darjeeling tourist footfall
দার্জিলিং থেকে কাঞ্চনজঙ্ঘা। নিজস্ব চিত্র।

ওয়েবডেস্ক: গত কয়েক বছরের সব রেকর্ড ছাপিয়ে গিয়ে এ বার পর্যটকদের পা পড়েছে দার্জিলিং পাহাড় এবং সিকিমে। এমনই জানাচ্ছেন ট্যুর অপারেটররা।

বিভিন্ন ট্যুর অপারেটরের তরফ থেকে জানা গিয়েছে নভেম্বরের মাঝামাঝি পর্যন্ত এই অঞ্চলের সব হোটেল, হোমস্টে বুক হয়ে রয়েছে। এমনকী আকাল দেখা দিয়েছে গাড়িরও।

২০১৬-তে যতো সংখ্যক পর্যটন দার্জিলিং এবং সিকিমে বেড়াতে গিয়েছিলেন, তার থেকে এ বারের সংখ্যাটা বেড়েছে ৪৫ শতাংশ। দার্জিলিং, কালিম্পং, গ্যাংটকের পাশাপাশি এই মরশুমে সিকিমের সিল্ক রুটও পর্যটকদের কাছে জনপ্রিয় হয়েছে।

কী কারণে এই রেকর্ড সংখ্যক পর্যটকের পা পড়েছে পাহাড়ে?

ইস্টার্ন হিমালয়া ট্র্যাভেল অ্যান্ড ট্যুর অপারেটর অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট দেবাশিস মৈত্র বলেন, “বন্যার জন্য কেরলকে বাদ রেখেছেন পর্যটকরা। নিরাপত্তার কারণে কাশ্মীরের দিকেও পা বাড়াচ্ছেন না তাঁরা। আবার সম্প্রতি বর্ষায় ক্ষয়ক্ষতি এবং জলকষ্টের জন্য উত্তরাখণ্ড আর হিমাচলের দিকে যেতেও রাজি হচ্ছেন না বেশিরভাগ পর্যটক। সেই কারণেই পুরো ভিড়টা এই পূর্ব হিমালয়ে এসে পড়েছে।”

আরও পড়ুন রাতে পাহাড়ি পথে ভ্রমণ নয়, পরামর্শ পূর্ব হিমালয়ের ট্যুর অপারেটরদের

অন্যবারের থেকে এ বার ভুটানের চাহিদাও অনেক বেশি বলে জানিয়েছেন দেবাশিসবাবু। তাঁর দাবি, দার্জিলিং এবং সিকিমের প্রতি মানুষ এতটাই আকৃষ্ট হয়ে পড়েছেন যে সামনের বছর এপ্রিল এবং মে’র জন্যও বুকিং-এর আবেদন আসতে শুরু করে দিয়েছে তাঁদের কাছে।

অন্যদিকে তুলনামূলক কম খরচের জন্য হোমস্টের প্রতিও মানুষের আকর্ষণ বেড়েছে বলে জানিয়েছেন হিমালয় হোমস্টে অ্যাসোসিয়েশনের সচিব প্রশান্ত প্রধান।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here