রাজধানী-শতাব্দীতে রেলের খাবার আর বাধ্যতামূলক নয়

0

খবর অনলাইন: এ বার থেকে রাজধানী বা শতাব্দী এক্সপ্রেসে ভ্রমণের সময় রেলের পরিবেশিত খাবার খাওয়া আর বাধ্যতামূলক থাকছে না। রেলের খাবারের মান ও পরিমাণ নিয়ে যাত্রীদের নানা অভিযোগ পাওয়ার পর রেল মন্ত্রক এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ১৫ জুন থেকে এই ব্যবস্থা চালু হবে। এর ফলে প্রতি টিকিটে অন্তত ৩০০ টাকা কম দিতে হবে যাত্রীদের। দূরের যাত্রীদের ক্ষেত্রে এই ছাড় আরও বেশি হবে। কারণ খাবার খরচ রাজধানী ও শতাব্দীর টিকিটে ধরা থাকে।

গোড়ার দিকে দু’টি রাজধানী এক্সপ্রেস ও দু’টি শতাব্দী এক্সপ্রেসে ৪৫ দিনের জন্য পরীক্ষামূলক ভাবে এই ব্যবস্থা চালু হবে। তবে রেলকর্তাদের আশা, যাত্রীরা এই ‘স্বাধীনতা’ হাসি মুখে মেনে নেবে এবং এটাই স্থায়ী ব্যবস্থা হয়ে যাবে। যে চারটি ট্রেনে এই ব্যবস্থা চালু হতে চলেছে সেগুলি হল পটনা রাজধানী, দিল্লি-মুম্বই আগস্ট ক্রান্তি রাজধানী, পুনে-সেকেন্দরাবাদ শতাব্দী এবং হাওড়া-পুরী শতাব্দী।

এ ব্যাপারে রেল মন্ত্রক প্রয়োজনীয় নীতিনির্দেশ জারি করেছে এবং টিকিট কাটার নতুন সফটওয়্যার নিয়ে পরীক্ষানিরীক্ষা করাও হয়ে গেছে। আইআরসিটিসি পোর্টালে গিয়ে কেউ টিকিট কাটতে চাইলে, ওয়েবসাইটে একটা ‘পপ-আপ’ আসবে, যাতে প্রশ্ন করা হবে, আপনি কি রেলের পরিবেশিত খাবার নিতে চান না ? আপনার উত্তর যদি ‘হ্যাঁ’ হয়, তা হলে আপনার টিকিটের দাম কমে যাবে। আপনার টিকিটের দাম থেকে কেটারিং চার্জ বাদ দেওয়া হবে। যাত্রীসাধারণ রেলের খাবার গ্রহণ না করলে তাঁরা ওয়েবসাইটে দেওয়া বিভিন্ন ই-কেটারিং ব্যবস্থার একটি বেছে নিতে পারবেন কিংবা খাবার সরবরাহের জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত ভেন্ডরদের ফোনে যোগাযোগ করে খাবার আনিয়ে নিতে পারবেন। বিভিন্ন নামী ব্র্যান্ড-সহ বহু ভেন্ডর ট্রেনে খাবার সরবরাহের দায়িত্ব নিয়েছে।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন