খবর অনলাইন: এ বার আপনার গন্তব্য হোক ফ্রেডেরিকনগর। চিনতে পারলেন না বোধহয়। শ্রীরামপুর বললে নিশ্চয়ই চিনবেন। কলকাতা থেকে ২৪ কিলোমিটার দূরে গঙ্গাপাড়ের শহরটি? ইংরেজরা ভারতে আসার বহু আগেই ১৬১৬-তেই ডেনমার্ক কলোনি গড়ে তোলে এই শ্রীরামপুরে। কলোনি গড়ে দিনেমাররা এই জায়গার নাম রাখে ফ্রেডেরিকনগর। তাদের কীর্তিকলাপের নিদর্শন আজও শ্রীরামপুরকে গৌরবান্বিত করে রেখেছে। এর মধ্যে অন্যতম হল সেন্ট ওলাব চার্চ। প্রায় বিধ্বস্ত এই গির্জাটিকে একেবারে উনিশ শতকের চেহারায় ফিরিয়ে এনেছে ডেনমার্ক।

গঙ্গার পাড়ে ৪০ কাঠা জমির ওপর তৈরি এই গির্জার বয়স দুশোর কিছু বেশি। ১৮০৬ সালে নির্মিত এই গির্জায় শ্রীরামপুর কলেজের উদ্যোগে ২০১০ সাল পর্যন্ত সাপ্তাহিক প্রার্থনা অনুষ্ঠিত হত। কিন্তু গির্জার ছাদের অবস্থা দেখে কলেজ কর্তৃপক্ষ প্রার্থনাসভা বন্ধ করে দেন। এবং কিছু দিন পরেই উইপোকায় খাওয়া সিলিংটি ভেঙে পড়ে। ইতিমধ্যে শ্রীরামপুরে দিনেমারদের নিদর্শনগুলো সংস্কার করার জন্য ‘শ্রীরামপুর ইনিশিয়েটিভ’ নামে একটি কর্মসূচি গ্রহণ করে ডেনমার্ক। ওই কর্মসূচিতে সেন্ট ওলাব চার্চকে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য শ্রীরামপুর কলেজ কর্তৃপক্ষ আবেদন করে। শেষ পর্যন্ত ন্যাশনাল মিউজিয়াম অব ডেনমার্ক (এনএমডি), সে দেশের সংস্কৃতি মন্ত্রক এবং সেখানকার মানবকল্যাণকামী সংগঠন ‘রিয়ালডানিয়া’ গির্জার সংস্কারসাধনে এগিয়ে আসে।

সেই ২০০ বছর আগেকার চেহারায় ফিরে গেছে সেন্ট ওলাব চার্চ। চলুন, এ বার শ্রীরামপুরে গিয়ে উনিশ শতকের স্বাদ নিয়ে আসি।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here