1 week ago

রান্নাঘরের টুকিটাকি প্রয়োজনে এই ১০টি সামগ্রী খুবই কাজের

খবরঅনলাইন ডেস্ক : লকডাউনের মধ্যে আনলক হলেও খুব দরকার ছাড়া বাইরে না বেরোনোই ভালো। আর বাইরে বেরোলেও নিউ নর্মালের সব...

নজরে