দুর্গোৎসব বাংলাদেশে: জমজমাট ঢাকার পুজোমণ্ডপ, মহাসপ্তমীতে ভক্তদের প্রথম অঞ্জলি, এ বারেও হচ্ছে না কুমারীপূজা

0

ঋদি হক: ঢাকা

শারদীয় দুর্গোৎসবের বর্ণাঢ্য আয়োজন চলছে বাংলাদেশ জুড়ে। মহাসপ্তমীতে কলাবউ স্নান করিয়ে, ঘট প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে শুরু হয় মহাসপ্তমী পুজো। পঞ্জিকামতে এ বার ঘোড়ায় চড়ে আগমন দেবীর। কথিত আছে, দেবীর ঘোড়ায় আগমনের ফল ছত্রভঙ্গ। সপ্তমী তিথি মঙ্গলবার ভোর ৪টে ০৩ মিনিট ০৫ সেকেন্ড থেকে শুরু হয়ে শেষ হয় ১টা ৪৬ মিনিট ৩৩ সেকেন্ডে।

করোনা আবহে যাবতীয় সতর্কতা মেনেই মণ্ডপে মণ্ডপে দেবীর আবাহন হবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন পূজাউদ্যোক্তারা। সাবেকিয়ানা থেকে থিম – উৎসবের রোশনাই ছড়িয়েছে বাংলাদেশে।

অরুণিমা জনকল্যাণের সুবর্ণজয়ন্তী  

১৯৭১ সালে ২৫ মার্চের কালো রাতে ঢাকার রাজারবাগ পুলিশ লাইনে অতর্কিতে হামলা চালায় কুখ্যাত পাকবাহিনী। তারা রাজারবাগই নয়, আশেপাশের পাড়ামহল্লায় হামলা চালিয়ে নির্বিচারে মানুষ হত্যা, মন্দির ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ-সহ হেন হিংসাত্মক কাজ নেই, যা তারা করেনি।

এই রাজারবাগের বর্তমান টেলিকমুনিকেশন ভবনের উল্টো দিকে অরুণিমা জনকল্যাণ দেবালয় পূজা কমিটি এ বার সুবর্ণজয়ন্তী পালন করছে। স্বাধীনতার পর পরই ধ্বংসস্তূপের এক কোণে শুরু হয়েছিলো পূজো।

মা সিদ্ধেশ্বরী কালীমন্দির

মা সিদ্ধেশ্বরী কালীমন্দিরে এ বারে উদযাপন হচ্ছে সাড়ে চারশো বছরের পুরোনো পুজো। সিদ্ধেশ্বরী কালীমন্দিরে মায়ের সঙ্গে এসেছিল সৃজান। সঙ্গে ছোটোভাইও। জানাল, গত বছর পূজোর আনন্দটা কেড়ে নিয়েছেল করোনা। এ বারে অতিমারি একেবারেই কমে এসেছে। এমন একটা সময়ে পূজো শুরু হওয়ায় তাদের আনন্দের সীমা নেই।

সৃজানকে খুবই উৎফুল্ল লাগছিল। তার মা ডালাভর্তি গোলাপ নিয়ে এসেছেন। পুজো দিলেন। মায়ের কাছে সন্তান তথা পরিবার এবং সমাজের কল্যাণ প্রার্থনা করলেন।

সিদ্ধেশ্বরী কমিটির তরফে জানানো হয়, এ বারে সরকারি বিধিনিষেধ এবং নিরাপত্তা সংক্রান্ত নির্দেশ মেনেই তারা পূজোর সকল আয়োজন সম্পন্ন করছে। মন্দিরের প্রধান ফটকে ‘মেটাল ডিটেক্টর’ বসানো হয়েছে। নিরাপত্তার দায়িত্বে রয়েছে র‌্যাব ও পুলিশ। রয়েছে নারী পুলিশের দলও। মন্দির ঘিরে বসেছে সিসি ক্যামেরা।

উৎসবে মাতোয়ারা

হাজার হাজার পূজামণ্ডপ উৎসবে মাতোয়ারা। মণ্ডপে মণ্ডপে ঢাকের বোলে যেন ধ্বনিত হচ্ছে বাঙালি হিন্দুদের হৃদয়তন্ত্রীতে বাঁধভাঙা আনন্দ জোয়ার। শোনা যায় উলুধ্বনি, শঙ্খ, কাঁসা ও ঢাকের বাদ্য।

সোমবার মহাষষ্ঠীতে দেবী দুর্গার বোধনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের সব চেয়ে বড়ো উৎসব শারদীয় দুর্গোপূজা। আগের বারের চেয়ে এ বারের পুজো জাঁকজমকপূর্ণ হবে, তা আঁচ করা গিয়েছিল আগেই। অতিমারির কারণে গত বছর ঘরের বাইরে পা রাখা মানা ছিল। পা আটকে ছিল বিধিনিষেধের শিকলে। এ বারে মুক্ত।

শাহজাহানপুর রেল কলোনি

শাহজাহানপুর রেল কলোনি মন্দিরে এ বারেও আয়োজন করা হয়েছে জমজমাট দুর্গাপুজো। সকালে বাংলাদেশ রেলের মহাপরিচালক ধীরেন্দ্রনাথ মজুমদার উৎসবের  উদ্বোধন করেন। এই মণ্ডপের বিশাল চত্বরে আয়োজনটা বেশ জমজমাট হয়ে থাকে। ভক্তদের উপচে পড়া ভিড় লেগেই থাকে। এমনটাই জানালেন এখানকার পুরোহিত উত্তর চক্রবর্তী।

অসম্পুর্ণতা কিছুটা থাকলেও পুষিয়ে নেওয়ার  আনন্দে মেতেছে সবাই। এ বারে প্রায় দেড় হাজারের বেশি মণ্ডপে পূজা উদযাপিত হচ্ছে। সকল ধর্মেরই প্রধান আহবান মানুষে মানুষে সম্প্রতি, প্রতিযোগিতা নয়। ধর্ম আমাদের ভ্রাতৃপ্রেম জাগ্রত করে, বললেন মহাপরিচালক ধীরেন্দ্র নাথ মজুমদার।

মহাসপ্তমীতেই শুরু হল দেবী-দর্শন

কার্যত মহাসপ্তমীতেই শুরু হল দেবী-দর্শন, দেবীর পায়ে ভক্তদের অঞ্জলি প্রদান ও প্রসাদ গ্রহণ। এ দিনই দুর্গোৎসবের মূল পর্বেরও শুরু। মহাসপ্তমীতে ষোড়োশ উপাচারে অর্থাৎ ষোলটি উপাদানে দেবীর পূজা হয়েছে। সকালে ত্রিনয়নী দেবী দুর্গার চক্ষুদান, দেবীকে আসন, বস্ত্র, নৈবেদ্য, পুষ্পমাল্য, চন্দন, ধূপ ও দীপ দিয়ে পূজা করেন ভক্তরা। সপ্তমীপূজা উপলক্ষ্যে বিভিন্ন পূজামণ্ডপে সন্ধ্যায় ছিল ভক্তিমূলক সংগীত, রামায়ণ-পালা, আরতি-সহ নানা অনুষ্ঠান।

আশির দশকেও দুর্গাপূজা সীমাবদ্ধ ছিল পুরোনো ঢাকায়। এবং যা হত সেটাও ছোটো আকারে। ৯০ দশকে এসে শারদীয় দুর্গোৎসব বাংলাদেশে সর্বজনীন রূপ পায়। আর বর্তমান দৃশ্যের সঙ্গে আগের আয়োজনের কোনো তুলনাই হয় না। ঢাকা-সহ সারা দেশের প্রতিটি পূজামণ্ডপের নিরাপত্তা রক্ষায় পুলিশ, আনসার, র‌্যাব-সহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর অন্যান্য সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছেন।

সম্প্রতি করোনার প্রভাব কমে আসায় এবং পূজা উপলক্ষ্যে বেশ জমে উঠেছে শপিং মল, মার্কেট ও রাস্তার পাশের দোকানগুলো। ক্রেতারা ভিড় জমাচ্ছেন কাপড়, জুতা, ইলেকট্রনিক পণ্য-সহ নানান জিনিস কিনতে। বিক্রেতারা এক ফাঁকে জানালেন, এ বারে করোনার কমে আসায় কেনাকাটা ভালো। গেল বছর তো তাদের ঘর থেকেই বেরোতে পারেননি।

বুধবার মহাষ্টমী। সকাল থেকেই পূজার আয়োজন শুরু হয়ে যাবে। পূজা উদযাপন পরিষদের তরফে বলা হয়েছে, এ বারেও অষ্টমীর অন্যতম আকর্ষণ কুমারীপূজা হবে না।

আরও পড়তে পারেন

সকল সম্প্রদায়ের প্রচেষ্টায় বাংলাদেশ পৌঁছোবে স্বপ্নের ঠিকানায়: তথ্যমন্ত্রী

বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক বন্ধুত্বের মর্যাদায় অধিষ্ঠিত, অ্যাম্বুলেন্স হস্তান্তর অনুষ্ঠানে বললেন বাংলাদেশের মন্ত্রী

মাদক মামলায় স্থায়ী জামিন পেলেন নায়িকা পরীমণি

পাবনার রূপপুর পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্রে বসল প্রথম চুল্লি

ভাসান চরে রোহিঙ্গাদের মানবিক সহায়তায় বাংলাদেশ-রাষ্ট্রপুঞ্জ মউ স্বাক্ষর

ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রীর ৫০ বছর উপলক্ষ্যে রোকেয়া সুলতানার একক শিল্পকর্ম প্রদর্শনী

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন